সৈকতে পর্যটকদের খোঁজ খবর নিলেন ডিসি কামাল হোসেন

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ও হোটেল মোটেল জোন পরিদর্শন করে পর্যটকদের সাথে কুশল বিনিময় করলেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন। রোববার ১০ নভেম্বর সমুদ্র সৈকত পরিদর্শন কালে তাঁকে পর্যটকেরা জানান, উপকূলীয় এলাকায় সিগন্যাল দেওয়ার কথা অনেক শুনেছেন, সিগন্যাল দিলে সাগর কেমন থাকে, স্থলের দূর্যোগকালীন আবহাওয়া তা তারা কোনদিন দেখেননি। এজন্য এ বিষয়ে পর্যটকদের বেশ কৌতুহল ছিলো। এবার কক্সবাজার বেড়াতে এসে তারা তা প্রত্যক্ষভাবে পর্যবেক্ষন করে বেশ আনন্দ উপভোগ করেছেন। পরিদর্শনের সময় তিনি পর্যটকদের বেশ স্বাচ্ছন্দ্যে ও আনন্দে সৈকতে ঘুরাঘুরি করতে দেখেন বলে জানান। ডিসি মোঃ কামাল হোসেন এসময় পর্যটকদের সাগর উত্তাল থাকাবস্থায় সাগরে গোসল করতে না নামতে এবং রাতে সৈকতে না থাকতে পরামর্শ দেন। তিনি বীচকর্মী, রেসকিউ টিম, টুরিস্ট পুলিশ সহ দায়িত্বশীল সংশ্লিষ্ট সকলকে এ বিষয়ে কঠোর নজরদারি করার নির্দেশ দেন। হোটেল, মোটেল, রেস্তোরাঁ, ফটোগ্রাফার, দোকানী, ব্যবসায়ী কিংবা অন্য কারও দ্বারা পর্যটকেরা বিন্দু পরিমাণ হয়রানির শিকার হলে অথবা কোন সংকটে পড়লে নির্ভয়ে তাৎক্ষণিক জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেল, টুরিস্ট পুলিশ সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করার অনুরোধ জানান ডিসি মোঃ কামাল হোসেন। অহেতুক পর্যটকদের হয়রানি করা হলে, কোন অবস্থাতেই জেলা প্রশাসন তা সহ্য করবেনা। তিনি বলেন, পর্যটক ও দর্শনার্থীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিতে প্রশাসন বদ্ধ পরিকর। হোটেল মোটেল মালিক, পর্যটন ব্যবসায়ীদের কাছে ডিসি মোঃ কামাল হোসেন জানতে পারেন, একটানা ৩ দিন সরকারি ছুটি থাকায় কক্সবাজারে এবার লক্ষাধিক পর্যটক বেড়াতে এসেছিলেন। তাদের কেউই কোন জায়গায় আটকা পড়েনি, সবাই নিরাপদে ছিলেন। যারা চলে যেতে চেয়েছে, সড়ক ও আকাশপথ সবসময় খোলা থাকায় তারা অতি সহজে গন্তব্যে যেতে পেরেছে। আর যারা থেকেছে, তারা সোমবার অফিস আদালত খোলা থাকায় রোববার ১০ নভেম্বর বিকেল থেকে গন্তব্যে যাওয়া শুরু করেছে।

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন