ইমার্জিং কাপ থেকে ভারতের বিদায়

শেষ ওভারে জয়ের জন্য ভারতের প্রয়োজন ছিল ৮ রান। উইকেটে আহামরি কোন ব্যাটসম্যান ছিলেন না। দুজনই টেল এন্ডার। পাকিস্তানের মারমার কাটকাট পেসের সামনে তাদের ব্যাটে জয় দেখা হয়ত ধৃষ্টতারই শামিল কিন্তু খেলাটি যেহেতু ক্রিকেট সেহেতু ভরসা না করারও কোন কারণই ছিল না। যা হোক, ৫ বলে এল ৩ রান। শেষ বলে প্রয়োজন ছিল ৫। স্ট্রাইকে থাকা সিদ্ধার্থ দেশাই আমাদ বাটের ওই বলে নিতে পারলেন মাত্র ১টি রান। মাঠের প্রতিটি এন্ড থেকে দৌঁড়ে স্ট্যাম্প তুলে বিজয়উল্লাস শুরু করে দিল পাকিস্তান।

ইমার্জিং এশিয়া কাপের প্রথম সেমি ফাইানালে চির প্রতিদ্বন্দ্বি পাকিস্তানের কাছে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল ভারত। আর ভারতের বিপক্ষে ৩ রানের জয়ে প্রথম দল হিসেবে ফাইনালে নিশ্চিত করল রোহাইল নাজির ও তার দল। রোহাইলদের দেওয়া ২৬৮ রানের লক্ষ্য ছুঁতে নেমে রবি শরথ ও তার গুটিয়ে গেল ২৬৪ রানে। আগামি ২৩ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় ফাইনালে পাকিস্তানের প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ অথবা আফগানিস্তান।

বুধবার (২০ নভেম্বর) শের ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ওপেনার ওমর বিন ইউসুফের ৬৬, সাইফ বাদারের অপরাজিত ৪৭ ও হায়দার আলীর ৪৩ রানে ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২৬৭ রানের সংগ্রহ পায় পাকিস্তান।

ভারতের হয়ে শিভাম মাভি, সৌরভ দুবে, রৃত্তিক সোকিন ২টি করে ও সিদ্ধার্থ দেশাই ১টি উইকেট নিয়েছেন।

জয়ের জন্য ২৬৮ রারে লক্ষ্যে খেলতে নেমে পাক পেস ও স্পিন ঘূর্ণিতে নাকাল হয় ভারতের ব্যাটিং বিভাগ। সানভির সিংয়ের ৭৬ রানের ইনিংসটি বাদ দিলে বলার মত কোন স্কোরই নেই! নেই কোন জুটিও। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৭ রানের ইনিংসটি এসেছে অধিনায়ক রবি শরথ এর ব্যাট থেকে। ৪৩ বল খেলে ৬টি চার ও একটি ৬’র মারে তিনি এ সংগ্রহ পেয়েছেন।

এদিকে পাকিস্তানের হয়ে বল হাতে মোহাম্মদ হাসনাইন, সাইফ বাদার ২টি করে এবং উমর খান ও আমাদ বাট ১টি করে উইকেট নিয়েছেন।

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন