প্রকাশিত: ১০/০৫/২০১৭ ৯:১৪ এএম

এস,এম,জুয়েল আলীকদম(বান্দরবান)প্রতিনিধি::

বান্দরবনের থানচি-আলীকদম সড়ক,এ অঞ্চলের সবচেয়ে উঁচু রাস্তা। যাকে বলা হচ্ছে ভয়ংকর সুন্দর। এর অপরূপ সৌন্দর্য যেমন মানুষকে বিমোহিত করবে, আবার সামান্য ভুল কিংবা ছোট কোনো দুর্ঘটনা কেড়ে নেবে সব কিছু। তবে চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত এমন সাহসী পর্যটকদের জন্য চমৎকার একটি স্পট হতে পারে এ সড়ক। বান্দরবন পার্বত্য জেলায়, গত বছরের ১৪ জুলাই মাসে থানচি জিরো পয়েন্ট থেকে আলীকদম পর্যন্ত ৩৩ কিলোমিটার দৈঘ্যেও, ১’শ ১৭ কোটি টাকার এ সড়কের কাজ শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্ধোধন করেন। সুউচ্চ পাহাড়গুলোকে অক্ষত রেখে, শুধুমাত্র ঢাল ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে এ সড়কটি। যে কারণে এ সড়ক অতিক্রম করার সময় দেখা যায় পাহাড়ের নানা রূপ। (সড়কটির কাজ শুরু হয় ২০০৬ সালে) এ অঞ্চলের যানবাহন চলাচলের উপযোগী সবচেয়ে উঁচু সড়কটির অবস্থান। পাহাড়ি পথে একে-বেঁকে যাওয়া এ সড়ক কতটা ভয়ংকর সুন্দর তা নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা যাবেনা। কোথাও খাড়া পাহাড়, আবার কোথাও একেবারে ঢালু। ডিম পাহাড় অংশটিকেই ধরা হয় সবচেয়ে উঁচু। যেটি সমতল ভূমি থেকে অন্তত সাড়ে আটশত মিটার উপরে। বিজিবি দক্ষিণ-পূর্ব রিজিয়নের রিজিওনাল কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হাবিবুল করিম বলেন, জায়গাটি নিরাপদে ভ্রমণ করার মতো একটি জায়গা। কোন যানজট নেই। বামদিকে মিয়ানমার সীমান্ত আর ডানদিকে বাংলাদেশের সুউচ্চ পাহাড়। যারা এখানে একবার ভ্রমণ করবেন তারা দ্বিতীয়বার আসার ইচ্ছা পোষণ করবেন। বছরের যে কোনো সময় বান্দরবন সদর থেকে গাড়ি নিয়ে এ সড়ক ঘুরে আসা যায়। তবে বর্ষা মৌসুমে পাহাড় ধসের আশংকা থাকায় কিছুটা ঝুঁকির মধ্যে পড়তে হয়। তবে বলা হয়ে থাকে থানচি-আলীকদম সড়কে বা এই পাহাড়ে উঠলেই চাখে পড়ে পুরো বান্দরবন। যে থানছি দেখে নায় সেই বাংলাদেশ দেখে নাই, এক আবেগিময় পর্যটকের দেওয়াল লিখন।

পাঠকের মতামত

মিয়ানমারের আরেক গুরুত্বপূর্ণ শহর বিদ্রোহীদের দখলে

মিয়ানমারের বিদ্রোহীরা দেশটির আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ শহরের দখল নিয়েছে। মিয়ানমারের জান্তাবিরোধী সশস্ত্র রাজনৈতিক গোষ্ঠী তা’আং ...

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার ও দূরপাল্লার ট্রেন পটিয়া স্টেশনে যাত্রা বিরতির দাবি

চট্টগ্রাম–কক্সবাজার ও দূরপাল্লার ট্রেন পটিয়া স্টেশনে যাত্রা বিরতিসহ বিভিন্ন দাবিতে রেলমন্ত্রী জিল্লুল হাকিমকে স্মারকলিপি দিয়েছেন ...