প্রকাশিত: ০৭/০৯/২০১৬ ৮:১১ এএম

Pic Ukhiya 06-09-2016ফারুক আহমদ, উখিয়া::

কৃষি চাষাবাদ ও ফলন উৎপাদনে ডিজিটালের ছোঁয়া লেগেছে। নতুন নতুন উদ্ভাদিত প্রযুক্তি ও কৃষি যন্ত্র গ্রামেগঞ্জে সহজ ভাবে ব্যবহার করে অধিক ফলন উৎপাদনের পাশা-পাশি সময় অপচয় ও অর্থের সাশ্রয় হচ্ছে কৃষকদের। ধানের চারা রোপনে সর্বশেষ আবিস্কৃত প্রযুক্তি রাইচ ট্রান্স প্লান্টার যন্ত্র কৃষকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া পড়েছে। বলতে গেলে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষিতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে এমনটা মনে করছেন সংশ্লিষ্ট কৃষিবিদগণ।

কক্সবাজার কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক আ হ ম শাহরিয়ার বলেন, যুগের পরিবর্তনের সাথে সাথে কৃষি ক্ষেত্রেও ব্যাপক বিল্পব এসেছে। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃষকরা এখন চাষাবাদ করছে। মান্দাতা আমলের গরুর সাহায্যে নাঙ্গল দিয়ে জমি চাষের পরিবর্তে এখন ডিজিটাল যুগের কারণে পাওয়ার টিলার দিয়ে জমির চাষ করা হচ্ছে। পাকা ধান বা শষ্য কর্তন করা হচ্ছে রাইচ রিপার বা দান কাটা যন্ত্র দিয়ে। ধান মাড়াই করা হয় পাওয়ার থ্রেসার প্রযুক্তি বা মাড়াইকলের সাহায্যে। এছাড়াও রয়েছে আগাছা পরিস্কারের জন্য নিড়ানি, পোকামাকড় দমনের জন্য ন্যাপসেক স্প্রেয়ার ও ফুট স্প্রে মেশিন সহ নানা প্রযুক্তি।

এদিকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে গতকাল মঙ্গলবার উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের মধ্যম রাজাপালং গ্রামে রাইচ ট্রান্স প্লান্টার যন্ত্রের প্রদর্শনী ও মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

খামার যান্ত্রিক করনের মাধ্যমে ফলন উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প (২য় পর্যায়) কর্মসূচীর আওতায় উখিয়া কৃষি বিভাগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, কক্সবাজার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আ হ ম শাহরিয়ার। সোনারপাড়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা ফরিদ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগতম বক্তব্য রাখেন, উপজেলা কৃষি অফিসার মো: শরিফুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উখিয়া সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি ফারুক আহমদ। বক্তব্য রাখেন, উখিয়া কৃষি বিভাগের উপ-সহকারী কর্মকর্তা (উন্নয়ন) এস.এম শাহজাহান, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা যথাক্রমে একে,এম বদিউল আলম, মোস্তাক আহমদ, মোহাম্মদ রায়হান, নিউটন চৌধুরী, মোহাম্মদ শাহজাহান ও কৃষক মাঠ স্কুলের ফ্যাসিলেটর ফিরোজ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আবু তাহের।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উপ-পরিচালক আ হ ম শাহরিয়া বলেন, তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার ও আধুনিক পদ্ধতিতে চাষ করায় বাংলাদেশ খাদ্য শষ্য উৎপাদনে বিশ্বের তৃতীয় স্থানে রয়েছে। বলতে গেলে কৃষি ক্ষেত্রে নিরব বিল্পব সৃষ্টি হয়েছে। কৃষকরা সচেতন হওয়ায় ও তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করায় খাদ্য সংকট মোকাবেলা করে বর্তমানে খাদ্য সয়ং সম্পূর্ণ অর্জন করা হয়। তিনি আরো বলেন, কৃষি ক্ষেত্রে প্রযুক্তির ব্যবহার ও ক্রয়ের ক্ষেত্রে কৃষকদের কে বর্তমান সরকার ৩০% ভাগ অর্থ যোগান দেওয়া হচ্ছে।

পরে রাইচ ট্রান্স প্লান্টার বা যন্ত্রের সাহায্যে জমিতে ধানের চারা রোপনের উপর প্রদর্শনী করা হয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উখিয়া উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ শরিফুল ইসলাম বলেন, রাইচ ট্রান্স প্লান্টার যন্ত্রের সাহায্যে ধানের চারা রোপন করলে অধিক ফলন উৎপাদন সম্ভব। এছাড়াও কৃষকদের সময় অপচয়ের পাশা-পাশি অর্থের সাশ্রয় হবে।

পাঠকের মতামত

ডেসটিনির পরিচালনা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার প্রশান্ত

হাইকোর্টের নির্দেশে ডেসটিনি-২০০০ এর পরিচালনা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান হয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার প্রশান্ত ভূষণ ...

বান্দরবানে কেএনএফের আস্তানায় যৌথ বাহিনীর অভিযান, নিহত ৩

বান্দরবানের রুমা উপজেলার রনিন পাড়ার কাছে ডেবাছড়া এলাকায় কেএনএফের একটি আস্তানায় সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে যৌথ বাহিনীর ...