প্রকাশিত: ২১/১১/২০১৭ ১০:০৭ পিএম , আপডেট: ১৭/০৮/২০১৮ ১০:৪৭ এএম

শামীম ইকবাল চৌধুরী, নাইক্ষ্যংছড়ি ::
আইনে পাহাড় কর্তন ও মোচনের জন্য কঠোর এই নির্দেশনা থাকলেও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় এটি মানা হচ্ছে না। বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়নের বাঘানঘোনা, স্কুলপাড়া, ব্যবসায়ীপাড়া ও বিছামারা গ্রামের অভ্যান্তরে উঁচু পাহাড় কেটে নির্মিত হচ্ছে পাকা দালান। পরিবেশ অধিদপ্তরসহ স্থানীয় প্রশাসনের কোন অনুমতি ছাড়াই এসব পাহাড় কাটা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। ব্যবসায়ী পাড়ায় তিন ভাই মিলে প্রায় ৬০ ফুট উচ্চতার ২০ শতক পাহাড় কেটে সাবাড় করেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় গুরুত্ব বেড়ে যাওয়ায় ভিন্ন এলাকা থেকে আসা ভাসমান মানুষ নাইক্ষ্যংছড়ি ঠাঁই নিচ্ছে। তারা পাহাড় কেটে ঘর-বাড়ি তৈরি করছে। সম্প্রতি বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গারাও ওই এলাকায় পাহাড় কাটার সঙ্গে জড়িত। প্রশাসনের অগোচরে তারা দুর্গম পাহাড়ে ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে সেখানে বসবাস করছে।

গতকাল মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী হাকিম এসএম সরওয়ার কামালের নেতৃত্বে সেই পাহাড়ে যান কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের এনফোর্সসেন্টের একটি দল। তাঁরা পাহাড় কাটার সত্যতা পেয়েছেন। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি মোটরসাইকেল, মাটি সরানোর দুটি ভ্যান গাড়ি, তিনটি পাওয়ার পুল হরিজেন লাইট ও পাহাড় কাটার কাজে ব্যবহিৃত নানা সরঞ্জাম জব্দ করেন।

আর এদিকে ইমারত নির্মাণ বিধিমালা-১৯৯৬ তে বলা হয়েছে, পাহাড় কাটা অথবা মোচনের জন্য পরিবেশ ছাড়পত্র অবশ্যই নিতে হবে। ২০০২ সালের ৯ মার্চ পরিবেশ অধিদফতর এই সম্পর্কিত একটি প্রজ্ঞাপনও জারি করে। যেখানে বলা হয়েছে পাহাড় কর্তন ও মোচনের ক্ষেত্রে ইমারত নির্মাণ বিধিমালা -১৯৫২ এবং ১৯৯৬ অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে।

কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সাইফুল আশরাব বলেন- ‘হোসনে মোবারক, ফারুক ও ইয়াসির আরাফাত (তিন ভাই) মিলে ব্যবসায়ীপাড়ায় উঁচু পাহাড় কেটে পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি করেছে। বিছামারা গ্রামে পাহাড় কেটেই মোহাম্মদ হাসান নামে এক ব্যক্তি পাকা দালান নির্মাণ করছে। স্কুল পাড়ায় রফিক ছিদ্দিকির ছেলে মোবারক ছিদ্দিক পাহাড় কেটেছে। বাগানঘোনা গ্রামে আবদুর রহমানের ছেলে ছৈয়দ আলমের নেতৃত্বে বিশলকার পাহাড় কাটার সত্যতা পাওয়া গেছে। ছৈয়দ আলম আবার মন্ত্রিপরিষদ সচিবের আত্মীয়ও পরিচয় দিয়েছেন। এটা দু:খজনক। তাঁদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা রুজু করা হবে।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সরওয়ার কামাল বলেন, পাহাড় কাটার বিষয়ে কোন ছাড় নেই। উপজেলায় পাহাড় নিধনকারীদের বিরুদ্ধে পর্যায়ক্রমে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। প্রেসক্লাব সভাপতি শামীম ইকবাল চৌধুরী বলেন, নাইক্ষ্যংছড়িতে পাহাড় কাটার ঘটনা অহরহ ঘটছে। কিন্তু এভাবে নিয়মিত অভিযান পরিচালিত হলে তা শূণ্যের কোঠায় নেমে আসবে।

পাঠকের মতামত

সেন্টমার্টিনের মানুষের মনের আতঙ্ক দূর করার আহ্বান ইবরাহিমের

সেন্টমার্টিনের মানুষের মনের আতঙ্ক দূর করতে পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান ...

রামুতে ১১৭ জন কৃতি শিক্ষার্থীকে সংবর্ধিত করলো ‘প্রতিশ্রুতি’

কক্সবাজার জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. নাছির উদ্দিন বলেছেন, গুণগত শিক্ষাই শিক্ষার্থীদের স্বপ্নপূরণে এগিয়ে নেবে। ...

ভুয়া চিকিৎসক আটক

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ঢামেক) থেকে এক ভুয়া চিকিৎসককে আটক করা হয়েছে। তার নাম রিপা ...