উখিয়া নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪/১২/২০২৩ ১:০৯ পিএম

কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জাফর আলমের কৃষি খাতে আয় সাড়ে তিন গুণ বেড়েছে। গত নির্বাচনে কৃষিখাত থেকে জাফর আলমের আয় ছিল ১৪ লাখ ১০ হাজার টাকা। এবার আয় দেখিয়েছেন ৪৯ লাখ ২৩ হাজার ৫০১ টাকা। পাঁচ বছর আগে যেখানে তাঁর এক শতাংশ কৃষি জমিও ছিল না, সেখানে এখন তিনি দেড় একর (১০০ শতাংশে ১ একর) জমির মালিক।

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ ও একাদশ সংসদ নির্বাচনের হলফনামা বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য জানা গেছে।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে গত বছরের ২৪ আগস্ট জাফর আলম, তাঁর স্ত্রী শাহেদা বেগম, ছেলে তানভীর আহমদ সিদ্দিকী তুহিন ও মেয়ে তানিয়া আফরিনকে তলব করেছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) কক্সবাজার জেলা সমন্বিত কার্যালয়ের উপপরিচালক মনিরুল ইসলাম। গত ৪ সেপ্টেম্বর জাফর আলমসহ অভিযুক্ত চারজন দুদক কার্যালয়ে হাজির হয়ে সম্পদের বিবরণ তুলে ধরেন।

চকরিয়া পৌরসভার পালাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শাহেদা বেগম রাতারাতি কোটিপতি বনে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে তখন সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে লেখালেখি হয়েছিল বেশ।

চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলম স্নাতকোত্তর পাস। পেশায় ব্যবসায়ী ও মৎস্যচাষি এই জনপ্রতিনিধি প্রথম আলোকে বলেন, বৈধভাবে ব্যবসা করে তিনি ও তাঁর স্ত্রী সম্পদের মালিক হয়েছেন। চিংড়িঘের, লোকজনের জায়গাজমি দখল কিংবা চাঁদাবাজির অভিযোগ ডাহা মিথ্যা। দুদকের তদন্তেও অভিযোগের সত্যতা মিলেনি।

পাঁচ বছর আগে জাফর আলমের বাড়ি থেকে আয় ছিল না। তখন ব্যবসা থেকে তাঁর আয় ছিল তিন লাখ টাকা। এবার বাড়ি ও দোকান ভাড়া দেখানো হয়েছে ৮ লাখ ১৯ হাজার ৫৬০ টাকা, নির্ভরশীলদের আয় ৬ লাখ ৭২ হাজার টাকা। ব্যবসা থেকে জাফর আলমের আয় ২৪ লাখ ৭৯ হাজার ৬৮০ টাকা। স্ত্রীর আয় ২ লাখ ৭ হাজার ৮৮২ দশমিক ৬৩ টাকা দেখানো হয়।

পাঁচ বছর আগে ব্যাংক আমানত থেকে জাফর আলমের আয় ছিল ২৪ হাজার ৬৪৬ টাকা। নগদ টাকা ছিল ৪১ লাখ ৪৫ হাজার ৫১১ টাকা। স্ত্রীর নামে নগদ টাকা দেখানো হয় ১০ হাজার টাকা। জাফর আলমের নামে তখন ব্যাংকে জমা ছিল ১ লাখ টাকা। স্ত্রীর নামে জমা ছিল ৩০ লাখ টাকা। জাফর আলমের বিমা সঞ্চয় ছিল ২৪ হাজার ৬৪৬ টাকা। ছিল ১০ লাখ ৫০ হাজার টাকা দামের পাজেরো জিপ একটি। স্ত্রীর নামে সোনা ছিল ১০ ভরি।

এবারের হলফনামায় জাফর আলমের নগদ টাকা দেখানো হয় ৪০ লাখ টাকা। স্ত্রীর নামে ২০ লাখ টাকা। আর নির্ভরশীলদের নামে পাঁচ লাখ টাকা।

জাফর আলমের নামে ব্যাংকে জমা আছে ১ লাখ ১৯ হাজার ২৪৮ টাকা। স্ত্রীর নামে আছে ২৮ লাখ ৭৫ হাজার ৫০১ টাকা। জাফর আলমের নিজের নামে চিরিঙ্গা বহুমুখী সমবায় সমিতির শেয়ার আছে ১ হাজারটি। স্ত্রীর নামে সঞ্চয়পত্র, এফডিআর আছে ১৮ লাখ টাকার। জাফর আলমের নিজের নামে ১ কোটি ২৩ লাখ ১০ হাজার টাকা দামের গাড়ি আছে দুটি। সোনা আছে ১০ ভরি, স্ত্রীর নামে সোনা দেখানো হয়েছে ৩০ ভরি, নির্ভরশীলদের নামে ৩০ ভরি।

পাঁচ বছর আগে জাফর আলমের কৃষি জমি ছিল ৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা দামের দশমিক ০২৪০ শতক। স্ত্রীর নামে ছিল ৪০ হাজার টাকা দামের দশমিক ০২০ শতক জমি। জাফর আলমের নিজের নামে অকৃষি জমি ছিল ১৬ লাখ ৫ হাজার ১৫০ টাকা দামের দশমিক ০৬৯৫ শতক। স্ত্রীর নামে ছিল ৩০ লাখ টাকা দামের দশমিক ০৩০ শতক। জাফর আলমের নিজের নামে ২ লাখ টাকার একটি আবাসিক বাড়ি, ৪০ হাজার টাকা দামের ২০ একরের ইজারাপ্রাপ্ত একটি চিংড়ি খামার দেখানো হয়। দায়দেনাও ছিল না।

এবার এই সংসদ সদস্যের নামে কৃষি জমি দেখানো হয়েছে ৬৩ লাখ ১৫ হাজার ৬২৫ টাকা দামের ১৫০ দশমিক ৩৪ শতক জমি। স্ত্রীর নামে ৫০ লাখ ৩ হাজার ৩২০ টাকা দামের ৬১৯ শতক জমি। যৌথ মালিকানায় জাফর আলমের মূলধন (শেয়ার অংশ) দেখানো হয় ১ কোটি ৩৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা। সুত্র: প্রথম আলো

পাঠকের মতামত

চট্টগ্রাম মেডিকেলে চান্স পেয়েছেন সাবেক ভাইস-চেয়ারম্যান কন্যা তাসপিয়া

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুরুল আবছারের কনিষ্ঠতম কন্যা ও এনজিও সংস্থা সেভ’র হেড ...

সীমান্তে উদ্ধারকৃত দু’টি মর্টার শেল নিষ্ক্রিয় করল সেনাবাহিনী

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি তুমব্রু সীমান্তে বিজিবির উদ্ধার করা অবিস্ফোরিত দু’টি মর্টার শেল নিষ্ক্রিয় করেছে সেনাবাহিনীর বোমা ...