প্রকাশিত: ২৬/০৭/২০২২ ৮:৫৯ এএম


মাছ ধরায় দীর্ঘ ৬৫ দিন নিষেধাজ্ঞার সুফল মিলতে শুরু করেছে। ট্রলারভর্তি ইলিশ নিয়ে উপকূলে ফিরতে শুরু করেছেন জেলেরা। গত দুই দিনে কক্সবাজার উপকূলে ফেরা কোনো মৎস্যজীবীকে হতাশ হতে হয়নি। ইলিশের পাশাপাশি ধরা পড়ছে সুরমা, লাল পোয়া, রূপচাঁদাসহ নানা প্রজাতির মাছ।

সোমবার (২৫ জুলাই) কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ম্যানেজার আহসানুল হক বলেন, “নিষেধাজ্ঞার পর কক্সবাজারের জেলেরা সাগরে মাছ ধরতে গেছেন। মাছ ধরা শেষে সবাই ফিরে এলে মোট পরিমাণ বোঝা যাবে। তবে প্রথম দিনে ১৬ মেট্রিক টন মাছ কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে বিক্রি হয়েছে। এ বছর ৯ হাজার মেট্রিক টন মাছ শিকারের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।”

এদিন কক্সবাজার মৎস্য অবতরণকেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, সাগরে মাছ ধরে কিছু কিছু জেলে উপকূলে ফিরেছেন। প্রতিটি ট্রলারে ইলিশসহ নানা প্রজাতির মাছের স্তুপ। যারা সপ্তাহ বা ১০ দিনেরও বেশি সময়ের জন্য সাগরে নেমেছেন তারা বেশি মাছ পাবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

জেলে সামশুল আলম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “দুই মাস পর শনিবার রাত ১২টা থেকে সাগরে মাছ ধরতে শুরু করি। অনেক মাছ পেয়েছি। খুশি লাগছে।”

উখিয়া নিউজ ডটকমের   সর্বশেষ খবর পেতে Google News অনুসরণ করুন

ফিশিং ট্রলারের মাঝি হুমায়ূন কাদের বলেন, “সাগরে মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় আশা করেছিলাম বেশি মাছ পাব। তাই-ই হয়েছে। গত রাতে সাগরে গেলাম। জাল তুলে দেখি ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ। বাড়িতে টাকা পাঠাতে পারবো তাই আরও বেশি খুশি লাগছে।”

ফিশারি ঘাটের ব্যবসায়ী সৈয়দ হোসাইন বলেন, “সাইজ অনুযায়ী দামে আমরা মাছ কিনছি। তবে ছোট আকৃতির মাছ নেই। সব বড়। এগুলো কেজিতে ১১০০-১২০০ টাকা পর্যন্ত কিনছি। মণ হিসেবে ৪০ হাজার থেকে ৪৫ হাজার। আর গণনা করে নিলে ১০০ ইলিশের দাম ১৬ হাজার থেকে ১৭ হাজার টাকায় ক্রয় করছি আমরা। বেশি মাছ পাওয়া গেলে দাম একটু কমবে।”

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. বদরুজ্জামান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “নিষেধাজ্ঞার পরে জেলার বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে অনেক ট্রলার সাগরে মাছ ধরতে গেছে। তারা কাঙ্ক্ষিত পরিমাণ মাছও পেয়েছে।”

তিনি আরও বলেন, “২০১৫ সাল থেকে প্রতি বছর সাগরে মাছ ধরায় ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা থাকে। এ নিষেধাজ্ঞার ফলে সাগরে মাছের পরিমাণ বেড়ে যায়। ফলে অনেকদিন পর সাগরে জাল ফেলে বেশি মাছ পাওয়া যায়। আশা রাখি সামনের দিনগুলোতে বেশি পরিমাণে মাছ পাবেন জেলেরা।”

দীর্ঘ দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে মাছ ধরায় সরকারি নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় কক্সবাজারের জেলে পল্লীগুলো এখন সরগরম। বিশেষ করে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়ায় জেলে পরিবারগুলোতে এখন খুশির ঝিলিক।

পাঠকের মতামত

বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল আবছার ও মার্শালকে আ’লীগ থেকে বহিস্কার

আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য কক্সবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচন-২০২২ এ চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ...

তুমব্রু সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে বাংলাদেশির পা বিচ্ছিন্ন

বান্দরবানের তুমব্রুতে মিয়ানমার সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে বাংলাদেশি নাগরিকের পা বিচ্ছিন্নের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) ...