প্রকাশিত: ১৮/০৮/২০১৬ ৯:৪৭ পিএম

pic Ukhiya 18-08-2016 [Max Width 320 Max Height 240]ফারুক আহমদ, উখিয়া ::
উখিয়ায় গ্রাম আদালতের বিচারিক কার্যক্রম আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু হয়েছে। বর্তমান সরকার উচ্চ আদালতে মামলার জট নিরসন করার লক্ষ্যে  ইউনিয়ন পর্যায়ে গ্রাম আদালত কার্যক্রম চালু করে। তার ধারাবাহিকতায় গ্রামের মানুষের ন্যায় বিচার প্রতিষ্টায় গত বৃহস্পতিবার রতœাপালং ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে গ্রাম আদালত শুরু করা হয়।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায় উচ্চ আদালতে দিন দিন মামলা মোকদ্দমা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে করে আদালতে আসা যাওয়া ও মামলার জটের কারণে দীর্ঘ সুত্রিতার পাশাপাশি আর্থিক ক্ষতিগ্রস্তের সম্মুখিন হচ্ছে বিচার প্রার্থীরা। আইন মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার বিভাগ মামলার জট থেকে পরিত্রাণ করার লক্ষ্যে সারা দেশে ইউনিয়ন পরিষদ সমূহে গ্রাম আদালত চালু করেছে। উচ্চ আদালতের মামলার জট নিরসন ও গ্রামের মানুষের সহজ উপায়ে ন্যায় বিচারের স্বার্থে জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে জনগণের দূর্ভোগ লাঘবের লক্ষ্যে গ্রাম আদালতের বিচারকি কার্যক্রম গতকাল উখিয়ার রতœাপালং ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়।
পরিষদের চেয়ারম্যান মো: খাইরুল আলম চৌধুরীর সমন্বয়ে গঠিত ৫সদস্য বিশিষ্ট বিচারকি বেঞ্চ নিয়ে গ্রাম আদালতের বিচারিকি কার্যক্রম রতœাপালং ইউনিয়ন পরিষদের অনুষ্টিত হয়। এ সময় বাদীপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন মেম্বার মোকতার আহমদ ও সাবেক মেম্বার বাদশা আলম বিবাদী পক্ষে কৌশলী হিসাবে অংশ গ্রহণ করেন মেম্বার নুরুল হক মনু ও সাবেক মেম্বার আকতার কামাল চৌধুরী। চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে গঠিত বিচারকি বেঞ্চ ৪টি মামলার কার্যক্রম নিষ্পত্তির পর আদালত মুলতবি ঘোষনা করে আগামী বুধবার পুনরায় গ্রাম আদালত বসার ঘোষণা করা হয়। নতুন গ্রাম আদালতের বিচারকি কার্যক্রমে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সুশিল সমাজের নেতৃবৃন্দ ও মেম্বারগন উপস্থিত ছিলেন। গ্রাম আদালত পরিচালনায় সহযোগীতায় ছিলেন রতœাপালং ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মো: আবু সুফিয়ান। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে রতœাপালং ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও বিচারকি কার্যক্রম বেঞ্চের প্রধান মো: খাইরুল আলম চৌধুরী সাংবাদিকদের কে বলেন স্থানীয় সরকার বিভাগ গ্রাম আদালতের মাধ্যমে গ্রামের মানুষের ন্যায় বিচার নিশ্চিত করার জন্য যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে তা একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। গ্রাম আদালতে বিচারকি কার্যক্রমের ফলে উচ্চ আদালতে মামলার জট নিরসন ও ভোক্তভোগী বিচার প্রার্থীরা হয়রানী থেকে রেহাই পাবে।

পাঠকের মতামত