প্রকাশিত: ২৩/০৩/২০১৭ ৮:৫৭ এএম

জসিম উদ্দিন টিপু, টেকনাফ::
সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের সফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) মোহাম্মদ শফিউল আলম পদোন্নতি পেয়ে চট্টগ্রাম ওয়াসায় বদলী হয়েছেন। এক বছর ৪মাস টেকনাফের ইউএনও হিসেবে তিনি অত্যন্ত সততা এবং দক্ষতার সহিত দায়িত্ব পালন করেছেন। সফল ইউএনও মোহাম্মদ শফিউল আলম ২০১৫সনের ২৯নভেম্বর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে টেকনাফে যোগদান করেন। চলতি মাসের(১৯মার্চ) পর্যন্ত সীমান্ত এই উপজেলার অভিভাবক হিসেবে তিনি দায়িত্বে ছিলেন। সম্প্রতি তিনি পদোন্নতি পেয়ে চট্টগ্রাম ওয়াসায় বদলী হয়েছেন বলে সুত্র জানায়। দায়িত্ব পালনকালে ইউএনও শফিউল আলম টেকনাফের উন্নয়নে রাতদিন কাজ করে গেছেন। নাফনদে জেগে উঠা জালিয়ারদ্বীপে দৃষ্টিনন্দন নাফ ট্যুরিজম পার্ক, সাবরাং অর্থনৈতিক অঞ্চল, সেন্টমার্টিন রক্ষায় নীতিমালা প্রণয়ন, বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধানে সোলার পার্ক স্থাপনে তাঁর যথেষ্ট ভুমিকা রয়েছে। টেকনাফের মানুষ ইতিমধ্যে এর সুফল দেখতে পাচ্ছে। এছাড়া তিনি সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগীতায় শক্ত হাতে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ, শিক্ষা-সাংস্কৃতিক উন্নয়ন, মাদক নিয়ন্ত্রণ, নাশকতা প্রতিরোধ করেছেন। সীমান্তে রাজনৈতিক এবং সুন্দর সামাজিক পরিবেশ অক্ষুন্ন রাখতে তাঁর অভিভাবক সূলভ ভুমিকা ছিল সত্যিই প্রশংসনীয়। উখিয়া-টেকনাফের মেহনতি মানুষের আপনজন-সাংসদ জননেতা আব্দুর রহমান বদি সিআইপির পরামর্শ এবং সহযোগীতায় টেকনাফের সমগ্র উন্নয়নে ইউএনও শফিউলের কর্মতৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মত। অল্প সময়ে টেকনাফের মানুষকে আপন হিসেবে নিয়েছিলেন বলেই সামগ্রিক উন্নয়নে তিনি ভুমিকা রেখেছেন। ভেদাভেদ ভুলে জনপ্রতিনিধি এবং জনপ্রশাসনের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ের ভিত্তিতে নিষ্ঠার সাথে কাজ করেছেন তিনি। সফল ইউএনও‘র পদোন্নতি জনিত বদলীতে টেকনাফে সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী, জনপ্রতিনিধি, সংবাদকর্মীসহ সকলে খুবই ব্যতীত। “যেতে নাহি দিবো ভাই-তবুও চলে যাই” এই বাস্তবতাকে স্বীকার করেই কিন্ত তাঁকে বিদায় দিতে হচ্ছে। চিরন্তন সত্যকে আলিঙ্গন করে বদলী হয়ে ওয়াসায় যাচ্ছেন ঠিক, তবে টেকনাফ এবং এখানকার মানুষের উপকারে তিনি যথাসাধ্য সহযোগীতা করবেন বলে এই প্রতিবেদককে জানান।

পাঠকের মতামত