প্রকাশিত: ২৫/০৩/২০১৮ ৮:২৩ এএম , আপডেট: ১৭/০৮/২০১৮ ৫:০১ এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ ভয়াল ২৫শে মার্চ, জাতীয় গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ ‘কাল্রাতে’ মুক্তিকামী নিরস্ত্র বাঙালির ওপর নারকীয় গণহত্যা চালায় হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী। এ ঘটনার প্রেক্ষাপটে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার চূড়ান্ত ঘোষণা দেন তখনই। আর এই দুটি ঘটনার মধ্যদিয়ে শুরু হয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের জন্মের প্রক্রিয়া- মুক্তির যুদ্ধ। এবার দ্বিতীয়বারের মতো দিনটিকে ‘জাতীয় গণহত্যা’ দিবস হিসেবে পালন করা হচ্ছে।

ঘুমন্ত বাঙালির ওপর হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী নারকীয় এই হত্যাযজ্ঞ শুরু করে একাত্তরের পঁচিশে মার্চ রাতে। পাকিস্তানিদের এই গণহত্যা মোটেও আকস্মিক ছিল না, ছিল সুপরিকল্পিত। ২৫ মার্চ বিকেলে ঘাতক ইয়াহিয়া ও জুলফিকার আলী ভূট্টো ঢাকা থেকে পালাবার পরই রাতে শুরু হয় তাদের ‘অপারেশন সার্চ লাইট’ নামের গণহত্যা।

এই হত্যাযজ্ঞ একযোগে চলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল, রাজারবাগ পুলিশ লাইনসহ ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে।

রাজারবাগে পুলিশ লাইনে ইপিআরের বাঙালি সদস্যদের নিরস্ত্র করে হামলা চালানো হয়। হত্যা করা হয় কয়েক হাজার পুলিশকে। তবে সেখানেই গড়ে ওঠে পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধ।
কালরাতে জঘন্যতম নৃশংশতা চালানো হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল, রোকেয়া হল ও শামসুন্নাহার হলে। কয়েক হাজার শিক্ষার্থী ও শিক্ষককে জগন্নাথ হলের মাঠে লাইনে দাঁড় করিয়ে গুলি চালিয়ে হত্যা করে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। নারী হল গুলোতে চলে অবর্ণনীয় নারকীয়তা।

মুটে মজুর রিক্সাচালকও রেহাই পায়নি ঘাতকের সাঁজোয়াযান, মেশিনগানের গুলি থেকে। ঢাকার বিভিন্ন স্থানে যখন এই নির্বিচার হত্যাযজ্ঞ চলছিল, তখন পাকিস্তানি বাহিনীর একটি দল চড়াও হয় ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে। গ্রেফতার করা হয় বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা ও সত্তুরের নির্বাচনে বিজয়ী সংখ্যা গরিষ্ঠ দল আওয়ামী লীগ নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। আলোচনার আড়ালে পাকিস্তানিরা যে এমন ষড়যন্ত্র আঁটছে তা আঁচ করেই, ‘অপারেশন সার্চ লাইট’ শুরুর সাথে সাথেই স্বাধীনতার ঘোষণা দেন রাজনীতি ও আন্দোলনের সিদ্ধপুরুষ শেখ মুজিব। যা ইপিআরের ওয়্যারলেস যোগে ছড়িয়ে দেয়া হয় দেশের বিভিন্ন প্রান্তে।গ্রেফতার করে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যাওয়া হয় অজ্ঞাতস্থানে।

একাত্তরের ২৫ মার্চ কালরাতের সেই গণহত্যার বিপরীতে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার মধ্যদিয়ে মুক্তিযুদ্ধের সূচনাঘটে। যা দীর্ঘ নয় মাসে নানা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ঘটনার মধ্যদিয়ে আঁকা হয় নতুন এক মানচিত্র। যার নাম- বাংলাদেশ ।

পাঠকের মতামত

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ভল্ট ঘিরে রেখেছে পুলিশ

রাজধানী‌র ধোলাইখা‌লে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এ‌নে‌ছে ফায়ার সা‌র্ভিস। আগুন নিয়ন্ত্রণের পর ব্যাংকের ...

‘বাংলাদেশ-মিয়ানমার রাজি থাকা সত্ত্বেও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন না হওয়ার কারণ খুঁজতে হবে’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ...