প্রকাশিত: ০৩/০৫/২০১৭ ৭:৩০ এএম

উখিয়া নিউজ ডেস্ক::

কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত মেরিন ড্রাইভ সড়কের কাজ শেষ হয়েছে। আগামী মে মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই সড়ক উদ্বোধন করবেন। এর জন্য সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প বাস্তবায়নকারি সেনা কর্মকর্তা। তিনি বলেছেন শুরুতে নানা চ্যালেঞ্জিং নিয়ে এ সড়কের কাজ করতে হয়েছে। এসড়কের উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে সংশ্লিষ্ট এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন হবে। এ সড়কটি বিশ্ব মানের করার পরিকল্পনাও রয়েছে। এ সড়কের উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে পর্যটন শিল্পের ব্যাপক পরিবর্তন হবে বলে জানান সেনা কর্মকর্তা।

একপাশে দাঁড়িয়ে আছে সবুজের সমারোহ নিয়ে উঁচু পাহাড়। অপর পাশে উত্তাল সমুদ্রের ঢেউ আছড়ে পড়ছে বালিয়াড়ির বুকে। এই দু’য়ের বুক চিরে চলে গেছে সু-প্রশস্ত পিচঢালা পথ। আর এটাই বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের কোলঘেঁষে তৈরী হওয়া কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক। আগামি ৬ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সড়কের উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। আর এ উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার সকালে গণমাধ্যম কর্মীদের মুখোমুখি হন প্রকল্পবাস্তবায়নকারি সেনা বাহিনীর ১৬ ইসিবি’র অধিনায়ক লে. কর্ণেল কে এম মেহেদী হাসান।

তিনি বলেন, শুরুতে এ সড়কের কাজ করতে নানা জটিলতা তৈরী হয়। তবে সড়কের কাজ শেষ করা সম্ভব হয়েছে। এ সড়কের কারণে সংশ্লিষ্ট এলাকার জীবন মানের ব্যাপক উন্নয়ন হবে। এ সড়কটিতে নানাউদ্যোগের মাধ্যমে বিশ্বমানের মেরিন ড্রাইভ সড়ক হিসেবে তৈরীর পরিকল্পনাও রয়েছে বলে জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সড়কের উদ্বোধনের সকল প্রস্তুতি শেষ এবং এ সড়কের উদ্বোধনের পর কক্সবাজার একটি সমৃদ্ধশালী পর্যটন শিল্প হিসেবে প্রকাশ পাবে বলে মনে করছেন তিনি।

এ সড়কে ১৭ টি ব্রীজ, ১০৮ চি কালর্ভাট রয়েছে। যেখানে ব্যয় হয়েছে ১ হাজার ৫০ কোটি টাকার কাছাকাছি। সুত্র

কক্সবাজার রিপোর্ট

পাঠকের মতামত

মিয়ানমারের আরেক গুরুত্বপূর্ণ শহর বিদ্রোহীদের দখলে

মিয়ানমারের বিদ্রোহীরা দেশটির আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ শহরের দখল নিয়েছে। মিয়ানমারের জান্তাবিরোধী সশস্ত্র রাজনৈতিক গোষ্ঠী তা’আং ...

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার ও দূরপাল্লার ট্রেন পটিয়া স্টেশনে যাত্রা বিরতির দাবি

চট্টগ্রাম–কক্সবাজার ও দূরপাল্লার ট্রেন পটিয়া স্টেশনে যাত্রা বিরতিসহ বিভিন্ন দাবিতে রেলমন্ত্রী জিল্লুল হাকিমকে স্মারকলিপি দিয়েছেন ...