প্রকাশিত: ২৮/০১/২০১৭ ৯:৪৭ পিএম

লক্ষীপুর: বিয়ের দাবিতে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দিঘলী ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মজিবুর রহমানের বাড়িতে গিয়ে রক্তাক্ত হলেন প্রেমিকা ফাতেমাতুজ জোহরা নিলু। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

২৫ জানুয়ারী বুধবার সকালে প্রেমিক চেয়ারম্যান শেখ মজিবুর রহমানের বাড়িতে ঘটনাটি ঘটে।

বিচারের দাবিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন প্রেমিকা নিলু ও তার পরিবার। অপরদিকে চেয়ারম্যানের লেলিয়ে দেয়া ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন প্রেমিকা ও তারা পরিবার।

জানা যায়, দিঘলী ইউনিয়নের পশ্চিম দিঘলী গ্রামের পাঠান বাড়ির মৃত শামসুল হক খাঁনের পুত্র শেখ মজিবুর রহমানের সাথে একই ইউনিয়নের পূর্ব দিঘলী গ্রামের নুরুল আমিনের মেয়ে ফাতেমাতুজ জোহরা নিলুর মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ২০০৩ সাল থেকে।

ভালোবাসার সূত্র ধরে দু’জনে অনেক কাছাকাছি আসলেও জীবনটাকে ঘুঁচিয়ে নিয়ে নিলুকে বিয়ে করার আশ্বাস দেয় প্রেমিক শেখ মজিব। পরবর্তীতে স্বেচ্ছাসেবক লীগের জেলা সম্মেলন এবং ইউপি নির্বাচনের দোহাই দিয়ে বিয়ে করতে কালক্ষেপণের আশ্রয় নেয় মজিব।

এ দিকে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে নিলুর পরিবারের কাছ থেকে ২০ লক্ষ টাকা হাওলাত নেন শেখ মজিব। মূলত নিলুর টাকা দিয়েই নির্বাচনী প্রচারণা শেষ করেন শেখ মজিব। ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে জয়লাভের পর মজিব এবার বোল পাল্টে নিলুর সাথে প্রতারণার আশ্রয় নেয়। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে নিজেকে অনেক ক্ষমতাবান মনে করতে শুরু করেন শেখ মজিব।

প্রেমিকা ফাতেমাতুজ জোহরা নিলু ও তার পরিবার জানায়, গত ২৪ জানুয়ারী ঢাকা থেকে বাড়িতে আসেন নিলু। পরদিন (২৫ জানুয়ারী) বুধবার মা ও ভাইদের সাথে পরিচয় করে দেওয়ার কথা বলে নিলুকে তার বাড়িতে ডেকে নেন চেয়ারম্যান মজিব।

ওইদিন সকালে নিলু শেখ মজিবের বাড়িতে গেলে তার ভাই ফারুক নিলুকে দেখেই গালমন্দ শুরু করেন। এ সময় শেখ মজিব বলেন, আমি তাকে খবর দিই নাই। নিলু প্রতিবাদ করলে শেখ মজিব তার বাড়ি ত্যাগ করার জন্য প্রেমিকা নিলুকে নির্দেশ দেয়। এতে নিলু বিয়ের দাবিতে শক্ত অবস্থান নিলে শেখ মজিব নিলুকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেন এবং তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন চালান।

একপর্যায়ে শেখ মজিবের ভাই এলাকায় সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত ফারুক তার হাতে থাকা রড দিয়ে নিলুর মাথায় আঘাত করলে তার মাথা ফেটে যায় এবং সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে নিলুকে সিএনজিযোগে স্থানীয় দিঘলী বাজারে একটি ফার্মেসীতে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয় তার স্বজনরা।

পরে নিলুর শারীরিক অবস্থা খারাপ হতে থাকলে তাকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি ঘটলে নিলুকে নোয়াখালী সরকারি হাসপাতালে রেফার করা হয়। বর্তমানে নিলু নোয়াখালীর ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ দিকে ঘটনার পর থেকে নিলুকে নষ্টা মেয়ে হিসেবে চিহ্নিত করতে বিভিন্ন ধরণের কল্পকাহিনী সাজাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন চেয়ারম্যান শেখ মজিব ও তার লোকজন।

অন্যদিকে ভালোবাসার মানুষের সাথে একের পর এক প্রতারণা ও শেষ পর্যন্ত প্রেমিকা নিলুকে রক্তাক্ত জখম করার ঘটনায় ক্ষোভে ফুসে ওঠেছেন এলাকাবাসী।

পাঠকের মতামত

উখিয়ার বন কর্মকর্তা সাজ্জাদুজ্জামান হত্যা: পালিয়েও শেষ রক্ষা হলোনা ঘাতক বাপ্পীর!

উখিয়া রেঞ্জের দোছড়ি বিট কর্মকর্তা মো. সাজ্জাদুজ্জামান সজলকে সরকারি দায়িত্ব পালনকালে গত ৩১মার্চ রাত আনুমানিক ...

মুখোমুখি সংঘর্ষ থেকে রক্ষা পেল কক্সবাজার এক্সপ্রেস ও পর্যটক এক্সপ্রেস

দুই ট্রেনচালকের সতর্কতায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে কক্সবাজার এক্সপ্রেস ও পর্যটক এক্সপ্রেস। স্টেশনমাস্টার ...

মিয়ানমারে বন্দি ১৪ বাংলাদেশি জেলে, ভিক্ষা করে চলছে মুবিনার সংসার!

কক্সবাজারের টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপের জালিয়াপাড়া। নাফ নদী সংলগ্ন বেড়িবাঁধ এলাকার বাইরে অবস্থিত গ্রামটিতে ...

উখিয়া থেকে অপহৃত স্কুলছাত্রী চট্টগ্রামে উদ্ধার, অপহরণকারী গ্রেপ্তার

কক্সবাজারের উখিয়ায় অপহৃত স্কুলছাত্রীকে চট্টগ্রাম থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়। গত ...