রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবৈধভাবে চলছে শত কোটি টাকার স্বর্ণের ব্যবসা

উখিয়া নিউজ ডটকম::
উখিয়া-টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প রয়েছে ৩২টি। এসব রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাস করছে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা ১১ লাখ ১৮ হাজারেরও বেশী রোহিঙ্গা। এসব রোহিঙ্গাদের ঘিরে ক্যাম্প এলাকায় ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে উঠেছে স্বর্নের দোকান। উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন এলাকায় শতাধিক স্বর্ণের দোকান রয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে স্থানীয়দের যোগসাজশে রোহিঙ্গারা এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। গত দুই বছরে প্রায় শত কোটি টাকার স্বর্নের ব্যবসা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নাম না প্রকাশ করার শর্তে এক স্বর্ন ব্যবসায়ী। স্বর্ণের দোকান ছাড়া মুদির দোকানের পেছনে স্বর্ণ তৈরী করতে দেখা গেছে। রোহিঙ্গারা প্রতিদিন স্বর্ণের দোকানে ভিড় লেগে থাকে।

সরকারের বিনা অনুমতিতে কোন প্রকার প্রয়োজনীয় লাইসেন্স ছাড়াই এসব জুয়েলার্সের দোকান খোলা হয়েছে। আর প্রতিদিন উক্ত দোকান গুলোতে স্বর্ণ ক্রয় করতে এসে প্রতারিত হচ্ছে অনেকেই। এমনও অভিযোগ রয়েছে নিম্নমানের ও নকল স্বর্ণ বিক্রি করে লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সম্প্রতি উখিয়া উপজেলা প্রশাসন অভিযান চালিয়ে স্বর্ণের দোকান গুলো সিলগালা করেন। এসময় জরিমানা আদায় করেন।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে উখিয়ার কুতুপালং, বালুখালী, থাইনখালী, পালংখালি, মধুরছড়া, লম্বাশিয়া, জামতলী, ময়নাঘোনা, তাজনিমার খোলা সহ ক্যাম্প ভিওিক বাজারে ছোট বড় শতাধিক স্বর্ণের দোকান। এসব দোকানে কোন কাগজ পত্র নেই। স্বর্ণের দোকানের আড়ালে কিছু কিছু ব্যবসায়ী সুদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্বর্ণের দোকান সমুহ মহামায়া জুয়েলার্স, অষ্টম জুয়েলার্স, মদিনা গোল্ড কালেকশন, মা বনরুপা জুয়েলার্স, আরোহী জুয়েলার্স, আজমীর স্বর্ণকার, মংছিং স্বর্ণকার, পূর্ণিমা জুয়েলার্স, নারায়নপুরী জুয়েলার্স, সৈকত জুয়েলার্স, শুভশ্রী জুয়েলার্স, সৌরভ জুয়েলার্স, সৈকত জুয়েলার্স, এ.এ স্বর্ণকার, রাখাইন স্বর্ণকার, পিকে স্বর্ণকার, পিজে স্বর্ণকার, অঙ্কিত জুয়েলার্স, শাহজালাল স্বর্ণকার, মদিনা গোল্ড ফ্যাশন, শাহ আমানত স্বর্ণকার, জগন্নাথ স্বর্ণকার, বার আউলিয়া স্বর্ণকার, চেন্নাই স্বর্ণকার, পাহাড়িকা স্বর্ণকার, ঐক্য স্বর্ণকার নুরে মদিনা স্বর্ণকারসহ কুতুপালং বাজার, বালুখালী পানবাজার এবং মিয়ানমারের বলীবাজার খ্যাত পশ্চিম পাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প বাজারে সাইনবোর্ড বিহীন অবৈধ স্বর্ণের দোকানে চলছে চোরাচালানী- পাচারকারীদের অবাধ বিচরণ। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে পুঁজি করে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে সংঘবদ্ধ স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা রাতারাতি জুয়েলার্সের দোকান খুলে বসে। এসব দোকানের আড়াঁলে চলছে চোরাই স্বর্ণের ব্যবসা। এসব দোকান থেকে ঢাকা চট্টগ্রামেও পাচার হচ্ছে। দোকান গুলো নিয়ন্ত্রণ করছে পেশাদার স্বর্ণ চোরাচালানী রোহিঙ্গারা। তারা এখনও মিয়ানমার থেকে নানা কায়দায় এদেশে স্বর্ণ পাচার করে নিয়ে আসছে। স্থানীয় স্বর্ন ব্যবসায়ী বলেন, এসব দোকান গড়ে উঠার কারনে বেচা বিক্রি কমে গেছে। তাই ক্যাম্প ভিওিক দোকান গুলো বন্ধ করে দেওয়ার দাবী জানান।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির কক্সবাজার শাখার সাধারণ সম্পাদক হাজী ওসমান গনি সাংবাদিকদের বলেছেন, উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প ভিত্তিক বাজারে অসংখ্য স্বর্ণের দোকান দেখে আমরাও রীতিমত অবাক হয়েছি। এসব দোকান গুলোতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোন হস্তক্ষেপ নেই। রোহিঙ্গারা এত বড় বড় দোকান খুলে নির্বিঘেœ অবৈধ ভাবে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা জানায়, যে কোন জুয়েলার্সের দোকান খোলার পূর্বে সরকারী প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ, ইনকাম ট্যাক্স, ট্রেড লাইসেন্স এমনকি পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নিতে হয়। কোন প্রকার সরকারী এসব ডকুমেন্টের তোয়াক্কা না করে রাতারাতি স্বর্ণের দোকান খুলে বসে কতিপয় স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা। তাদের সাথে আশ্রিত রোহিঙ্গারাও চোরাই স্বর্ণের ব্যবসা পরিচালনা করছে। তাতে মানা হচ্ছেনা এদেশের কোন আইনকানুন। বিভিন্ন সুত্রে নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজারের রামু উপজেলার মিঠাছড়ি, সাতকানিয়া, লোহাগড়া, চট্টগাম, টেকনাফের হ্নীলা, খারাংখালীসহ জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে অদক্ষ স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গত দুই বছরে শতাধিক দোকান চালু করেছে। এসব দোকানে নিম্নমানের ও নকল স্বর্ণ বিক্রি করে রোহিঙ্গা ক্রেতাদের কাছ থেকে লক্ষ-লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। শুধু তাই নয়, এসব স্বর্ণ দোকানের আড়ালে চোরা চালান ব্যবসায়ও জড়িত হয়েছে তারা।

ইয়াবা,বিভিন্ন অবৈধ মাদক সহ স্বর্ণ পাচারেরও গুরুতর অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। এছাড়াও স্বর্ণের মূল্যের তালিকা টাঙ্গিয়ে দেওয়ার নিয়ম থাকলেও কোন দোকানেই এ ধরনের তালিকা নেই। ইচ্ছামত স্বর্ণের দাম হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি উখিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি মিন্টু ধর ও সাধারণ সম্পাদক আশিষ ধর এসব বিষয়ে কোন ধরনের মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। পালংখালি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন ক্যাম্প ভিওিক স্বর্ণের দোকান গুলো বন্ধ করে দিতে হবে।

বালুখালি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত ক্যাম্প ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম শীঘ্রই অভিযান পরিচালনা করবেন বলে জানিয়েছেন। সচেতন মহলের দাবী রাতারাতি শতাধিক জুয়েলার্সের দোকানে আসলে স্বর্ণের ব্যবসার নামে কি চলছে প্রশাসনের পাশাপাশি রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা নজরদারী করলে আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে। অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা এসব স্বর্ণের দোকান স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত উঠিয়েছে। বিনা ট্যাক্সে স্বর্ণের ব্যবসা চালিয়ে গেলেও দেখার কেউ নেই। এ ব্যাপারে প্রশাসনের আশু নজরদারী কামনা করছেন সচেতন মহল।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নিকারুজ্জামান চৌধুরী রবিন বলেন এসব স্বর্ণের দোকান গুলোতে একবার অভিযান পরিচালনা করা হয়। দরকার হলে আবারো অভিযান চালানো হবে।

ad