প্রকাশিত: ১৬/০৩/২০১৭ ১১:০৫ পিএম

অাজিজুল হক,শহর প্রতিনিধি:
পূর্ব ঘোষণা মতো শহরের নালা-নর্দমা দখল করে গড়ে তোলা দালানকোঠা ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু করেছে কক্সবাজার পৌরসভা। অাজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মেয়র মাহবুবুর রহমানের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়। অভিযানে প্রথমে ভাঙা হয় বৌদ্ধমন্দির সম্মুখস্থ দিপালী ভবনের একাংশ। এরপর বৌদ্ধমন্দির সড়কের মাহতাবের মালিকানাধীন ভবনের নালায় পড়া কিছু অংশ । পরে দুপুর ১২টা পর্যন্ত নালা দখল গড়ে বহুল আলোচিত আবু সেন্টারের অংশ ভাঙা হচ্ছিল। তবে দিপালী ভবন ও মাহতাবের ভবন কিছুটা ভাঙার পর মালিক পক্ষ নিজেরা ভেঙে নেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। তাদেরকে সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে।
ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরী অভিযানকালে সাংবাদিককের জানান, নালা দখল করে গড়ো তোলা ভবনের প্রথম ক্যাটাগরিতে পড়েছে বৌদ্ধমন্দির সম্মুখস্থ দিপালী ভবন। এই ভবনের যে অংশ নালায় পড়েছে তা ভাঙার মধ্যে দিয়ে উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়। কিছু অংশ ভাঙার পর ভবনের মালিক মো. কালু এসে অবশিষ্ট অংশ নিজে ভাঙার জিম্মা নেন। তাকে ১৫ দিনের সময় দিয়ে নিজ জিম্মায় ভেঙে নেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই জন্য তার কাছ থেকে লিখিত ‘জিম্মানামা’ নেয়া হয়েছে।
অন্যদিকে মাহতাবের মালিকানাধীন ভবনও ভাঙতে গেলে মালিক মাহতাব নিজে ভেঙে নেয়ার জিম্মা নেন। তাকে লিখিত ‘জিম্মানামা’ নিয়ে ১৫ দিনের মধ্যে নালা দখল করে গড়ে তোলা অংশ ভেঙে নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আবু সেন্টারের নালা দখল করে গড়ে তোলা অংশ ভাঙার কাজ চলছে। এরই মধ্যে এক তৃতীয়াংশ ভেঙে ফেলা হয়েছে।
উচ্ছেদ অভিযানে মেয়র ছাড়াও কাউন্সিলর আশরাফুল হুদা ছিদ্দিকী জামসেদ, পৌরসভার প্রধান নির্বাহী, সচিব রাসেল চৌধুরী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা খোরশেদ আলমসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী অংশ নিয়েছেন। উচ্ছেদ কার্যকমে কাজ করছে ৩০ জনের অধিক শ্রমিক। সেই সাথে কাটার মেশিন, ড্রেইল মেশিন বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হচ্ছে।
জানা গেছে, উচ্ছেদ অভিযান শুরু হলে নিজেরাই নালা দখল করে গড়ে তোলা অংশ ভেঙে নিয়েছে কক্সবাজার বিল্ডার্স’ এর মালিক পক্ষ।
মেয়র মাহবুবুর রহমান বলেন, জনগণের দুর্ভোগ লাঘবের জন্যই উচ্ছেদ অভিযান চলছে এবং ভবিষ্যতেও অভিযান অব্যাহত থাকবে। এতে আমরা কাউকে পরোয়া করছি না। কারণ সবার চেয়ে জনগণ বড়। উল্লেখ্য বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত বেষ্টিত পর্যটন নগরী কক্সবাজার পৌরসভা একটু বৃষ্টি হলে নালা-নর্দমায় পরিণত হয় নিত্যদিনের চলাচলে পৌরবাসী ও পর্যটকদের পড়তে হয় চরম দূর্ভোগে। শেষ পর্যন্ত নালা দখল করে গড়ো তোলা সব স্থাপনা উচ্ছেদ করারর উদ্যোগ হাতে নেওয়ায় পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান ও প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষদের সাধুবাদ জানিয়েছেন পৌরবাসী ও পথচারীগন । মেয়র পৌরসভার সকল কর্মকান্ডে জনগণ ও মিডিয়ার সহযোগিতা চেয়েছেন।

পাঠকের মতামত

আজ পহেলা বৈশাখ

আজ রোববার (১৪ এপ্রিল) পহেলা বৈশাখ-বাংলা নববর্ষ। বাংলা বর্ষপঞ্জিতে যুক্ত হলো নতুন বাংলা বর্ষ ১৪৩১ ...

বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর অভিযান পরিচালিত এলাকায় ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা

বান্দরবানে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান পরিচালিত রুমা,রোয়াংছড়ি ও থানচি এলাকায় পর্যটকদের ভ্রমণ নিরুৎসাহিত করছে বান্দরবান জেলা প্রশাসন। ...

বাসের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সড়কে দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

পটিয়ায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই আরোহী নিহত হয়েছে। নিহতরা হলেন- বোয়ালখালী উপজেলার পশ্চিম গোমদন্ডী এলাকার মোঃ ...