প্রকাশিত: ১৫/১০/২০১৭ ৭:২২ এএম , আপডেট: ১৭/০৮/২০১৮ ১২:১৫ পিএম

শফিক আজাদ,উখিয়া নিউজ ডটকম::
মিয়ানমার থেকে নির্যাতনের মুখে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা নাগরিকদের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন কার্যক্রমে গতি হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে গড়ে ১১-১২ হাজার করে নিবন্ধিত হচ্ছেন। অথচ এই নিবন্ধন প্রথম দিন ১১ সেপ্টেম্বর মাত্র ১২জন নিবন্ধিত হয়েছিল। আজ শনিবার এক দিনেই নিবন্ধন হয়েছে ১২ হাজার একশ ১১১ জন রোহিঙ্গার। এই পর্যন্ত এক লাখ ৬১ হাজার ৯ শ ৩৭ জনের নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে। উখিয়া ও টেকনাফের ৬ টি নিবন্ধন কেন্দ্রে এ নিবন্ধন কার্যক্রম চলছে। পাসপোর্ট এন্ড ইমিগ্রেশন অধিদফতর এ নিবন্ধন কাজ বাস্তবায়ন করছে।

এদিকে কুতুপালং ১নং ক্যাম্পে শনিবার পর্যন্ত ১৫৪৯ পুরুষ, ১৫২৭ জন নারী মিলে ৩ হাজার ০৭৬ জন, কুতুপালং ২নং ক্যাম্পে ৮২০পুরুষ,৮২০নারী মিলে ১৬৪০জন, নোয়াপাড়া ক্যাম্পে ৫৮৮ জন পুরুষ, ৯০৩ জন নারী মিলে ১৪৯১ জন, থাইংখালী ক্যাম্পে ১ হাজার ৬২৬ জন পুরুষ, ৫১০ জন নারী মিলে ২ হাজার ২১৩০ জন, বালুখালী ক্যাম্পে ১ হাজার ৬২৬ জন পুরুষ, ৫১০ জন নারী মিলে ২ হাজার ১ শত ৩৬ জন, লেদা ক্যাম্পে ৮৮২ জন পুরুষ, ৮৯৬জন নারী মিলে ১ হাজার ৭৭৮ জন এবং পুরোদিনে ৫টি কেন্দ্রে মোট ১২ হাজার ১১১ জনের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা হয়েছে বলে পাসপোর্ট এন্ড ইমিগ্রেশনের উপ-পরিচালক আবু নোমান মোহাম্মদ জাগির আজ সন্ধ্যায় এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, ্‘আগের তুলনায় নিবন্ধন কেন্দ্রে ভীড় অনেক বেড়েছে। প্রথমদিকে নিবন্ধনের আগ্রহ খুব বেশি দেখা না গেলেও এখন প্রচুর রোহিঙ্গা নিবন্ধনের জন্য আসছেন। নিবন্ধন কর্মীদের দিনভর ছবি তুলে ও তাদের নাম-ঠিকানা লিপিবদ্ধ করতে হিমসিম খেতে হচ্ছে।

এ প্রতিবেদক বেলা দুইটার দিকে কুতুপালং ক্যাম্পে নিবন্ধন কেন্দ্রে গিয়ে দীর্ঘ লাইন দেখতে পায়। সেনাবাহিনীর প্রায় ৫০ জন কর্মী রোহিঙ্গাদের ছবি তুলছেন, তাদের নাম-ঠিকানা লিপিবদ্ধ করছেন এবং একইসাথে তাদেরকে একটি করে ছবি সম্বলিত নিবন্ধন কার্ড ধরিয়ে দিচ্ছেন।

পাঠকের মতামত

নিজের সম্মানির টাকা মেধাবী শিক্ষার্থীকে দিলেন নাইক্ষ্যংছড়ির ইউএনও

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকারিয়া নিজের প্রাপ্ত সম্মানির টাকা আর্থিক অনুদান হিসেবে প্রদান করলেন ...