রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চাকুরীর নামে মনোরঞ্জন

ইউছুফ আরমান::
কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংগঠন-জাতীয় এন.জি.ও এবং জেলা ভিত্তিক এন.জি.ও সংগঠন গুলো মানব সেবায় নিয়োজিত আছে। রোহিঙ্গাদের সেবা প্রদানে জনবল প্রয়োজন বিধায় নিয়োগ একান্ত আবশ্যক। সেহেতু চাকুরীর বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিভিন্ন পদে নিয়োগ দিয়েছে নিম্ন থেকে উচ্চ লেভেল পর্যন্ত। দূর করা হয়েছে বেকারত্ব। কিন্তু এই চাকুরীর অন্তরালে কি হচ্ছে? কাগজ-কলম নিয়ে সে বিষয় সম্পর্কে লেখতে বসেছি। আমার লেখনী কাউকে ইঙ্গিত করে নয়, ছেলে-মেয়েদের বাস্তবতার আত্ম উপলদ্ধির বহিঃপ্রকাশ। কারো জীবনের সঙ্গে মিলে গেলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।

মিষ্টি (ছদ্মনাম) সে অত্যন্ত গরীব পরিবারের সন্তান। কিন্তু মেধাবী ছাত্রী বটে। পড়া-শোনায় কঠোর পরিশ্রমী, গভীর রাত পর্যন্ত অধ্যাবসায় করতেন। ইংলিশ ক্লাবে কোচিং করতো। ভাল ইংলিশ বলতে পারতো। ২৫শে আগস্ট ২০১৭সালে মায়ানমার অধ্যুষিত রাজ্যে নির্মম নির্বিচারে মুসলিম রোহিঙ্গাদের উপর গণহত্যা চলছিল। রোহিঙ্গাদের উপচে পড়ে বাংলাদেশ সীমানা অতিক্রম করে অবৈধ অনুপ্রবেশ করে। রোহিঙ্গাদের জন্য অস্থায়ীভাবে উখিয়া-টেকনাফে ক্যাম্প তৈরি করা হয়। তারই সুবাধে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংগঠন-জাতীয় এন.জি.ও এবং জেলা ভিত্তিক এন.জি.ও সহ রোহিঙ্গাদের সেবা দেয়ার জন্য জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রচার করে। নিয়োগ বাণিজ্যে মূর্খ-স্বশিক্ষিত-উচ্চ শিক্ষিত এবং দু’ভাষী ইত্যাদি পদে ধুমধাম নিয়োগ কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে।

হঠাৎ একদিন বিকালে মিষ্টির কাছে কল আসে, তুমি কি দ’ভাষী হিসেবে কাজ করবে? এমন প্রস্তাব কে বা না বলে। প্রস্তাব টি সাদরে গ্রহণের সম্মতি জানালেন। পরবর্তীতে কাজে যোগদান করলেন। মিষ্টি এখন খুব ব্যস্ত সময় পার করছে। প্রতিদিন সকাল ৮টায় বের হয় বাড়ি ফিরে রাত ১০-১১ টায়। বাবা-মা মহা খুশি যেহেতু মেয়ে ভাল আয় করছে। পরিবারের বড় কর্তাদের কোন প্রকার প্রশ্ন নাই। কারণ অভাবের সংসারে স্বচ্ছতা পেয়েছে। তাই মেয়ের স্বাধীনতার কোন লিমিট নাই।
“আকাশের বিশালতায় পাখির মতো ডানা মেলে উড়ছে
সাগরের গভীর জলে মাছের মতো মুক্ত স্নানে ভিজছে।”
বাবা-মা টাকার জন্য অন্ধ হয়েছে। মেয়ের চরিত্র নিয়ে কোন প্রশ্ন নাই। যখন ইচ্ছা বের হচ্ছে আবার ইচ্ছে মতো বাড়ি ফিরছে। হাজারো অপরাধ টাকার কাছে ঢাকা পড়ছে। বাবা-মা দর্শকের ভূমিকাই।

জবাবদিহিতা টাকার কাছে জিম্মিঃ- রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চাকুরী করছে। ভাল বেতন পাচ্ছে। পরিবারের বড় কর্তারা বেশ স্বচ্ছন্দভাবে জীবন অনায়েসে সময় কাটছে। তাই ছেলে-মেয়েদের সময়-অসময় বাড়ি ফেরার প্রসঙ্গে কোন কথা নাই। নিশ্চুপ ভাবছে চাকুরী করছে তো লক্ষীসোনা, সারাদিন চাকুরী করে রাতে বাড়ি ফিরে সে কোথাও ঘোরার সময় পাচ্ছে না। বরং সময় না পাওয়ার চিন্তায় পরিবারের বড় কর্তারা চিন্তিত। আসলে কি তাই! নাকি বাস্তবতা ভিন্ন রকম। বেপরোয়া জীবনের হতাশায় ভূগছে। খিটখিটে মেজাজ। কিছু প্রশ্ন করতে ক্ষেপে উঠে সারাদিন কাজ সেরে বাড়ি ফিরতে না ফিরতে নানান প্রশ্ন করো কেন? মাস শেষে টাকা পেলেই হলো বা দিচ্ছি তো। তারপর বাবা-মা স্তব্ধ। সুতরাং জবাবদিহিতা টাকার কাছে জিম্মি।

ad

প্রশিক্ষণ বা মিটিং এর নামে কি চলছেঃ- মানব সেবাই নিয়োজিত সংস্থা গুলোতে বেশ মাঠ কর্মী ভাল বেতনে নিয়োগ দিয়েছে। তাতে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে সব বয়সী ছেলে-মেয়ে। প্রশিক্ষণ বা মিটিং এর নামে কোথায় যাচ্ছে? কিংবা প্রশিক্ষণ বা মিটিং থাকলে সেখানে কি হচ্ছে। এমন হাজারো প্রশ্ন ঘোরপাক খাচ্ছে। কিন্তু উত্তর কোথায় পাবো? উত্তর খোঁজি আভিজাত্য হোটেল-মোটেল কনফারেন্সে। প্রশিক্ষণ বা মিটিং এর নামে কি চলছে? প্রশিক্ষণের নামে নাচ-গানে মাতোয়ারা সবাই। এই সুযোগ নিচ্ছে নষ্ট মানসিক চিন্তাধারার তরুণ-তরুণী। সমাজে অবক্ষয়ের অশনিসংকেত। তাছাড়া প্রশিক্ষণ বা মিটিং এর নামে বিভিন্ন আভিজাত্য হোটেল কনফারেন্সে চলছে অবাধে মনোরঞ্জন। যাদের পরিচয় ক্ষণিকের জন্য শুধু মাত্র চাকুরীর সুবাধে। তার ফলে হারাচ্ছে নিজেদের মনোস্বত্ত্ব। যুগের সাথে তাল মিলাতে হারাচ্ছে নিজেদের ইজ্জত সম্ভ্রম।

উচ্চ বিলাসিতাঃ- মানুষের চাহিদার কমতি নাই। কিন্তু তা পূরণ করা কত টা দুস্কর সেটি হয়তো যারা চাহিদার যোগান দেয় তারা ভালই জানে। কাজেই চাহিদার অতিরিক্ত যোগান পেয়েছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের চাকুরীতে। তাই ক্যাম্পের চাকুরীতে ঝুঁকেছে গ্রামের সহজ সরল মেয়েরা। যে সব ছেলে-মেয়েরা ২৫ আগষ্ট ২০১৭সালের আগেও আভিজাত্য হোটেল-মোটেলের স্বপ্ন দেখতো না তারা এখন প্রতিনিয়ত আভিজাত্য হোটেল রেষ্টুরেন্টে অবাধে যাতায়ত করছে। যারা জীবনে কখনো জন্মদিনের উৎসব পালন করতো না তারা এখন প্রতিদিন বা সপ্তাহে বিভিন্ন ঝাঁকজমক পার্টি করতে অভ্যাস্ত হয়েছে। তা আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবি-ভিডিও আপলোড করে।

চাকুরীর নামে মনোরঞ্জনঃ- ইতোপূর্বে যাদের কোন বন্ধু-বান্ধুবী ছিল না সম্প্রতিকালে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের চাকুরীর সুবাধে সহস্র বন্ধু-বান্ধুবী জুটেছে। যাদের যাতায়ত আভিজাত্য হোটেল-মোটেল গুলোতে। প্রশিক্ষণ-মিটিং-পার্টি ইত্যাদি নামে মনোরঞ্জন আড্ডা জমিয়ে ব্যস্ত থাকে। দূর করেছে বেকাত্ব, বাড়িয়েছে নষ্টত্ব। সমাজের অবক্ষয়ে, বিশ্বাসস্ততা হারিয়েছে। লাভ-লোকসানের হিসাবের খাতায় কোন ফলাফল নাই। সাময়িক অভাব অনটন দূর হওয়ায়, মুখের হাসি নিয়ে তৃপ্ত সবাই। যাদের স্বল্প বেতনের চাকুরী হতো না তাদের উচ্চ বেতনে চাকুরী হয়েছে। তাতে ক্ষণস্থায়ী ক্ষতির হিসাব নাই বা করলাম। আসলে কি তাই! আমরা কেউ ভাবছিনা দীর্ঘ ক্ষতির ক্ষত চিহ্ন আজীবন থেকে যাবে কি না? তাছাড়া আভিজাত্য হোটেল-মোটেলে গভীর রাত পর্যন্ত কি হচ্ছে? কেবল চাকুরীর নামে চলছে মনোরঞ্জন।

লেখক
ইউছুফ আরমান
কলামাষ্ট, সাহিত্যিক
দক্ষিণ সাহিত্যিকাপল্লী
বিজিবি স্কুল সংলগ্ন রোড়
কক্সবাজার সদর।

 

 

* প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব উখিয়া নিউজ- এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য উখিয়া নিউজ কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।