উখিয়া নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩/০৯/২০২২ ৫:২৬ পিএম , আপডেট: ০৩/০৯/২০২২ ৬:২২ পিএম
ফাইল ছবি

মিয়ানমারের যুদ্ধবিমান থেকে ছোড়া দুটি গোলা শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) এসে পড়েছে বাংলাদেশের বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম এলাকায়। এই ঘটনায় সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ঘটনার পরপরই সীমান্তে পুলিশের টহল ও নিরাপত্তা জোরদার করা হ‌য়ে‌ছে। মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কর্মকর্তাদের ডেকে কড়া প্রতিবাদ জানাবে বলে জানিয়েছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) এক কর্মকর্তা।

শনিবার বিকালে বাংলা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য জানিয়েছেন বান্দরবানের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও বিজিবির দায়িত্বশীল একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

বান্দরবান জেলা পু‌লিশ সুপার মো. তা‌রিকুল ইসলাম ব‌লেন, ‘সীমান্তে টহল বাড়ানোর পাশাপা‌শি গো‌য়েন্দা নজরদা‌রিও বৃদ্ধি করা হ‌য়ে‌ছে। গত ১০/১২ দিন ধ‌রে সীমান্ত ঘেঁষা এলাকায় মিয়ানমারের অভ্যন্তরে গোলাগু‌লি হচ্ছে। এই ঘটনায় প্রথমদিকে তমব্রু এলাকার বাংলাদেশ সীমান্তের অংশে থাকা রো‌হিঙ্গা ও স্থানীয়রা আতঙ্কে থাকলেও বর্তমানে তা‌দের আতঙ্ক কিছুটা কেটেছে।’

এদিকে, বিষয়টি নি‌য়ে বি‌জি‌বির সঙ্গে আলোচনা হ‌য়ে‌ছে বলে নিশ্চিত করেছেন বান্দরবান জেলা প্রশাসক ইয়াছ‌মিন পারভীন তিবরী‌জি। তিনি ব‌লেন, ‘গোলা পড়ার ঘটনায় বি‌জি‌বি সর্তক অবস্থানে আছে। এ ছাড়া জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এলাকার চেয়ারম্যান-মেম্বার‌দের সঙ্গেও আলোচনা হ‌য়ে‌ছে। জেলা প্রশাসনসহ সবাই সতর্ক অবস্থানে আছে।’

বিজিবি সদর দফতরের পরিচালক (অপারেশন্স) লে. কর্নেল ফয়জুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আজকেও মিয়ানমার থেকে ছোড়া গোলা বাংলাদেশে অভ্যন্তরে এসে পড়েছে বলে শুনেছি। আমরা তথ্য সংগ্রহ করছি। ঘটনাটি সত্য প্রমাণিত হলে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনীকে ডেকে প্রতিবাদ জানানো হবে। এর আগেও মর্টারশেল উড়ে আসার ঘটনায় আমরা কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছি। সীমান্তের লোকজন যাতে ভয়ে না থাকে সেজন্য বিজিবি কাজ করছে।’

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকাল সাড়ে ৯টার সময় নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমের তুমব্রু সীমান্তের রেজু আমতলী বিজিবি বিওপির আওতাধীন সীমান্ত পিলার ৪০-৪১-এর মাঝামাঝি স্থানে মিয়ানমার সীমান্তের ওপারে সেনাবাহিনীর দুটি যুদ্ধবিমান এবং দুটি ফাইটিং হেলিকপ্টার টহল দেয়। সে সময় তাদের যুদ্ধবিমান থেকে প্রায় ৮-১০টি গোলা ছোড়া হয়। এ ছাড়া হেলিকপ্টার থেকেও আনুমানিক ৩০ থেকে ৩৫টি গুলি করতে দেখা যায়। যুদ্ধবিমান থেকে ছোড়া দুটি গোলা সীমান্ত পিলার ৪০ বরাবর আনুমানিক ১২০ মিটার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে পড়ে।

এর আগে রবিবার (২৮ আগস্ট) বেলা ৩টার দিকে মিয়ানমার থেকে নিক্ষেপ করা দুটি মর্টার শেল অবিস্ফোরিত অবস্থায় ঘুমধুমের তমব্রু উত্তর মসজিদের কাছে পড়ে। সুত্র: বাংলাট্রিবিউন

পাঠকের মতামত

ঘটনাপ্রবাহঃ সীমান্ত

অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিক বন্ধ না হলে ব্যবস্থা: কক্সবাজারে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

অনুমোদনহীন অবৈধ হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো মালিকপক্ষ বন্ধ না করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া ...