টেকনাফে বিজিবি’র সাথে বন্দুকযুদ্ধে ১ ইয়াবা কারবারী নিহত

টেকনাফ প্রতিনিধি ::

টেকনাফে আটক রোহিঙ্গা ইয়াবা কারবারীকে নিয়ে বিজিবির অভিযানে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। এসময় রোহিঙ্গা মাদক কারবারী নিহত ও দুই বিজিবি সদস্য আহত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে দেশীয় অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।
জানা যায়, ২০ ফেব্রুয়ারী ভোররাত সাড়ে ৪টায় বিজিবির হাতে আটক উপজেলার নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের ২৬নং মোচনী ক্যাম্পের এব্লকের ১৮০/৫নং রোমের বাসিন্দা দ্বীন মোহাম্মদের পুত্র মোঃ জাফর আলম (২৬) কে নিয়ে টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের নায়েব সুবেদার তোফাজ্জল হোসেনের নেতৃত্বে একটি টহল দল সাবরাং ইউপির ৫নং সুলিশ গেইট সংলগ্ন এলাকা দিয়ে ইয়াবার চালান অনুপ্রবেশের খবর পেয়ে অবস্থান নেয়। কিছুক্ষণ পর সুলিশ গেইট সংলগ্ন খাল দিয়ে একদল লোক উঠতে দেখে তাদের চ্যালেঞ্জ করলে চোরাকারবারী গ্রুপের লোকজন বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। বিজিবিও আত্নরক্ষার্থে পাল্টাগুলিবর্ষণ করে। এতে উভয়পক্ষের মধ্যে ২০/২৫ রাউন্ড গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। এতে বিজিবির দুই সদস্য আহত হয়। তাদের দ্রুত উদ্ধার করে উপজেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়।

এদিকে ভোর হলে বিজিবির আরো একটি টহল দল ঘটনাস্থলে তল্লাশী চালিয়ে ১টি দেশীয় লম্বা অস্ত্র, ৫ হাজার পিস ইয়াবাসহ গুলিবিদ্ধ জাফরকে উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত ব্যক্তিকে টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল আছাদুদ-জামান চৌধুরী আটক মাদক কারবারী নিয়ে বন্দুক যুদ্ধের সত্যতা স্বীকার করেন।

টেকনাফ মডেল থানার এসআই মোহাম্মদ বাবুল, খবর পেয়ে সর্ঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে লাশ উদ্ধার করে পোস্ট মর্টেমের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছে।এই ঘটনার আগে বিজিবি জওয়ানেরা রোহিঙ্গা মাদক কারবারীকে আটক করে। তার স্বীকারোক্তিতে মাদকের চালান খালাস করতে গিয়েই বন্দুক যুদ্ধে গোলাগুলির ঘটনায় সে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যয়।

ad