ad

দেশের ৪০ তারকাশিল্পীকে হুমকি, থানায় জিডি

বাংলাদেশের ৪০ জন তারকাশিল্পী, কলাকুশলীর পাসপোর্ট ও জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি নেয়ার পর হুমকি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে লন্ডনের এক প্রবাসীর বিরুদ্ধে। লন্ডনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনের কথা বলে তিনি শিল্পীদের কাছ থেকে পাসপোর্ট ও জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি নেন বলে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।
হুমকি পাওয়া শিল্পীদের তালিকায় আছেন- চিত্রনায়ক ফেরদৌস, সংগীতশিল্পী ফাহমিদা নবী, আগুন, কনা, দিনাত জাহান মুন্নী, আঁখি আলমগীর, ইমরান, গীতিকার কবির বকুল, অভিনেত্রী সোহানা সাবাসহ আরও অনেকে।
হুমকি পাওয়া শিল্পীদের দেওয়া তথ্যমতে, গত মাসে লন্ডন থেকে মোবাইল ফোনে জুবাইর নামের এক ব্যক্তি নিজেকে প্রবাসী বাংলাদেশি পরিচয় দেন। পরিচয় দিয়ে ওই ব্যক্তি জানান, ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত লন্ডনে ‘বাংলাদেশ মেলা’ নামে সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজন করা হবে। নয়দিনের এই উৎসবে লন্ডনের তিনটি স্থানে অনুষ্ঠান আয়োজনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।
শিল্পীদের সূত্রে জানা গেছে, অনুষ্ঠানের বিষয়ে কথা বলতে ওই ব্যক্তির গতকাল (৩ সেপ্টেম্বর) ঢাকায় আসার কথা ছিল। তার আগেই তিনি যোগাযোগ করে প্রায় ৪০ জন শিল্পীর কাছ থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্টের ফটোকপিসহ আনুষঙ্গিক কাগজপত্র সংগ্রহ করেন। কাগজপত্র সংগ্রহ করার পরেই তিনি শিল্পীদের সঙ্গে দেখা না করে সবাইকে বার্তা পাঠিয়ে হুমকি দেওয়া শুরু করেন।
এ ঘটনায় গুলশান থানায় মঙ্গলবার রাতে হুমকি পাওয়া শিল্পীদের পক্ষে গীতিকার কবির বকুল একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। ডায়েরি নম্বর ২০৮ (০৩/০৯/২০১৯)। ডায়েরিতে হুমকি দেয়া এই ব্যক্তিকে প্রবাসী বাংলাদেশি এবং তার নাম জুবাইর বলে উল্লেখ করা হয়েছে।
জানা গেছে, ব্রিটিশ মুঠোফোন নম্বর থেকে শিল্পীদের সবার মুঠোফোনে বার্তা পাঠিয়ে এই হুমকি দেয়া হচ্ছে। মুঠোফোনে পাঠানো এসব বার্তায় ‘জুবাইর’ নাম উল্লেখ করা হচ্ছে।
বার্তায় জুবাইর অভিযোগ করেন, বাংলাদেশের একজন অভিনেত্রী এবং ওই অভিনেত্রীর ভাই প্রতারণা করে তার কাছ থেকে সাড়ে তিন কোটি টাকা নিয়েছে। শিল্পীদের সেই টাকা ফেরত দেয়ার ব্যবস্থা করতে বলেন। ফেরত না দিলে কোনো শিল্পী যেন দেশের বাইরে যেতে না পারেন, সেই ব্যবস্থা করবেন বলে হুমকি দেন।
এ ব্যাপারে গীতিকার কবির বকুলের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি আরটিভি অনলাইনকে বলেন, আমি সমস্ত শিল্পীর পক্ষ থেকে জিডিটি করেছি। এ সময় অন্যান্য শিল্পীরাও উপস্থিত ছিলেন। জিডি করার পরেও ওই ব্যক্তি শিল্পীদের এসএমএস করে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।
অভিযুক্ত ব্যক্তি এক অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে বিরাট অংকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনেছেন। এমন প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে কবির বকুল বলেন, সেটি একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা। এর সাথে শিল্পীদের হয়রানির কোনো প্রশ্নই ওঠে না। এটা আমাদের সঙ্গে প্রতারণা করা হচ্ছে। যেটি একদম ঠিক নয়।
গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম কামরুজ্জামান জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করে আরটিভি অনলাইনকে বলেন, তদন্ত করে বিষয়টির ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ad