প্রকাশিত: ০৮/০৯/২০১৬ ৯:২০ পিএম

বার্তা পরিবেশক::
টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা দক্ষিন রংগীখালী এলাকার মকবুল আহমদের ছেলে নুরুল ইসলাম হত্যা মামলার আসামীরা এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে।
আসামীরা মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বাদীকে প্রতিনিয়ত হুমকি দিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা সমর্থকদের প্রীতি ফুটবল খেলায় তুচ্ছ ঘটনার ১৫ দিন অতিবাহিত হলেও আসামীরা গ্রেপ্তার না হওয়ায় তারা আরো বেপরোয়া হয়ে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বাদীকে প্রতিনিয়ত হুমকি ধমকি দিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন মামলার বাদী সোনা আলী। তিনি আরো বলেন, আসামীরা তাকে বাড়ি থেকে বের হতে দিচ্ছেনা। তারা সবসময় ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে প্রাননাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার পর আসামীরা গ্রেপ্তারের ভয়ে কয়েকদিন গাঁ ঢাকা দিয়ে থাকলেও এখন তারা এলাকায় এসে তাকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য নানা হুমকি দিয়ে যাচ্ছে বলে তিনি সাংবাদিকদের অভিযোগ করেছেন। এ ঘটনায় তিনি আসামীদের গ্রেপ্তারের দাবী জানিয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

উল্লেখ্য গত ২৪ আগস্ট লবণের মাঠে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা সমর্থকদের প্রীতি ফুটবল খেলায় গোল দেয়াকে কেন্দ্র কাটাকাটির ঘটনায় তাকে পিটিয়ে আহত করে। পরে ২৫ আগস্ট কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে পুলিশ হেফাজতে নুরুল ইসলাম মৃত্যুবরণ করেন।

এ ঘটনায় গত ২৬ আগস্ট নিহত নুরুল ইসলামের বড় ভাই বাদী হয়ে ১১ জনের বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় ১টি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এতে বাদীর চিহ্নিত ও সন্দেহের আসামীরা হলেন, একই এলাকার আবদু শুক্কুরের ছেলে শামসুল আলম (৩৫) (প্রকাশ আটা ভাই), তার বড় ভাই নুরুল আলম (৩৮) প্রকাশ গুটি আলম, মৃত কাছিম আলীর পুত্র কামাল হোসেন (২৮) প্রকাশ বসসিয়া, তার ছোট ভাই মকতুল হোসন (২০) ও দেলোয়ার হোসন (২৩) প্রকাশ লুলাইয়া, মৃত আবদু সাত্তারের ছেলে জাফর আলী (৫৫), তার ছেলে ছৈয়দ আহমদ (৩৫) ও শেখ আহমদ (৩০) প্রকাশ মম্বিয়া, মোহাম্মদ হোছনের ছেলে ওসমান (৩৫) ও ইব্রাহীম (৩০), জাফর আলমের ছেলে বেলাল ( ৩০) এর নাম এজাহারে রয়েছে।

এ বিষয়ে টেকনাফ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুল মজিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মামলার আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। যে কোনভাবে তাদেরকে গ্রেফতার করা হবে।

পাঠকের মতামত

উখিয়ায় ৩ জনের সিন্ডিকেট দ্রব্যমূল্য বাড়াচ্ছে, প্রশাসনের নজরদারি নেই

উখিয়ায় নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী গুদামজাত করে রমজানে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির পায়তারা করে যাচ্ছে কয়েকজন পাইকারি ...