প্রকাশিত: ৩১/০৫/২০১৬ ৩:২৫ পিএম
ফাইল ছবি
 ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

মুহাম্মদ হোসাইন :
এবার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা দুপুরের খাবার নিজেরদের দেয়া চাল-ডাল দিয়ে স্কুলেই রান্না করে খাবে। তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীরা “মিড ডে মিল” অর্থাৎ দুপুরের খাবার কর্মসূচির আওতায় আসবে। প্রত্যেক ছাত্র-ছাত্রীর অভিভাবক এক মাসের জন্য ৪ কেজি চাউল ও ৫০০ গ্রাম ডাল দিবে। তা দিয়ে দুপুরে স্কুল কর্তৃৃপক্ষ খিচুড়ী রান্না করে প্রতিদিন খাবার পরিবেশন করবেন।
এই কর্মসূচি রেসরকারীভাবে ১ মে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আলী হোসেন আনুষ্ঠানিকভাবে সোনারপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে উদ্বোধন করবেন।
এই উদ্যোগ বাংলাদেশে দ্বিতীয় পর্যায়ে কক্সবাজার জেলায় সফলভাবে পরিচালনার জন্য ২৯শে মে সকাল ১০ টায় সোনারপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের হল রুমে অভিভাবক সম্মেলনের আয়োজন করেন সোনারপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ ও কক্সবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এ.বি এম সিদ্দিকুর রহমান।
“মিড ডে মিল” কর্মসূচির অভিভাবক সম্মেলনে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বলেন, এই উদ্যোগ আপনাদের ছেলে মেয়েদের পড়ালেখায় বিশেষ অবদান রাখবে। কারণ যে সকল ছাত্র স্কুলে আসতে অবহেলা করে তারাও নতুন করে শিক্ষার প্রতি উৎসুক হয়ে উঠবে। বিশেষকরে দুপুরে টিপিনের সময় ছাত্র-ছাত্রীরা নাস্তাকরে শ্রেণী কক্ষে চলে আসে। আর এতে ছাত্রদের জন্য শরীরের ক্ষেত্রে ক্ষতিকর। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এসব বিবেচনা করে আমাদের “মিড ডে মিল” কর্মসূচি চালু করার নির্দেশ দিয়েছেন। যেন এই শিশুরা দুপুরে স্কুলে খাওয়া দাওয়া করে আবার শ্রেণী কক্ষে ফিরতে পারে।
তিনি আরো বলেন, এই কর্মসুচি বাংলাদেশে সর্বপ্রথম ২০১১ সালে পরিক্ষামূলকভাবে শুরু করা হয় পঞ্চগড়ে। যা খুব সুন্দরভাবে এখনো পর্যন্ত চলমান রয়েছে। তাই আমরা কক্সবাজারে ৩ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই কর্মসূচি চালু করব সিদ্ধান্ত নিয়েছি। উখিযার সোনারপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়,সদরের মোক্তারকুল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও রামুর পেঁচারদ্বীপ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে সব স্কুলে চালু করা হব। রান্না করার সামগ্রী আমরা জেলা প্রশাসক থেকে সংগ্রহ করব। সেখানে যারা গরীব ছেলে মেয়ে রয়েছে তারা যদি চাউল-ডল দিতে না পারে আমরা তাদের খাবারের ব্যবস্থা করব। যদি এলাকার সমাজ সেবক, সাবেক স্কুল ছাত্র, জনপ্রতিনিধিরা সহযোগিতা করে তাহলে এই মহান উদ্যোগ খুব ভালভাবে সম্পাদন হবে।

এমনকি কেউ চাইলে স্ব-উদ্যোগে বিশেষ অনুদান দিতে পারবে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, সোনারপাড়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ কাসেম। অনান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সাংবাদিক মুহাম্মদ হোসাইন, মাওলানা আবছার উদ্দিন, আবুল ফজল বাবুল। বিশেষ কওে এ উদ্যোগে স্বাগত জানিয়ে মাওলানা আবছার উদ্দিন প্রতি মাসে এক বস্তা চাউল দিবে অঙ্গিকার করেন।

পাঠকের মতামত

যেভাবে ভুয়া জন্মসনদ এনআইডি ও পাসপোর্ট পাচ্ছে রোহিঙ্গা ও দাগি আসামিরা

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের সাদিয়া সুলতানা সাথি। পেশায় গৃহিণী। বিদেশ যাওয়ার কোনো স্বপ্ন নেই। নেই পাসপোর্টও। গৃহিণী ...

রাঙ্গামাটিতে স্পিডবোটে সন্তান প্রসব, ১০ হাজার টাকা পুরস্কার ও আজীবন যাতায়াত ফ্রি

গত রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) কাপ্তাই হ্রদে স্পিডবোটে এক শিশুর জন্ম হয়েছে। এঘটনায় ওই মা-শিশুর আজীবন ...