প্রকাশিত: ২৬/০৭/২০২২ ৯:০৬ এএম
ফাইল ছবি

জসিম উদ্দিন, কক্সবাজার ::

ফাইল ছবি

বিদ্যুৎ সাশ্রয় করতে সারাদেশে এলাকাভিক্তিত লোডশেডিং চলছে। অথচ কক্সবাজার জেলায় ২৮ লাখ মানুষ ও কলকারখানার জন্য সরবরাহকৃত বিদ্যুতের প্রায় অর্ধেকই গিলে খাচ্ছে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক (টমটম)।

কক্সবাজারে প্রতিদিন গড়ে ১৫০ থেকে ১৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ চাহিদা রয়েছে। তার মধ্যে প্রতিদিন ৬০ মেগাওয়াটের বেশি বিদ্যুৎ যাচ্ছে ইজিবাইকের (টমটম) ব্যাটারি চার্জে।

ফলে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকের কারণে সীমাহীন যানজট ও বিশৃঙ্খলার পাশাপাশি অতিরিক্ত লোডশেডিংয়ের কবলে পড়তে হচ্ছে জেলাবাসীকে। তবে কক্সবাজার বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ থেকে বলা হয়েছে ইজি বাইকের চার্জে নয়, বরং বিদ্যুৎ সরবরাহে ঘাটতি হওয়ায় লোডশেডিং সমস্যা হচ্ছে।

কক্সবাজার বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, শুধু কক্সবাজার পৌরসভায় ৫৫ হাজার গ্রাহকের জন্য বিদ্যুতের চাহিদা রয়েছে ৪০ মেগাওয়াট।

বর্তমানে প্রতিদিন ৩২-৩৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ গ্রাহকের মাঝে সরবরাহ করা হচ্ছে। আর পল্লী বিদ্যুৎ সমবায় সমিতির আওতায় জেলায় গড়ে প্রতিদিন ১১০ থেকে ১২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ চাহিদা রয়েছে। কিন্তু সরবরাহ করা হচ্ছে ৯০ থেকে ৯৫ মেগাওয়াট। এত সংকটের পরও কক্সবাজার জেলায় সহস্রাধিক টমটম গ্যারেজে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে।

যেখানে শুধু কক্সবাজার পৌরসভা ও আশপাশে দুই শতাধিক গ্যারেজে প্রতিদিন ১৫ হাজারের বেশি টমটম চার্জ দেওয়া হয়। এছাড়া অন্যান্য পৌরসভা এবং আট উপজেলা মিলে আরও প্রায় ২০ হাজারের বেশি টমটমে চার্জ দেওয়া হয়।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কক্সবাজার পৌরসভা ও উপজেলায় বৈধ অবৈধ মিলে প্রায় ১৫ হাজার, টেকনাফ উপজেলায় ৫ হাজার, চকরিয়ায় ৪ হাজার, উখিয়া উপজেলায় ৩ হাজার, মহেশখালী উপজেলায় ৩ হাজার, পেকুয়া উপজেলায় ৪ হাজারসহ আট উপজেলা মিলে প্রায় ৪০ হাজার ইজিবাইক (টমটম) চালু রয়েছে। প্রতিটি টমটমে চার থেকে পাঁচটি ১২ বোল্ড ব্যাটারি রয়েছে। সেই হিসাবে দুই লাখ ব্যটারির জন্য প্রতিদিন বৈদ্যুতিক চার্জ দিতে হয়।

কক্সবাজার জেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কার্যালয়ের তথ্যমতে- গড়ে প্রতিটি গাড়িতে ১.৫০ কিলোওয়াট বিদ্যুৎ খরচ হয়। এ হিসেবে প্রতিদিন শুধু টমটমে (ইজিবাইক) চার্জ দিতে প্রয়োজন পড়ছে প্রায় ৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, শহরের প্রবেশদ্বার লিংকরোড থেকে শুরু করে বাসটার্মিনাল, আলিরজাহাল, সিটি কলেজ এলাকা, এসএমপাড়া, টেকপাড়া, পেশকারপাড়া, কালুরদোকান, পাহাড়তলী, বৈদ্যঘোনা, ঘোনারপাড়া, কলাতলি, সমিতিপাড়া, বাহারছড়া, গাড়ির মাঠ, নুনিয়ারছড়া, মোহাজের পাড়া, খুরুশকুলসহ বিভিন্ন স্থানে প্রায় ৪ শতাধিক গ্যারেজে প্রায় ১৫ হাজার টমটমে (ইজিবাইক) চার্জ দেওয়া হয়।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, একদিকে যেমন অপর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহে রয়েছে তেমনি অন্যদিকে বিপুল পরিমাণ বিদ্যুৎ টমটম চার্জে চলে যাচ্ছে। ফলে লোডশেডিং এর মাত্রা বেড়েই চলছে। এ যেন মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা।

উখিয়া নিউজ ডটকমের   সর্বশেষ খবর পেতে Google News অনুসরণ করুন

টমটম চালকরা জানিয়েছেন, গ্যারেজ মালিককে প্রতিদিন একটি টমটমে ২২০ টাকা চার্জের বিল দিতে হয়।

শ্রমিক নেতা রুহুল কাদের মানিক বলেন, কাগজে-কলমে পৌরসভায় ৩ হাজার টমটম চললেও বাস্তবে সাত হাজারের বেশি টমটম চলছে। শহর ও শহরতলীর আশাপাশে ২১৭টির মতো গ্যারেজ দৈনিক প্রতিটি গাড়িতে ২২০ টাকা চার্জ বিল দিতে হয়।

সম্প্রতি শহরে অতিরিক্ত লোডশেডিং এর বিষয় নিয়ে জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির এক সভায় ব্যাপক আলোচনা হয়। এ সময় টমটম গ্যারেজের বিদ্যুৎ সংযোগ বাতিলের দাবি তুলেছেন অনেকে।

অপরদিকে কক্সবাজার পৌরসভার আশপাশে তিন শতাধিক টমটম গ্যারেজে সংযোগ দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছে কক্সবাজার বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ।

কক্সবাজার বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের প্রকৌশলী মো. আবদুল কাদের গনি বলেন, শুধু দেশে নয়, বিশ্বে বিদ্যুৎ সমস্যা চলছে। এছাড়া বিদ্যুৎ উৎপাদন কমে আসায় লোডশেডিং একটু বেড়েছে।

তিনি বলেন, পৌরসভায় অনুমোদিত টমটমের লাইসেন্স বাতিল করলে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করা হবে। তবে আমরা গ্যারেজে ফ্রি-পেইড বিলের মিটার সংযোগ দিয়েছি। ফলে অবৈধ সংযোগ নেই।

কক্সবাজার জেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, কক্সবাজারে আট উপজেলা দুটি পৌরসভায় ১২০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদা রয়েছে। সেখানে সরবরাহ পেয়ে থাকি ৯০ থেকে ৯৫ মেগাওয়াট। আবহাওয়া গরম হলে ২০ থেকে ২২ মেগাওয়াট লোডশেডিং হয়।

কক্সবাজার জেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি জিএম মোহাম্মদ আক্তার উজ জামান লস্কর বলেন, জেলায় পল্লী বিদ্যুতের আওতায় সাত থেকে আটশো গ্যারেজ রয়েছে। টমটমে ৫ টি ১২ ভোল্টের ব্যাটারিতে প্রতিদিন দেড় কিলোওয়াট বিদ্যুৎ খরচ হয়। গ্যারেজের জন্য আলাদা ট্রান্সফরমার দেয়া হয়েছে। তবে গ্রাহকের মোট চাহিদা থেকে তাদের বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়।

তিনি বলেন, সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ এর চাহিদা বেশি রয়েছে। এ কারণে ইজিবাইক গ্যারেজগুলোকে এ সময়ের মধ্যে যেন কোনো ইজিবাইক চার্জ দেওয়া না হয় এজন্য সতর্ক করা হয়েছে। যদি এ সময়ের মধ্যে কেউ ইজিবাইকের ব্যাটারি চার্জ করে তাহলে তাদের বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন করা হবে। পাশাপাশি বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার জন্য জেলার মসজিদগুলোতে প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

রাস্তার উন্নয়নের কাজ শেষ হয়ে গেলে কক্সবাজার পৌরসভার ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক (টমটম) খুব দ্রুত বন্ধ করা হবে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার পৌর মেয়র মুজিবর রহমান।

এ বিষয়ে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশিদ বলেন, ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক দূরত্ব নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য খুব শীঘ্রই জেলা প্রশাসন থেকে উদ্যোগ নেওয়া হবে। ইতোমধ্যে নতুন করে ইজিবাইক নির্মাণ গ্যারেজগুলো বন্ধ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

তবে সচেতন মহল বলছেন, ইজিবাইক (টমটম) দিয়ে প্রায় লাখের বেশি পরিবারের সংসার চলে। তাই এসব নিষিদ্ধ না করে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকগুলোকে সৌর বিদ্যুৎ ব্যবহারের উপযোগী হিসেবে করা গেলে বিদ্যুৎ সমস্যার স্থায়ী সমাধন করা করা যাবে। সুত্র: যুগান্তর

পাঠকের মতামত

নাইক্ষ্যংছির দোছড়ি সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে পা উড়ে গেল ‍কৃষকের

এবার বান্দরবানের দোছড়ি ইউনিয়নের ছেড়াকুম এলাকায় বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে আব্দুল কাদের নামে এক ব্যক্তির ...

তুমব্রু সীমান্তে ফের গুলির শব্দ

দশদিন বন্ধ থাকার আবারও বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম-তুমব্রু সীমান্তে গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ...