ad

ক্যাসিনো, মদ, জুয়া, প্রেক্ষিত বর্তমান হালচাল

মাওলানা মুফতী রিদওয়ানুল কাদির

মসজিদের শহর ঢাকার করুণ অবস্থা!

ঢাকা মসজিদের শহর। এই শহরে যত মসজিদ আছে, বলা হয় বিশ্বের অন্য কোনো শহরে এত মসজিদ নেই। এটা ঢাকার অত্যন্ত সম্মানজনক বিশেষ একটি পরিচিতি এবং এজন্য বাংলাদেশের মানুষ গর্ব করে থাকে। বিশ্বে অর্ধশতাধিক মুসলিম দেশ আছে। সে সব দেশে রাজধানী ছাড়াও বহু বড় বড় শহর আছে। কিন্তু কোনো শহরেই এত মসজিদ নেই। মসজিদের অধিক্য ঢাকার ঐতিহ্যের অবিচ্ছেদ্য অংশ।

এই ঐতিহ্য, এই গৌরবময় পরিচিতি আজ ম্লান। এই শহর এখন ক্যাসিনো জুয়ার শহর হিসাবে পরিচিতি পেয়েছে।

কিন্তু কেনন?
কারণ, সম্প্রতি ক্যাসিনো জুয়ার বিরুদ্ধে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে বিভিন্ন ক্লাব ও স্থানে অবৈধ ক্যাসিনোর সন্ধান পাওয়া গেছে। ঢাকার ৬০টি ক্লাবে ক্যাসিনো আছে বলে জানা গেছে। এক খবরে বলা হয়েছে, এই ৬০টি ক্যাসিনোতে দৈনিক লেনদেনের পরিমাণ গড়ে ৫০০ কোটি টাকার উপরে। ঢাকার বাইরের ক্লাবগুলোকে গণনায় আনলে এর পরিমাণ দাঁড়াবে হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি। ক্লাবগুলো ছাড়াও ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা প্রভৃতি বড় শহরে আরো বহু ক্যাসিনো জুয়ার আড্ডা বা স্থান রয়েছে। ঢাকাতে অন্তত ২৫টি ফ্ল্যাটে ক্যাসিনোর সন্ধান পেয়েছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ ধরনের ক্যাসিনোর আরো খোঁজ পাওয়া যেতে পারে। কেমন করে মসজিদের শহর ক্যাসিনো জুয়ার শহরে পরিণত হয়ে গেল, সেটা একটা বড় বিস্ময়।

এ পর্যন্ত যেসব জায়গায় অভিযান চালানো হয়েছে, তার প্রায় প্রতিটি থেকেই ক্যাসিনো সরঞ্জাম, অস্ত্র, মদ ও টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কিছু ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে, যারা মূলত: সরকারি দল ও তার অঙ্গ সংগঠনের পরিচয়ধারী। শোনা যাচ্ছে, তাদের অনেকের সাথেই নেতৃস্থানীয় লোকদের সম্পর্ক আছে। ক্ষমতার অপব্যবহার বা বদহজম কীভাবে ধরাকে সরাজ্ঞান করার দুঃসাহস যোগায়, ক্যাসিনো কান্ডে তার জাজল্যমান প্রমাণ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এতদিনের রাজা-বাদশা-সম্রাটদের অনেকেরই এখন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। কয়েকশ নাকি এর মধ্যেই দেশ ছেড়ে ভেগে গেছে। ক্ষমতা ও অর্থ-বিত্তের দৌর্দন্ড প্রতাপে যাদের মাটিতে পা পড়তো না, তারা এখন দৌঁড়ের ওপর, পালানোর জায়গা পাওয়াও তাদের জন্য অসম্ভবপ্রায়। ভাগ্যের পরিহাস বোধকরি একেই বলে।

জুয়ার পাঁচমিশালি
নানা নামে বিশ্বে দেশে দেশে জুয়া চালু আছে। আামাদের দেশেও আছে। বলা হয়, জুয়ার একটি উন্নত সংস্করণ হলো ক্যাসিনো। যদিও এর উদ্ভব ইটালিতে ১৬৩৮ সালে। এরপর ইউরোপ থেকে এশিয়াসহ নানা দেশে তা বিস্তার লাভ করেছে। দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর মধ্যে ক্যাসিনো জুয়ায় শ্রীলঙ্কা, নেপাল, সিঙ্গাপুর পরিচিত ছিল। ভারতে এবং বাংলাদেশেও এর চর্চা চালু আছে। ব্যতিক্রম থাকলেও ক্যাসিনোতে মদ-জুয়া-নারী থাকবেই। যেহেতু জুয়া টাকার খেলা, সুতরাং এ খেলায় কেউ জিতবে কেউ হারবে। আর সবার কথা হলো, সার কথা হলো, যারা এর আয়োজক আখেরে তারাই জিতবে। জুয়ার সঙ্গে বিভিন্ন অপকর্ম ও অপরাধের ওতপ্রোত সম্পর্ক। জুয়ায়, মদে, অর্থে, নারীতে, সমাজ ও মানুষের অপকার ও ক্ষতি অবধারিত। এ কারণে সব দেশে ও সমাজেই এ সবের ওপর একটি নিয়ন্ত্রণ লক্ষ্য করা যায়।

জুয়া সম্পর্কে ইসলামের সুস্পষ্ট বিধান

জুয়া সম্পর্কে ইসলামের সুস্পষ্ট বিধান হলো, জুয়ার যত প্রকার রয়েছে, সকল প্রকার জুয়াই পরিষ্কার হারাম।
কোন মুসলিম যদি জুয়া খেলে, তাহলে সে মারাত্মক কবীরা গোনাহকারী হিসেবে সাব্যস্ত হবে। এমনকি কোন মুসলিম যদি জুয়াকে হালাল মনে করে, তাহলে সে ঈমানহারা হয়ে কাফের হয়ে যাবে।

হাজার হাজার বছর আগেও জুয়ার প্রচলন ছিল। কত রকমের যে প্রচলন ছিল, তার ইয়ত্তা নেই। এখনো শত শত রকমের জুয়ার প্রচলন রয়েছে। অর্থ জুয়ার প্রধান অনুষঙ্গ হলেও অন্যান্য অনুসঙ্গও যুক্ত হয়েছে। জুয়া, মদ ইত্যাদি শয়তানের নিকৃষ্ট কাজ। এতে মানুষের হিতের কিছু নেই। জুয়ায় সর্বশান্ত হওয়া অতি স্বাভাবিক ও সাধারণ ঘটনা। টাকা-পয়সা, অর্থ-সম্পদ, জমি-জিরাত খোয়ানো তো বটেই, এমনকি স্ত্রী খোয়ানোর ঘটনাও বিরল নয়। সবকিছু হারিয়ে অনেক সময় জুয়ারির আত্মহত্যা পর্যন্ত করতে দেখা যায়।

ইসলাম মদ-জুয়াকে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করেছে। পবিত্র কোরআনের সুরা মায়েদার ৯০-৯১ নম্বর আয়াতে ইরশাদ হয়েছে :
হে ঈমানদারগণ, মদ, জুয়া, মূর্তি ও ভাগ্য পরীক্ষার তীর ঘৃণ্য বস্তুধারী, শয়তানের কাজ। সুতরাং তোমরা তা বর্জন করো, যাতে তোমরা সফল হতে পারো। শয়তান তো মদ ও জুয়ার দ্বারা তোমাদের মধ্যে শত্রুতা ও বিদ্বেষ ঘটাতে চায় এবং আল্লাহর ধ্যানে ও নামাজে তোমাদের বাধা দিতে চায়।
(সুরা মায়েদা, আয়াত নং ৯০-৯১)

এই আয়াতদ্বয়ের মাধ্যমে আল্লাহপাক অত্যন্ত দ্যর্থহীন ভাষায় বলেছেন, মদ, জুয়া ইত্যাদি শয়তানের কাজ। শয়তান এর দ্বারা মানুষের মধ্যে শত্রুতা ও বিদ্বেষ ছড়াতে চায়, আল্লাহর ধ্যান ও নামাজ থেকে বিরত রাখতে চায়। সুতরাং আল্লাহর স্পষ্ট নির্দেশ, মদ-জুয়া বর্জন করো। তাহলে সফল হতে পারো।

জুয়া সম্পর্কে রাসূল সা. এর কঠোর হুঁশিয়ারবাণী

রাসুলুল্লাহ (স.) জুয়া খেলা তো দূরের কথা, সেদিকে আহ্বান জানালেও তার কাফফারা স্বরূপ সাদকা দেওয়ার কথা বলেছেন। তিনি জানিয়েছেন, যে লোক তার সাথীকে আহ্বান করে ‘এসো তোমার সঙ্গে জুয়া খেলবো, এর কাফফারা স্বরূপ সদকা দেয়া উচিত। শুধু তাই নয়, তিনি জুয়ারীদের সালাম দিতেও নিষেধ করেছেন। বলেছেন- পাশা, সতরঞ্জ আর অলসতা সৃষ্টিকারী খেলায় মত্ত লোকদের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের সালাম দিও না।

মদ এবং নেশাদ্রব্য সম্পর্কে হাদীসের ভাষ্য
অনুরূপভাবে মদ সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ (স.) বলেছেন, মদ থেকে বেঁচে থাকো। কেননা, এটা সমস্ত অশ্লীলতার উৎস। তিনি আরো বলেছেন, মদ্যপানে অভ্যস্ত ব্যক্তি মূর্তি পূজকের সমান।

সারকথা হলো,
বাংলাদেশ মুসলিম প্রধান দেশ। এর ৯০ শতাংশ মানুষ ইসলামের অনুসারী। সেই দেশে জুয়া-মদের এভাবে সয়লাব বয়ে যাবে। সেটা কল্পনাও করা যায় না। মসজিদের শহর ক্যাসিনোর শহরে পরিণত হবে, তা কোন সত্যিকার মুমিন বরদাশত করতে পারেনা। অথচ অকল্পনীয় এই বাস্তবতা দেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এটা দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য, বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের জন্য কতটা ভয়াবহতার অশনীসংকেত, তা বিশদ ব্যাখ্যার অপেক্ষা রাখে না। অন্যায়, অপরাধ, অপকর্মের একটা অভয়ক্ষেত্র হয়ে উঠছে দেশ। এর খেসারাতও দিতে হচ্ছে নানাভাবে। খুন, অপহরণ, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, দুর্নিতি-দুষকর্ম, ধর্ষণ ইত্যাদিতে মানুষ অতিষ্ট।

আসুন আমরা সচেতন হই। নিজেদের ছেলেমেয়েদের প্রতি তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখি। তারা যেন বিভ্রান্ত হতে না পরে।
মদ, জুয়া থেকে নিজেরা বাঁচি, আমাদের সমাজ, পরবর্তী প্রজন্মকে মদের করাল গ্রাস থেকে বাঁচাতে তৎপর হই।

লেখক-
মাওলানা মুফতী রিদওয়ানুল কাদির
খতীব, উখিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, উখিয়া, ককসবাজার।
মোবা- 01812766893।
Email. [email protected]

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন