প্রকাশিত: ০৫/১০/২০১৬ ৭:১৪ এএম

aminul-e1475611481428-238x300নিউজ ডেস্ক::

আমিনুল হক (১৭)। উখিয়া কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র। বাবা মারা গেছে অনেক আগে। তার মা জাহানারা বেগম হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে কোন মতে ছেলেকে শিক্ষিত করেছে। তার পেছনে অনেক স্বপ্ন নিয়ে সেই ছেলেই আজ ২ মাস ধরে গুম। বেঁচে আছে নাকি মারা গেছে তাও জানেনা। তার চোখের পানি যেন শুকাতে চায়না। ছেলেকে ফিরে পাওয়ার আশায় পথে পথে ঘুরতে গিয়ে পাগল হওয়ার পথে মা। তবুও তার পাশে দাঁড়াবার যেন কেউ নেই।
৪ অক্টোবর একমাত্র ছেলের ছবি বুকে নিয়ে কক্সবাজার কোর্ট বিল্ডিং চত্তরে কান্নারত অবস্থায় দেখে জানতে চাইলে বুক ফাটা কান্না নিয়ে উখিয়া উপজেলায় হলদিয়া পালং ইউনিয়নের ধুরমখালী নতুন পাড়া গ্রামের জাহানারা বেগম বলেন, আমার স্বামী মারা গেছে অনেক দিন আগে। এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে অনেক মানুষের বাড়িতে কাজ করে বিলে খালে হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে ছেলেকে উচ্চ শিক্ষিত করতে স্বপ্ন দেখেছি। আমার ছেলে বর্তমানে উখিয়া কলেজে ২য় বর্ষের ছাত্র। ২ মাস আগে জালিয়াপালং ইউনিয়নের মোহাম্মদ শফিরবিল এলাকার   নুরুল আলমের মেয়ে আয়েশা আক্তার  আমার ছেলেকে মোবাইল ফোনে ভুল নাম্বারে কথা বলে পরে তারা কয়েক দিন কথা বার্তা বলে। পরে চলতি বছরের ১১ আগস্ট কলেজ থেকে ছেলেকে ফোনে মেয়ের সাথে দেখা করার কথা বলে জালিয়া পালং নিয়ে যায়। সে থেকে আমার ছেলে নিখোঁজ। আজ ২ মাস হলো আমার ছেলের কোন সন্ধান পাচ্ছি না। পরে আমি জানতে পেরেছি মেয়েটি এর আগেও এ রকম প্রতারনা করে অনেকের জীবন নষ্ট করেছে। তার উপর তার বয়স ২৫, আমার ছেলের বয়স ১৭। তবুও আমি ছেলেকে ফিরে পাওয়ার আশায় সবকিছু মেনে নিতে রাজি। তারা আমার ছেলেকে আজ কাল বলে ২ মাস ধরে ফেরত দিচ্ছে না। সে কি বেঁচে আছে নাকি মারা গেছে তাও জানি না। এলাকার অনেকে বলছে মেয়েটির ভাই লুতু মিয়া, নুরুল আলম নিজে এবং সাহাব উদ্দিন নামের এক ছেলে তাকে ঘটনার দিন সিএনজি থেকে মারধর করে নামাচ্ছিল বলে দেখেছেন। তারা বলছে, তাকে হত্যা করে লাশ গুম করা হয়েছে। পরে আমি থানায় মামলা করতে গেলে স্থানিয় চেয়ারম্যান নুরুল আমিন বিচার করে দেবে এবং ছেলেকে ফেরত দেবে বলে মামলা করতে দেয় নি। উল্টো আমার কাছ থেকে ৬ টি স্টাম্পে স্বাক্ষর নিয়েছেন। তবুও আমি ছেলেকে ফেরত চাই। আমি শুধু দেখতে চাই আমার ছেলে বেঁচে আছে সেটাই আমার সান্তনা। বর্তমানে মেয়েটি তার বাড়িতে আছে শুধু আমার ছেলেটি ২ মাস ধরে আমার বুকে নাই। এই কথার বলেই কান্না করতে গিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এবং তার ছেলেকে উদ্ধারে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছে এই হতভাগী মা।c দৈনিক কক্সবাজার

পাঠকের মতামত