মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশির ১০ বছরের জেল

ঢাকা : মানবপাচারের অভিযোগে একজন বাংলাদেশি নাগরিককে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে মালয়েশিয়ার একটি আদালত। ২০১৪ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে আন্দামান সাগর হয়ে থাইল্যান্ডের শংখলা প্রদেশে ৩ জন বাংলাদেশিকে পাচার করায় এই দণ্ড দেয় আদালত।

মালয়েশিয়ার প্রাত্যহিক সংবাদপত্র দ্য স্টারের খবরে বলা হয়েছে, অভিযুক্ত ৩২ বছর বয়সি নুরুল ইসলাম মালয়েশিয়ার পেরলিস প্রদেশের একটি আদালতে নিজের দোষ স্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন, ২০১৪ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে মোহাম্মদ নুরবসা, দেলোয়ার এবং জয় নামের ৩ জন বাংলাদেশি নাগরিককে তিনি পাচার করেছেন।

এদিকে ২০১৪ সালের অক্টোবর থেকে ২০১৫ সালের মে মাসের মধ্যে বিয়াও অং চুম্প নামের ৪৬ বছর বয়সি আরেক থাই নাগরিকের বিরুদ্ধে মোহাম্মাদ তোফাজ্জির হুসাইন নামের একজন বাংলাদেশিকে পাচার করার অভিযোগ আনা হয়েছে। যদিও প্রতিবেদনে পাচারের বিস্তারিত তথ্য দেয়া হয়নি।

কুয়ালালামপুরের বাংলাদেশ দুতাবাসের শ্রমিক সচিব মুশাররাত জেবিন ডেইলি স্টারকে জানিয়েছেন, এ সম্পর্কিত কোন তথ্য তারা এখনো জানেন না। তবে ঘটনার সত্যতা যাচাই করা হচ্ছে।

দূতাবাসের অন্য একজন কর্মকর্তা বলেছেন, বাংলাদেশ, মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের মানুষ পাচারকারী চক্রের বিরুদ্ধে এর আগেও বেশ কয়েকটি মামলা করা হয়েছে।

গত বছরের ১১ই মে মালয়েশিয়ার লংকাই দ্বীপ থেকে পাচারের শিকার হওয়া ১,০৫১ জন মানুষ উদ্ধার করা হয় যার মধ্যে ৭১৬ জনই ছিলেন বাংলাদেশি। পাচারকারীরা তাদেরকে দ্বীপে ফেলে পালিয়ে গিয়েছিল। ওই ৭১৬ জন বাংলাদেশির মধ্যে ৬৭০ জন ইতিমধ্যে দেশে ফিরে এসেছে। বাকি ৪৬ জন এখনো মালয়েশিয়ার কারাগারে আটক রয়েছে।

বঙ্গোপসাগর দিয়ে মানুষ পাচার চক্রের কথা গত বছর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে সাড়া ফেলার পর এখন পর্যন্ত পাচারের শিকার হওয়া ৩ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশিকে ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড এবং মিয়ানমার থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন