প্রকাশিত: ২৩/০২/২০১৭ ১০:১১ পিএম

এম.বশিরুল আলম,লামাঃ
বান্দরবানের লামায় ৩৮ তম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ অনুষ্টিত হয়েছে। বৃহস্পতিাবর সকাল থেকে উপজেলা পাবলিক হলে এ মেলার আয়োজন করে উপজেলা প্রশাসন। মাটির পাত্র’র চারদিকে বালি মাটি-পানি দিয়ে- কিভাবে ফ্রিজের সুফল ভোগ করা যায়, বৈদ্যুতিক ব্যবহার ব্যতিত বরফ তৈরি, আলু-লেবু থেকে বিদ্যুত উৎপন্ন, লবন ব্যবহারের মাধ্যমে মোমবাতির স্থায়িত্ব (লামা আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়)। সমুদ্রে পানির উচ্চতা সম্পর্কে সতর্ক করণ যন্ত্র উদ্ভাবন, মাটির আদ্রতা পরিক্ষা যন্ত্র উদ্ভাবন, গ্রীণ হাউজ সম্পর্কে ধারণা, প্রকৃতির সহয়তায় নিরাপদ সড়ক, ঘন বসতিপূর্ন পরিবেশে-কলকারখানা, বিমান বন্দর, স্থাপনা নির্মাণের উপযুগি প্রযুক্তিগত ধরণ ইত্যাদি বিষয়গুলোর উপর বিভিন্ন বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রীদের সমন্বয়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ব্যবহার নিয়ে স্টল সাজানো হয়। লামা উপজেলার মাধ্যমিক পর্যায়ে পড়–য়া ক্ষুদে বিজ্ঞানিদের মস্তিস্কের উদ্ভাবনী প্রতিভা মুগ্ধ করেছে সবাইকে।

সকাল ১১ টায় ছাত্র/ছাত্রীদের অংশ গ্রহনে উপজেলা সভাকক্ষে “উন্নত আগামীর জন্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি” শীর্ষক বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে সকাল ১০টায় উপজেলা চেয়ারম্যান ও  নির্বাহী অফিসার মেলার উদ্বোধনোত্তর স্টল পরিদর্শন করেন। এসময় উপজেলা প্রকৌশলী মোবারক হোসেন, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান ভুইয়া, বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম ইমতিয়াজ, ফরেষ্টার হারুনুর রশীদ বাবলু প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। বিকাল সাড়ে তিনটায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার খিনওয়ান নু-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা শেষে অংশ গ্রহনকারীদের মাঝে পুরুস্কার বিতরণ করা হয়। এতে লামামুখ উচ্চ বিদ্যালয় ১ম, লামা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ২য় ও আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ৩য় হওয়া গৌরব অর্জন করেন। প্রসঙ্গত: ১৯৮২ সালে লামা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় জাতীয় পর্যায়ে পুরুস্কার পেয়েছিলেন। সূতরাং বলা যায়, লামা উপজেলায় ক্ষুদে বিজ্ঞানিদের মাঝে অভাবনীয় প্রতিভা বিরাজ করছে।

পাঠকের মতামত