প্রকাশিত: ২২/১০/২০১৬ ৭:২৪ এএম

destinyমঈনুল হাসান পলাশ:
খুব সহসাই ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেডের সুদিন ফিরে আসবে। সকল বিনিয়োগকারীই তাদের বিনিয়োগ ফেরত পাবেন। শুধু তাই নয়, আরো নতুন নতুন বিনিয়োগের ক্ষেত্র তৈরী করতে যাচ্ছে ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেড।ডেসটিনির বিনিয়োগকারীদের জন্য এমনই সুখবর দেয়া হলো কক্সবাজারের বিনিয়োগকারী ও ক্রেতা পরিবেশক সমাবেশে।

শুক্রবার বিকেলে কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেডের নির্মাণাধীন চার তারকা মানের ডেসটিনি ক্রাউন প্যাসিফিক হোটেল দ্রুত চালু করা ও এমডি রফিকুল আমিনসহ গ্রেপ্তারকৃত সকল কর্মকর্তার মুক্তির দাবীতে ক্রেতা পরিবেশক সমাবেশে কোম্পানীর উর্ধ্বতন ব্যক্তিবর্গ এই সুখবর জানিয়েছেন। এতে তাৎক্ষণিকভাবে উপস্থিতি বিনিয়োগকারীদের মাঝে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়।

উক্ত সমাবেশে প্রধান অতিথি বৈশাখী টিভির ডিএমডি টিপু আলম জানান, আল্লাহর রহমতে আগামী মাসেই জামিনে মুক্তি পেতে যাচ্ছেন ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেডের এমডি রফিকুল আমিন ও চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসাইন।

তিনি বলেন, দেশে বর্তমানে ডেসটিনির সাড়ে ৭ হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ সম্পদ রয়েছে। জনাব টিপু আলম বলেন,অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে ডেসটিনিকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার জন্য। কিন্তু, কেউ সফল হয় নি। ভবিষ্যতেও হবে না। রফিকুল আমিন বিনিয়োগকারীদের সকল অর্থ ফেরত দেয়ার ঘোষণা করেছেন। তিনি মুক্তি পাবার পরে সকলের বিনিয়োগ ফেরত দেবেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডেসটিনি গ্রুপের পরিচালক (অপারেশন) সিরাজাম মুনির বলেন, ডেসটিনি মাদকাসক্ত যুবকদের সুপথে ফিরিয়ে কর্মক্ষণ যুবকে পরিণত করেছিলো। বর্তমান সরকারের ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নে সহযোগী হিসেবে ৪৫ লাখ মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছিলো।

তিনি প্রশ্ন রাখেন, এ্টাই কি ডেসটিনির অপরাধ? ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেডের এমডি রফিকুল আমিনের রবাত দিয়ে তিনি জানান, ডেসটিনিকে আপন গতিতে চলতে দিলে ডেসটিনিই সরকারকে দেশের মোট রাজস্ব আয়ের সমপরিমাণ কর প্রদান করতে সক্ষম হতো।

বৈশাখী টিভির জিএম সরদার আব্দুর রউপ বলেন, রফিকুল আমিন চাইলে দেশ ছেড়ে চলে যেতে পারতেন। কিন্তু তিনি ৪৫ লাখ বিনিয়োগকারীর কাছে ওয়াদাবদ্ধ। তাই দেশ ছেড়ে না গিয়ে তিনি জেলখানাকে বেছে নিয়েছেন। দীর্ঘ চার বছর তিনি কারা অন্তরালে দূবির্ষহ জীবন যাপন করছেন।

তিনি উল্লেখ করেন, এক শ্রেণীর হলুদ সাংবাদিক অপপ্রচার করেছিলো, রফিকুল আমিন ও মোহাম্মদ হোসাইনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিলো। আপনারা সবাই স্বাক্ষী, আমাদের এমডি আমিন ভাই স্বেচ্ছায় আদালতে আত্মসমর্পণ করেছিলেন। তাকে কেউ গ্রেপ্তার করে নি।

ডেসটিনির সহস্রাধিক ক্রেতা পরিবেশকের উপস্থিতিতে হাফেজ আবছার কামালের কোরান তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়ায় সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ডেসটিনির কক্সবাজার জেলা সম্পদ রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক মোহাম্মদ তারেক রানা।

উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন ডিটুকে পিএসডি মহিউদ্দিন আযাদ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, আবদুর রহিম।

বক্তব্য রাখেন, ডেসটিনি ঐক্য ফোরামের প্রধান নির্বাহী মোঃ আবুল হাসান, উপ-প্রধান নির্বাহী মোঃ সেলিম আশরাফ, বিল্ড ডেসটিনি ফোরামের প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম আকরাম, ডিএসএমএফ চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়কারী সাখাওয়াত হোসেন মামুন, সদস্য এম এম আফসার, ডিটুকে গো ডায়মন্ড এসোসিয়েটস সেক্রেটারী সাইফুল ইসলাম অর্থ সম্পাদক শাহজালাল আনসারী, ডিএসএমএফ ব্লু এর উপ প্রধান নির্বাহী এন্ড দৈনিক ডেসটিনি কো-অর্ডিনেটর মোঃ মোশাররফ হোসেন, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়কারী মিল্লাতুর রহমান চৌধুরী, উপ-প্রধান নির্বাহী ও দৈনিক ডেসটিনির স্টাফ রিপোর্টার মোঃআবুল কাশেম, দৈনিক ডেসটিনির কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি অধ্যাপক মঈনুল হাসান পলাশ প্রমূখ।

পাঠকের মতামত

ডেসটিনির পরিচালনা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার প্রশান্ত

হাইকোর্টের নির্দেশে ডেসটিনি-২০০০ এর পরিচালনা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান হয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার প্রশান্ত ভূষণ ...

বান্দরবানে কেএনএফের আস্তানায় যৌথ বাহিনীর অভিযান, নিহত ৩

বান্দরবানের রুমা উপজেলার রনিন পাড়ার কাছে ডেবাছড়া এলাকায় কেএনএফের একটি আস্তানায় সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে যৌথ বাহিনীর ...