প্রকাশিত: ২৬/০৮/২০১৭ ৫:৩৪ পিএম , আপডেট: ১৭/০৮/২০১৮ ২:৩২ পিএম

ডেস্ক রিপোর্ট ::
শুক্রবার মিয়ানমারের রাখাইনে সহিংসতায় কমপক্ষে ৮৯ জন নিহত হওয়ার পর প্রতিশোধ না নিতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিদার নুয়ার্ট বলেছেন, যেহেতু নিরাপত্তা রক্ষাকারীরা আরো সহিংসতা প্রতিরোধে ও অপরাধীদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করাতে পদক্ষেপ নিয়েছে, সেহেতু তাদেরকে আইনের শাসন, মানবাধিকার সুরক্ষা ও মৌলিক স্বাধীনতার প্রতি সম্মান দেখাতে হবে। মিয়ানমারে ৩০টি নিরাপত্তা চৌকিতে জাতিগত রোহিঙ্গা উগ্রপন্থিরা হামলা চালায় শুক্রবার। এ ঘটনায় নিহত হন কমপক্ষে ৮৯ জন। এর মধ্যে রোহিঙ্গা মুসলিম ৭৭ জন। নিরাপত্তা রক্ষী ১২ জন। যুক্তরাষ্ট্র বলছে, মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ যদি এ ঘটনার প্রতিশোধ নেয়া থেকে তাহলে উত্তেজনা আরো বৃদ্ধি পেতে পারে। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এপি। ওদিকে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচির অফিস থেকে শুক্রবার বলা হয়েছে, ‘ক্লিয়ারেন্স অপারেশন’ পরিচালনার মাধ্যমে হামলার জবাব দিচ্ছে সেনাবাহিনী ও সীমান্ত রক্ষীরা। তবে ‘ক্লিয়ারেন্স অপারেশন’ বলতে তিনি আসলে কি বোঝাতে চেয়েছেন তা পরিষ্কার নয়। এর আগে গত বছর অক্টোবরের ঘটনায় রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর অকথ্য নির্যাতন শুরু হলে একে ‘এথনিক ক্লিনজিং’ বা জাতিগত রোহিঙ্গাদের নির্মূল অভিযান বলে আখ্যায়িত করেছিল আন্তর্জাতিক মহল। ওই সময় সরকার এমন অভিযোগ অস্বীকার করে। রাখাইনের মংডুর একজন প্রত্যক্ষদর্শী ফোনে বলেছেন, শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টার দিকে তার গ্রামে প্রবেশ করেছে সেনাবাহিনী। তারা বাড়িঘর, সহায় সম্পত্তি জ্বালিয়ে দিচ্ছে। গুলি করে হত্যা করেছে কমপক্ষে ১০ জনকে। প্রত্যক্ষদর্শী ওই ব্যক্তি নিজেকে শুধু ডাকনাম এমার বলে পরিচয় দেন। তার আশঙ্কা পুরো নাম প্রকাশ করলে তার ওপর প্রতিশোধ নেয়া হতে পারে। তিনি বলেছেন, গ্রামবাসী যে যেদিকে পারছেন পালাচ্ছেন। তবে বেশির ভাগ মানুষ ছুটছেন পাহাড়ের দিকে। গুলির শব্দ, বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যাচ্ছিল। তিনি আরো বলেন, শুক্রবার রাতেও অগ্নিকুণ্ডলি ও ধোয়া দেখা গেছে আকাশে। ওদিকে মিয়ানমারের নিরাপত্তা রক্ষাকারীদের ওপর হামলার দায় স্বীকার করেছে উগ্রপন্থি আরাকান রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মি। তারা বলেছে, রোহিঙ্গাদের ওপর সরকারি বাহিনী নৃশংসতা চালাচ্ছে। তাই তাদের প্রতিরক্ষায় তারা বৃহস্পতিবার রাতে নিরাপত্তা রক্ষাকারীদের ওপর হামলা চালিয়েছে। বলেছে, এর মাধ্যমে তারা রোহিঙ্গাদের অধিকারের বৈধতা দিতে চায়। এ হামলাকে অং সান সুচি সন্ত্রাসী হামলা বলে উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন, যারা রাখাইনে শান্তি ও সম্প্রীতি জান তাদের উদ্যোগকে খর্ব করার জন্য এ হামলা চালানো হয়েছে।

পাঠকের মতামত

‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখর হবে আরাফাতের ময়দান

ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরায়েলের নারকীয় হামলায় হাজার হাজার মানুষ নিহত হওয়ায় শোকাবহ পরস্থিতিতে পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা ...

ইসরায়েলিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে মালদ্বীপ

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় আগ্রাসন চালানোর কারণে ইসরায়েলিদের প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছে মালদ্বীপ ...