১১ কোটি টাকার ইয়াবা উদ্ধার

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ ::

বিজিবির টহল দল টেকনাফের নাজিরপাড়া ও সাবরাং এর মাঝামাঝি স্থান এবং হ্নীলার ফুলের ডেইল থেকে ৯ অক্টোবর গভীর রাতে পৃথক অভিযান চালিয়ে ১১ কোটি ৬ লক্ষ ৯৩ হাজার ২০০ টাকা মুল্যের ৩ লক্ষ ৬৮ হাজার ৯৪৪ পিস এবং ১টি কাঠের নৌকা আটক করেছে। এসময় ইয়াবাসহ ১জন পাচারকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়। আটককৃত ইয়াবা পাচারকারী উখিয়া উপজেলার পালংখালী মৃত বাদশাহ মিয়ার পুত্র মোঃ ইউনুছ (২৮)। নিষিদ্ধ ঘোষিত মাদক ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে নিজ দখলে রাখার অপরাধে ধৃত ও পলাতক আসামীদের বিরুদ্ধে টেকনাফ মডেল থানায় নিয়মিত মামলা দায়ের করতঃ ধৃত আসামীকে জব্দকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটসহ টেকনাফ মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। এ মামলায় সাবরাং মন্ডলপাড়ার মৃত মকবুল হোসেনের পুত্র আলী আহমদ (৪৫) এবং লোকমান হাকিমের পুত্র আব্দুল্লাহকে (৩৫) পলাতক আসামী করা হয়েছে।

টেকনাফ-২ বিজিবির পরিচালক অধিনায়ক এস এম আরিফুল ইসলাম জানান ‘টেকনাফ-২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ টেকনাফ বিওপির হাবিলদার মোঃ আশরাফুল আলমের নেতৃত্বে একটি টহল দল নাজিরপাড়া ও সাবরাং এর মাঝামাঝি আলুগোল্লা এলাকায় নিয়মিত টহলে গমন করে। টহল দল মায়ানমার হতে নাফ নদীর শুন্য লাইন অতিক্রম করে একটি হস্তচালিত নৌকা আসতে দেখে কিনারায় আসার জন্য অপেক্ষারত থাকে। পরবর্তীতে উক্ত নৌকাটি নাজিরপাড়া ও সাবরাং এর মাঝামাঝি আলুগোল্লা বরাবর নাফ নদীর কিনারায় আসা মাত্রই টহলদল তাদের চ্যালেঞ্জ করে। আকস্মিক বিজিবি টহলদলের উপস্থিতি টের পেয়ে নৌকায় আরোহিত ইয়াবা পাচারকারীরা নৌকা থেকে নেমে অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে দ্রুত দৌঁড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে টহলদল তাদের পিছু ধাওয়া করে। অতঃপর টহলদল অক্লান্ত চেষ্টা করে ১ জন ইয়াবা পাচারকারীকে আটক করতে সক্ষম হলেও অপর দুইজন ইয়াবা পাচারকারী পার্শ্ববর্তী গ্রামের ভেতর পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে টহলদল ইয়াবা পাচারকারীদের ব্যবহ্নত নৌকাটি তল্লাশী করে ৯ কোটি ২৬ লক্ষ ৮৩ হাজার ২০০ টাকা মূল্যমানের ৩ লক্ষ ৮ হাজার ৯৪৪ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। নিষিদ্ধ ঘোষিত মাদক ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে নিজ দখলে রাখার অপরাধে ধৃত ও পলাতক আসামীদের বিরুদ্ধে টেকনাফ মডেল থানায় নিয়মিত মামলা দায়ের করতঃ ধৃত আসামীকে জব্দকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটসহ টেকনাফ মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়েছে’।

এদিকে অধিনায়কের পক্ষে অতিরিক্ত পরিচালক শরীফুল ইসলাম জোমাদ্দার জানান ‘বিশ্বস্ত গোয়েন্দা সূত্রের ভিত্তিতে জানা যায় ইয়াবার একটি চালান হ্নীলা ইউপিস্থ ফুলের ডেইল নাফ নদীর কিনারা দিয়ে মায়ানমার হতে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ হ্নীলা বিওপির নায়েব সুবেদার মোঃ নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহল দল ফুলের ডেইল নাফ নদীর কিনারায় গমন করতঃ কেওড়া বাগানে অবস্থান নিয়ে ওঁৎ পেতে থাকে। টহল দল দুইজন ব্যক্তিকে একটি নৌকা নিয়ে শুন্য লাইন অতিক্রম করে বাংলাদেশে আসতে দেখে নদীর কিনারায় আসার জন্য অপেক্ষারত থাকে। উক্ত নৌকাটি নাফ নদীর কিনারায় এসে একজন ব্যক্তিকে একটি ব্যাগসহ নৌকা থেকে নামিয়ে দিয়ে পুনরায় মায়ানমারের উদ্দেশ্য গমনের প্রাক্কালে টহলদল তাদের চ্যালেঞ্জ করলে নৌকাটি দ্রুত গতিতে মায়ানমারের দিকে চলে যায়। এমতাবস্থায় নদীর পাড়ে আরোহনকৃত ব্যক্তিকে টহলদল আটকের নিমিত্তে ধাওয়া করলে সে তার হাতে থাকা ব্যাগটি ফেলে পুনরায় নাফ নদীতে ঝাপ দিয়ে সাতঁরিয়ে মায়ানমারের অভ্যন্তরে চলে যায়। পরবর্তীতে টহল দল ইয়াবা পাচারকারী কর্তৃক ফেলে যাওয়া ব্যাগটি তল্লাশী করে ১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকা মূল্যমানের ৬০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্দ্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে’। ##