প্রকাশিত: ৩১/০৫/২০১৭ ৪:৫৩ পিএম , আপডেট: ১৭/০৮/২০১৮ ৫:১৭ পিএম

উখিয়া নিউজ ডেস্ক ::

ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র আঘাতে কক্সবাজারের আট উপজেলায় মোট ৫২ হাজার ৫৩৯টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১৭ হাজার ২৩টি বসতবাড়ি সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত ও ৩৫ হাজার ৫১৬টি বসতবাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন ক্ষেত-খামার, ফসল এবং পানের বরজ ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জেলা প্রশাসনের ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয়ে বুধাবারের জরিপে এই তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।
জরিপ মতে, জেলা আট উপজেলাতেই ‘মোরা’ আঘাত হেনেছে। এতে উপকূলীয় অঞ্চল টেকনাফের সেন্টমার্টিন, শাহপরীর দ্বীপ, মহেশখালীর কুতুবজোম, ধলঘাটা, কুতুবদিয়া, কক্সবাজার সদরের পোকখালী, খুরুস্কুল, সমিতিপাড়ায় বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
জেলা প্রশাসনের কন্ট্রোল রুমের তথ্য মতে, ‘মোরা’র আঘাতে কক্সবাজারে চারজন নিহত হয়েছে। এরা সবাই গাছ পড়ে মারা গেছেন। তবে আরো একজন মারা গেছেন ভয়ে স্ট্রোক করে। আহত হয়েছে প্রায় অর্ধশত।  এছাড়াও প্রায় একলাখ গাছ বিধ্বস্ত হয়েছে। সাগরে ৮টি ট্রলার ডুবিতে দেড় শতাধিক মাঝি-মাল্লা এখন পর্যন্ত নিখোঁজ রয়েছে। তবে রাস্তাঘাটের তেমন ক্ষতি হয়নি।

নিহতরা হলেন, কক্সবাজার পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের ৬নং জেডিঘাট এলাকায় বদিউল আলমের স্ত্রী মরিয়ম বেগম (৫৫) হৃদক্রিয়া বন্ধ হয়ে, চকরিয়ার বড়ভেওলা এলাকার মৃত নূর আলম সিকদারের স্ত্রী সায়েরা খাতুন (৬৫), একই উপজেলার ডুলাহাজারা পূর্ব ডুমখালী এলাকার আবদুল জব্বারের ছেলে রহমত উল্লাহ (৫০), পেকুয়ার উজানটিয়া নতুনঘোনা পেকুয়ারচর এলাকার আজিজুর রহমানের ছেলে আবদুল হাকিম সওদাগর (৫৫) এবং সকাল সাড়ে নয়টার দিকে সদরের ইসলামাবাদ ইউনিয়নের গজালিয়া গ্রামের শাহাজাহানের মেয়ে শাহিনা আকতার (১০) গাছচাপা পড়ে মারা যান।

তথ্য মতে, জেলার কুতুবদিয়ায় ৪ হাজার ২৭০টি বসত ঘর সম্পূর্ণ ও ৬ হাজার ৩৮২টি আংশিক, মহেশখালীতে ৫ হাজার ৪৮০টি সম্পূর্ণ ও ৮ হাজার ৭০০ আংশিক, পেকুয়ায় ২০০টি সম্পূর্ণ ও এক হাজার ১৫টি আংশিক, রামুতে ২৫২ টি সম্পূর্ণ ও ১১শ ৯৬টি আংশিক, উখিয়ায় ৫০টি সম্পূর্ণ ও ২০০টি আংশিক, সদরে ১৫০টি সম্পূর্ণ ও ৬০০ আংশিক, টেকনাফে ৪ হাজার ৫০০ সম্পূর্ণ ও ৬ হাজার আংশিক, চকরিয়ায় এক হাজার ১৯৩ সম্পূর্ণ ও এক হাজার ৩৫টি আংশিক, কক্সবাজার পৌরসভায় ৫৩৫ সম্পূর্ণ ও এক হাজার ৯২ আংশিক, টেকনাফ পৌরসভায় ১১৩ সম্পূর্ণ ও ২৬৭ আংশিক, চকরিয়া পৌসেভায় ৮০ সম্পূর্ণ ও ৩২৯ আংশিক এবং মহেশখালী পৌরসভায় ২০০ সম্পূর্ণ ও ৭০০ বসতি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে প্রশাসনের জরিপে এসেছে।

জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন বলেন, ‘ঘুর্ণিঝড় মোরা মোকাবেলায় সর্বোচ্চ প্রস্তুতি ছিলো। ৫৩৮টি আশ্রয়কেন্দ্রে ২ লক্ষাধিক মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছিল। এই কারণে প্রাণহানি অনেক কম হয়েছে। তবে ঘরবাড়ি, পানবরজ ও গাছ-গাছালির প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।’
তিনি আরো বলেন, ‘মোরা’র আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকজনের জন্য সরকারি কোষাগার থেকে প্রতি উপজেলায় ১০০ টন চাল ও এক লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রয়োজন হলে আরো বরাদ্দ দেয়া হবে।’

পাঠকের মতামত

মিয়ানমারের আরেক গুরুত্বপূর্ণ শহর বিদ্রোহীদের দখলে

মিয়ানমারের বিদ্রোহীরা দেশটির আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ শহরের দখল নিয়েছে। মিয়ানমারের জান্তাবিরোধী সশস্ত্র রাজনৈতিক গোষ্ঠী তা’আং ...

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার ও দূরপাল্লার ট্রেন পটিয়া স্টেশনে যাত্রা বিরতির দাবি

চট্টগ্রাম–কক্সবাজার ও দূরপাল্লার ট্রেন পটিয়া স্টেশনে যাত্রা বিরতিসহ বিভিন্ন দাবিতে রেলমন্ত্রী জিল্লুল হাকিমকে স্মারকলিপি দিয়েছেন ...