ডেস্ক নিউজ
প্রকাশিত: ২০/০৪/২০২৪ ৯:৪৪ এএম

সরকারদলীয় এমপি-মন্ত্রীদের সন্তান, পরিবারের সদস্য ও নিকটাত্মীয়দের আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে অংশ না নিতে কঠোর নির্দেশনা রয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের। তা সত্ত্বেও মন্ত্রী-এমপির আত্মীয়স্বজনরা অনেকে শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকার অনড় অবস্থানে রয়েছেন। কেউ কেউ আরও কিছুদিন অপেক্ষা করে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের কথাও জানিয়েছেন। তবে দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে এমন কেউ নির্বাচনে অংশ নিলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দলের শীর্ষ নেতারা। এমনকি মন্ত্রিত্ব ও এমপি পদ নিয়ে টান দিতে পারে ক্ষমতাসীন দলটি।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন উপজেলায় নিজেদের বলয়ের নেতাকর্মী, আত্মীয়স্বজনদের নির্বাচনে দাঁড় করিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করছেন কিছু এমপি ও মন্ত্রী। এতে নির্বাচনের পরিবেশ বিঘ্নিত হচ্ছে। বিষয়টিকে আমলে নিয়ে উপজেলা নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক করতে মন্ত্রী-এমপিদের স্বজন ও আত্মীয়রা যাতে নির্বাচন থেকে সরে যায়, সেজন্য দলের শীর্ষ পর্যায় থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় এখনো দুদিন বাকি থাকায় দলের পক্ষ থেকে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের চেষ্টাও চালানো হচ্ছে। দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার এ সিদ্ধান্তকে অমান্য করলে খেসারত হিসেবে বহিষ্কারসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে আওয়ামী লীগ। সিদ্ধান্ত মেনে নিলে তাদের পুরস্কৃত করা হবে বলেও জানিয়েছেন নীতিনির্ধারকরা।

ষষ্ঠ উপজেলা নির্বাচন চারটি ধাপে অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম ধাপে আগামী ৮ মে ১৫০টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ হবে। প্রথম ধাপে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে দেড় ডজনেরও বেশি উপজেলায় মন্ত্রী-এমপিদের সন্তান, পরিবারের সদস্য ও নিকটাত্মীয়রা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন। বাকি তিন ধাপের নির্বাচনেও অনেক মন্ত্রী-এমপির স্বজনরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ঘোষণা দিয়েছেন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান কালবেলাকে বলেন, ‘আমরা চাই উপজেলা নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হোক। মন্ত্রী-এমপিদের স্বজন ও নিকটাত্মীয়রা নির্বাচনে অংশ নিলে ক্ষমতা ব্যবহার করে প্রভাবিত করার শঙ্কা থাকে। সেজন্য নির্বাচন সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক করতে তাদের সরে যেতে বলা হয়েছে। কেউ এই আদেশ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অপরাধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর এমপি বা মন্ত্রিত্ব পদে আঁচ পড়বে কি না, তা সময়ই বলে দেবে।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম কালবেলাকে বলেন, ‘এমপি-মন্ত্রীদের আত্মীয়স্বজন উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না—এটা দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার সিদ্ধান্ত। দলীয় সভাপতির সিদ্ধান্ত অমান্য করলে দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শুধু তা-ই নয়, তাদের খেসারত দিতে হবে। যারা সিদ্ধান্ত মেনে নেবে, তাদের দল পুরস্কৃতও করবে।

গত বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির কার্যালয়ে এক অনির্ধারিত বৈঠকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন দলীয় সংসদ সদস্য ও মন্ত্রীদের প্রভাবমুক্ত রাখতে তাদের নিকটাত্মীয় ও পরিবারের সদস্যদের প্রার্থী না হতে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। মন্ত্রী-এমপিরা যেন খবরদারি করতে না পারে, সেজন্য দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা এই নির্দেশনা দিয়েছেন বলে জানান দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। নির্বাচনে হস্তক্ষেপ না করার জন্য দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রাজ্জাক ও শাজাহান খান, নোয়াখালীর এমপি একরামুল করিম চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজনকে তাৎক্ষণিক বৈঠক থেকে সতর্কবার্তা দেওয়া হয়।

নোয়াখালী-৪ আসনের এমপি একরামুল করিম চৌধুরীর ছেলে আতাহার ইশরাক শাবাব চৌধুরী সুবর্ণচর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী, টাঙ্গাইল-১ আসনের এমপি ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাকের খালাতো ভাই ধনবাড়ি উপজেলায়, মাদারীপুর-২ আসনের এমপি ও সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের ছেলে আসিবুর রহমান খান সদর উপজেলায়, নাটোর-৩ আসনের এমপি ও প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলকের শ্যালক লুৎফুল হাবিব সিংড়া উপজেলায়, নরসিংদী-২ আসনের এমপি আনোয়ার আশরাফ খানের শ্যালক শরিফুল হক পলাশ উপজেলা, বগুড়া-১ আসনের এমপি শাহদারা মান্নানের ভাই ও ছেলে দুই উপজেলায়, মানিকগঞ্জ-৩ আসনের এমপি ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের ফুপাতো ভাই ইসরাফিল হোসেন সদর উপজেলায়, কুষ্টিয়া-৩ আসনের এমপি মাহাবুব-উল আলম হানিফের চাচাতো ভাই আতাউর রহমান আতা কুষ্টিয়া সদরে, পাবনা-৩ আসনের মো. মকবুলের বড় ছেলে রাসেল পৌরসভার মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন।

এ ছাড়া নোয়াখালী-৬ আসনের এমপি মোহাম্মদ আলীর ছেলে আশীক আলী হাতিয়া উপজেলায়, পিরোজপুর-১ আসনের শ ম রেজাউল করিমের ছোট ভাই নূর ই আলম নাজিরপুর উপজেলায়, বরিশাল-১ আসনের আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর ছোট ছেলে আশিক আব্দুল্লাহ আগৈলঝাড়া উপজেলায়, মৌলভীবাজার-১ আসনের এমপি ও সাবেক মন্ত্রী শাহাব উদ্দিনের ভাগনে শোয়েব আহমদ বড়লেখা উপজেলায় প্রার্থী হয়েছেন। ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে এমপি মাজহারুল ইসলাম সুজনের দুই চাচাসহ তিনজন প্রার্থী হয়েছেন। বরিশাল-৬ আসনের এমপি আব্দুল হাফিজ মল্লিকের ভাই বাকেরগঞ্জ উপজেলায় প্রার্থী হয়েছেন।

এদিকে দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে নিজ পুত্রের বিষয়ে অনড় এমপি একরাম চৌধুরী। তার অনুসারীরা ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিলেও তারা তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করবেন না। দলীয় নীতিনির্ধারকদের নির্দেশ অমান্য করে একরামের ছেলে শাবাব চৌধুরী এখনো প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ এইচ এম খায়রুল আনম সেলিম এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল্লাহ খান সোহেলকেও নানা হুমকি দিচ্ছেন একরাম। সোহেলকে তার কার্যালয় থেকে বের হতে দেবেন না বলেও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। নোয়াখালীর সুবর্ণচরে নিজের ছেলেকে ভোট না দিলে উন্নয়নকাজ বন্ধ করে দেওয়ার হুমকিসহ এমপি একরামের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড এবং বিতর্কিত বক্তব্য নিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চরম ক্ষুব্ধ বলেও জানা গেছে।

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে এমপি সুজনের পরিবারে তিনজন উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এমপি সুজনের মেজো চাচা বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী ও তার ছোট ছেলে আলী আফসার রানা এবং আরেক ছোট চাচা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবেন না বলে জানা গেছে।

কুষ্টিয়া-৩ আসনের এমপি ও দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফের ভাই আতাউর রহমান আতাও নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন। এ বিষয়ে আতাউর রহমান আতা বলেন, ‘আমাকে নির্দেশ করে বলা হয়নি যে, নির্বাচন করতে পারব না। আমি বর্তমান চেয়ারম্যান। আমাকে উদ্দেশ করে বলা হলে আমি বিবেচনা করব, যেহেতু আমি দলের রাজনীতি করি।’

নির্বাচন থেকে সরে না দাঁড়ানোর একই মনোভাব পোষণ করছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের ফুফাতো ভাই মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান ইসরাফিল হোসেন। তিনি কালবেলাকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে উদ্দেশ্যে বলেছেন আমি সেই ক্যাটাগরিতে পরি না। সেজন্য আমি আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব। আমি পরপর দুইবারের উপজেলা চেয়ারম্যান।’

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাচনে সাবেক কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাকের খালাতো ভাই হারুনার রশিদ হিরাও অনড় অবস্থানে আছেন। কালবেলাকে তিনি বলেন, ‘মন্ত্রী-এমপির স্বজনরা নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না—এ রকম কোনো বার্তা আমার কাছে এখনো আসেনি।’

মাদারীপুর-২ আসনের এমপি ও দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শাজাহান খান কালবেলাকে বলেছেন, ‘এই উপজেলায় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে আমার ছেলে ও আমার এক ভাই। দলের সিদ্ধান্তে সরে যেতে হলে এই উপজেলায় তো নির্বাচনই হবে না। দলের শীর্ষ পর্যায়ের সঙ্গে কথা বলে সিদ্ধান্ত নেব।’

এ বিষয়ে শাজাহান খানের বড় ছেলে আসিবুর রহমান খান বলেন, ‘নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা এবং ভোট প্রদান করা একটি গণতান্ত্রিক অধিকার। আমার সে অধিকার তো কেউ ক্ষুণ্ন করতে পারে না। এমপি-মন্ত্রীর স্বজনরা নির্বাচন অংশগ্রহণ করতে না পারলে তো এখানে আর নির্বাচনই থাকে না। ঘোষণাটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কি না, সেটিও ভাবার বিষয়। আমি আশা করছি শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকব।’

বগুড়া-১ আসনের এমপি সাহাদারা মান্নানের ছোট ভাই ও সোনাতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মিনহাদুজ্জামান লিটন উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন। লিটন বলেন, ‘এমপির স্বজন ভোটে দাঁড়াতে পারবেন না—এমন নির্দেশনা এখনো পাইনি। এমপি আমার বোন হতে পারে, আমি আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে ভোট করছি। এমপি বোনের পরিচয়ে নয়। এজন্য সরে দাঁড়াব না।’

নাটোরের সিংড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের শ্যালক চেয়ারম্যান প্রার্থী লুৎফুল হাবিবের বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষ প্রার্থীকে অপহরণ ও নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। প্রতিমন্ত্রী আহত চেয়ারম্যান প্রার্থীকে দেখতে গিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে বিচারের আশ্বাস দিয়েছেন। নিজের আত্মীয় হলেও ছাড় দেওয়া হবে না বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

‘এখনো কিছু জায়গায় প্রার্থী অনড় রয়েছেন, তা শিগগিরই প্রত্যাহারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি’ মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন কালবেলাকে বলেন, ‘শ্যালকের বিরুদ্ধে অভিযোগকে অনাকাঙ্ক্ষিত বলে দলের সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়ার কথা জুনাইদ আহমেদ পলক আমাকে জানিয়েছেন। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের ঘোষণাও দিয়েছেন প্রার্থী।’

পাঠকের মতামত