প্রকাশিত: ১০/০৯/২০১৬ ৭:৪২ এএম

সওয়ালি উল্লাহ সিরাজ: ইসলামের সকল ইবাদতের মতো ঈদও আল্লাহ তাআলার পক্ষ থেকে নির্দেশিত। ঈদুল আযহা সম্পর্কে আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত এক হাদিসে আছে, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘আমাকে কুরবানীর দিবসে ঈদ (উদযাপনের) আদেশ করা হয়েছে। আল্লাহ তা এ উম্মতের জন্য নির্ধারণ করেছেন।’ এক ব্যক্তি আরজ করলেন, ‘ইয়া রাসূলাল্লাহ! যদি আমার কাছে শুধু একটি ‘মানীহা’ থাকে (অর্থাৎ যা আমাকে শুধু দুধ পানের জন্য দেওয়া হয়েছে) আমি কি তা কুরবানী করতে পারি? নবী (সা.) বললেন, ‘না। তবে তুমি চুল, নখ ও গোঁফ কাটবে এবং নাভীর নিচের পশম পরিষ্কার করবে। এটাই আল্লাহর দরবারে তোমার পূর্ণ কুরবানী বলে গণ্য হবে।-(সুনানে আবু দাউদ)

হযরত বারা ইবনে আযিব (রা.) কুরবানীর পশু সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) হাত দিয়ে ইশারা করেছেন, আমার হাত তো তাঁর হাত থেকে ছোট-এবং বলেছেন, ‘চার ধরনের পশু দ্বারা কুরবানী করা যায় না : যে পশুর এক চোখের দৃষ্টিহীনতা স্পষ্ট, যে পশু অতি রুগ্ন, যে পশু সম্পূর্ণ খোড়া এবং যে পশু এত শীর্ণ যে, তার হাড়ে মগজ নেই।’ লোকেরা বলল, আমরা তো দাঁত, কান ও লেজে ত্রুটিযুক্ত প্রাণী (দ্বারা কুরবানী করা)ও অপছন্দ করি? তিনি বললেন, যা ইচ্ছা অপছন্দ করতে পার। তবে তা অন্যের জন্য হারাম করো না।’-(সহীহ ইবনে হিব্বান)

আলী ইবনে আবী তালিব (রা.) বলেন, নবী (সা.) আমাকে তাঁর (কুরবানীর উটের) আনুষঙ্গিক কাজ সম্পন্ন করতে বলেছিলেন। তিনি কুরবানীর পশুর গোশত, চামড়া ও আচ্ছাদনের কাপড় ছদকা করতে আদেশ করেন এবং এর কোনো অংশ কসাইকে দিতে নিষেধ করেন। তিনি বলেছেন, আমরা তাকে (তার পারিশ্রমিক) নিজের পক্ষ থেকে দেব।-(সহীহ বুখারী)

হযরত শাদ্দাদ ইবনে আওছ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, আল্লাহ তাআলা সকল কিছুর উপর অনুগ্রহকে অপরিহার্য করেছেন। অতএব যখন তোমরা হত্যা করবে তো উত্তম পদ্ধতিতে হত্যা কর। যখন যবেহ করবে তো উত্তম পদ্ধতিতে যবেহ কর। প্রত্যেকে তার ছুরিতে শান দেবে এবং তার পশুকে শান্তি দেবে।-(সহীহ মুসলিম)

পাঠকের মতামত