ad

আলোকিত উখিয়ায় মানহানিকর সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন ইনানীর শাহজাহান

গত তিন সপ্তাহ ধরে দৈনিক আলোকিত উখিয়া নামক পত্রিকা এবং ওই পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আমাকে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে ভিন্ন ভিন্ন শিরোনাম দিয়ে জগন্য মিথ্যাচার চালিয়ে অপপ্রচার ও মানহানিকর সংবাদ প্রকাশ করায় আমি উক্ত অসত্য, কাল্পনিক ও ভূঁয়া সংবাদের জোর প্রতিবাদ ও তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।
প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। আমি কখনো কোন সময় ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত ছিলাম না বর্তমানেও নেই। এ ব্যবসাকে আমি মনে প্রানে ঘৃর্ণা করি। স্থানীয় পারিবারিক বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষগং প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে আক্রোশমূলক আমাকে এবং আমার নিস্পাপ দুইপুত্র আবদুল্লাহ ও জুনাইদ কে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে সংবাদপত্রে একের পর এক মিথ্যা সংবাদ ছাপিয়ে হয়রানী করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে যা খুবই দুঃখজনক।
প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে আমি ইনানী বটতলী ষ্টেশনে কাপড়ের দোকান চালু করে ব্যবসা করে আসতেছি। একই এলাকার মৌলভী শাহ আলমের পুত্র মোস্তাফা কামাল আজিজি নামক কথিত সংবাদ কর্মী পরিচয় দিয়ে আমার বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র শুরু করে। পারিবারিক শত্রুতা জের হিসাবে আমাকে ব্যবসায়ীক হয়রানি করার কু-উদ্দেশ্যে নিজেরা কাপড়ের দোকান খুলে বসে। তাতে ব্যর্থ হয়ে আমার বিরুদ্ধে ইয়াবার মিথ্যা অভিযোগ এনে কাল্পনিক সংবাদ আলোকিত উখিয়া নামক পত্রিকায় প্রকাশ করতে শুরু করে। শুধু তাই নয় আক্রোশ মূলক গত ২৭ এপ্রিল রাতে বাড়িতে ফেরার পথে হত্যার উদ্দেশ্যে আমার উপর হামলা চালানো হয়। মোস্তাফা কামাল আজিজির নেতৃত্বে সন্ত্রাসীদের এলো পাতাড়ি হামলায় আহত রক্তাত্ব অবস্থায় আমাকে উদ্ধার করতে এগিয়ে আসলে ছেলে আব্দুল কাদের ও জুনাইদ বাজার পাহারাদার নুরুল আলমকে হামলা করে সন্ত্রাসীরা।
রক্তাত্ব অবস্থায আমাকে ও পাহারাদার নুরুল আলম কে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে মোস্তাফা কামাল আজিজি সহ ৪ ব্যক্তির বিরুদ্ধে উখিয়া থানায় এজাহার দায়ের করি।
ঘটনার সূত্রপাত হচ্ছে, মোস্তাফা কামাল আজিজি এক সময় সাগর পথে ট্রলার যোগে মালেশিয়ায় আদম পাচারে জড়িত ছিল। এক পর্যায়ে তিনিও মালেশিয়ায় চলে যায়। ২/১ বছর পর তিনি পুনরায় চলে আসে। ২০১৭ সালে মিয়ানমার থেকে নির্যাযিত রোহিঙ্গারা কুতুপালং ক্যাম্প সহ বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নিলে মালেশিয়ার একটি দাতা সংস্থা সাহায্য করতে আসে। ওই সময় মোস্তাফা কামাল আজিজি ও আমার সাথে পরিচয় হয় ওই সংস্থার লোকদের। প্রস্তাব অনুযায়ী উভয় মিলে ত্রাণ সামগ্রী ক্রয় করার কথা থাকলেও আজিজি মালয় ভাষা জানার করণে নামে মাত্র ত্রাণ সামগ্রী ক্রয় করে রোহিঙ্গাদের মাঝে বিতরণের নামে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে। আমি ওই ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়ে তিনি আমার পিছনে সাংবাদিক লেলিয়ে দিয়ে মিথ্যা সংবাদ প্রচার করে যাচ্ছে।
সংশ্লিষ্ট প্রসাশনের নিকট সবিনয় এর সহিত বলতে চাই আলোকিত উখিয়া নামক ওই পত্রিকায় গত ৩ সপ্তাহ ধরে একই নিউজ শিরোনাম বদলিয়ে প্রচার করা সংবাদ পত্রের নীতিমালায় আছে কি না। মূলত ওই পত্রিকার একটি গ্রুপ আমার কাছ থেকে মোটা অংকের চাঁদা দাবী করেছিল। আমি চাঁদা দিতে অপরগতা প্রকাশ করলে একের পর এক মিথ্যা ও মনগড়া সংবসাদ প্রচার করে আমার ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।
আমি জালিয়াপালং ইউনিয়ন ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক । দীর্ঘদিন ধরে কাপড়ের দোকানের ব্যবসার পাশাপাশি ইনানী ও টেকনাফ সী বীচ এলাকায় জমিন ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যবসার সাথে জড়িত। এছাড়াও মহেশখালী মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের জন্য ভূমি অধিগ্রহণকৃত জায়গায় আমার মা ও স্ত্রীর পৈত্রিক জায়গা হতে ক্ষতিপূরণের টাকা বরাদ্দ পায়। এমতাবস্থায় আমাদের বিরুদ্ধে প্রকাশিত মিথ্যা সংবাদের জোর প্রতিবাদ ও তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। পাশাপাশি কাল্পনিক মনগড়া ও ভূঁয়া সংবাদ পড়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিকট আমার অনুরোধ রহিল।

প্রতিবাদকারী
মো: শাহজাহান
মালিক- আহমদ মাহমুদুল হাসান বস্ত্র বিতান
বড় ইনানী,
জালিয়াপালং, উখিয়া।

ad