প্রকাশিত: ১৯/১০/২০১৬ ১২:৫০ পিএম
aw1hz2utmju1mi5qcgcপীরগঞ্জ প্রতিনিধি
ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে দরিদ্র মানুষের মাঝে স্বল্পমূল্যে ১০ টাকা কেজিতে চাল বিক্রির তালিকা তৈরিতে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে ব্যবস্থা নিয়েছেন পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এবিএম ইফতেখারুল ইসলাম খন্দকার।

লিখিত বা মৌখিক অভিযোগের সাথে সাথে ব্যবস্থা নেয়ায় স্থানীয়রা এবিএম ইফতেখারুল ইসলাম খন্দকারকে ‘অ্যাকশন ইউএনও’ (উপজেলা নির্বাহী অফিসার) হিসেবে অভিহিত করেছেন।

চন্ডিপুর গ্রামের এক দরিদ্র ব্যক্তি বলেন, ‘খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির’ আওতায় ১০ টাকা কেজিতে চাল বিক্রির জন্য তালিকা তৈরিতে আমার নাম বাদ দিয়ে আমার এলাকার এক ধনী ব্যক্তির নাম ছিল। পরে আমি উপজেলায় এসে ইউএনও স্যারকে বিষয়টি জানাই। সাথে সাথেই ইউএনও স্যার ব্যবস্থা নেন এবং আমি তালিকাভুক্ত হই।

স্থানীয়রা জানান, ইউএনও স্যারকে অভিযোগ করার পরই তিনি ব্যবস্থা নিচ্ছেন। স্যারের মতো অ্যাকশন নিয়ে যদি বাকিরা কাজ করতো, তাহলে আমরা সমাজে যারা বিভিন্নভাবে সরকারি সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হই তারা বেঁচে যেতাম। আমাদের পীরগঞ্জের ইউএনও স্যার আমাদের কাছে এখন শুধু একজন ইউএনও নন; তিনি হলেন ‘অ্যাকশন ইউএনও’। অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে তথ্য যাচাই করে ব্যবস্থা নিচ্ছেন আমাদের ‘এ্যাকশন ইউএনও’।

ইউএনও বলেন, ১০টাকা কেজিতে চাল বিতরণে যাতে কোনো রকম অনিয়ম না হয় সে বিষয়ে সজাগ আছি। অভিযোগ পেলেই ব্যবস্থা নিচ্ছি। পীরগঞ্জ উপজেলার কোনো গ্রামের হতদরিদ্র মানুষকে বাদ দিয়ে যদি স্বচ্ছল ব্যক্তিকে ১০ টাকা কেজিতে চাল দেয়া হয় তাহলে বিষয়টি আমাকে জানান, আমি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। তবে মিথ্যা অভিযোগ করা যাবে না। অভিযোগের সত্যতা থাকতে হবে।

পাঠকের মতামত

‘বাংলাদেশ-মিয়ানমার রাজি থাকা সত্ত্বেও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন না হওয়ার কারণ খুঁজতে হবে’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ...