প্রকাশিত: ২৮/০৮/২০১৭ ৬:৩৮ এএম , আপডেট: ১৭/০৮/২০১৮ ২:২৯ পিএম

স্টাফ রিপোর্টার, নাইক্ষ্যংছড়ি :

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড উত্তর করলিয়ামুরা গ্রামে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ৭০ বছরের এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার দিবাগত রাত ৮টা ৪০মিনিটের সময় ইউনিয়নে উত্তর করলিয়ামুরা গ্রামের রাশেদা বেগমের বাড়ী সংলগ্ন চলাচলের রাস্তায়। নিহত ব্যক্তি রামু উপজেলার ঈদগড় ইউনিয়নের করলিয়ামুরা গ্রামের বাসিন্দা মৃত হেদায়ত আলমের পুত্র নজির আহাম্মদ (৭০) প্রকাশ নজির ফকির। নিহতের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম জানান, প্রতিদিনের ন্যায় জালাল চেয়ারম্যানের রাস্তার মাথা নামক স্থানে নিজ মুদির দোকান বন্ধ করে বাড়ী ফেরার পথে উত্তর করলিয়ামুরা বাড়ীর কাছাকাছি পৌঁছলে ৫/৭ জনের একদল লোক সশস্ত্র অবস্থায় তার স্বামীকে দা দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। এসময় তার আর্ত্বচিৎকারে পাশ্ববর্তী বাড়ীর লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।
প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ হাসেম, মাওলানা আব্দুর রহমান, নুর কমলা বেগমসহ অনেকেই জানান, শনিবার রাত ৮টা ৪০ মিনিটের সময় তারা আর্ত¡চিৎকার শুনতে পেয়ে বাড়ী থেকে বেরিয়ে আসলে তাদেরকে সন্ত্রাসীরা তাড়া করে নিয়ে যায় এবং এ সুযোগে সন্ত্রাসীরাও পালিয়ে যায়। যার কারণে তারা কাউকে চিনতে পারেনি। কিছুক্ষণ পর তারা এসে দেখতে পায় নজির আহাম্মদ রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে আছে। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উদ্ধার পূর্বক প্রথমে ঈদগড় বাজারে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে অবস্থার অবনতি ঘটায় কক্সবাজার সদর হাসপাতাসে ভর্তি করা হয়। রাত ১২টা ২০ মিনিটের দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরপরই খবর পেয়ে বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোঃ আবু মুসা সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনা স্থলে পৌঁছান। এ সময় তিনি হত্যাকারীদের ধরতে সম্ভাব্য স্থানে অভিযানও পরিচালনা করেন। তবে পুলিশ কাউকে আটক করতে পারে নাই। এছাড়া খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন বাইশারী ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলম ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আনোয়ার ছাদেক, ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি আবুল কালাম। তারা বলেন, দীর্ঘকাল যাবত নিহত নজির ফকিরের সাথে একটি পক্ষের জায়গা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল।
অপরদিকে নিহতের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম জানান, তার স্বামীর সাথে দীর্ঘদিন যাবত পাশ্ববর্তী গ্রামের বাসিন্দা মোঃ হোছেনের সাথে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। উক্ত ঘটনায় উভয়ে মামলা পাল্টা মামলা করেন নাইক্ষ্যংছড়ি ও রামু থানায়। এ নিয়ে মোঃ হোছেন বর্তমানে কক্সবাজার জেল হাজতে রয়েছে। উক্ত ঘটনায় নজির আহাম্মদ নিজেই বিরোধীয় পক্ষের সাথে ঘটনার নিস্পত্তি করতে বৈঠকের জন্য বাড়ীতে আসার পথে প্রতিপক্ষরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানান। স্ত্রী আরো বলেন, তারাই পথিমধ্যে আমার স্বামীকে এলোপাতাড়ী কুপিয়ে হত্যা করেছে। উক্ত ঘটনায় শনিবার রাত ১১টায় সাতজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরো তিনজনের বিরুদ্ধে নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় একখানা মামলা দায়ের হয়েছে। যার মামলা নং- ৯, ২৬/০৮/২০১৭ইং।
নাইক্ষ্যংছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম তৌহিদ কবির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রথমে রাত ১১টার দিকে মারামারি সংক্রান্ত একটি মামলা রুজু হয়। রাত ১২টার দিকে নজির আহাম্মদ মারা যাওয়ায় মামলাটি হত্যা মামলায় রুপান্তরিত হয়েছে।

পাঠকের মতামত

সেন্টমার্টিনে কোস্ট গার্ড কর্তৃক বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণ

মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ তারিখ দুপুরে কোস্ট গার্ড সদর দপ্তরের মিডিয়া কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার খন্দকার ...