মোবাইল ট্র্যাক করে উখিয়া থেকে অপহৃত যুবককে উদ্ধার

উখিয়া নিউজ ডটকম::
যাত্রী সেজে অটোরিকশা চালককে অপহরণের সাতদিন পর অপহরণকারীদের মোবাইল ট্র্যাকিং করে অপহৃতকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

কক্সবাজার শহরের কলাতলী থেকে গত রোববার (২৯ জুলাই) অপহরণ করা হয় কক্সবাজার পৌরসভার পূর্ব কলাতলীর অটোরিকশা চালক মো. রাসেলকে (২১)। মোবাইল ট্র্যাকিং করে শনিবার (০৪ আগস্ট) বেলা ৩টায় টেকনাফের হ্নীলা ইউপির রঙ্গীখালির গহিন পাহাড় থেকে আহতাবস্থায় করে তাকে উদ্ধার কর হয়েছে।

বর্তমানে অটোরিকশা চালক রাসেল টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন। সিএনজি চালিত অটোরিকশাটি উদ্ধার করা সম্ভব হলেও পুলিশ অপহরণকারী চক্রের কাউকে আটক করতে পারেনি।

পুলিশ জানায়, অটোরিকশা চালক রাসেল ও একটি অটোরিকশার সন্ধান না পেয়ে ৩০ জুলাই কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের বাংলাবাজার এলাকার মোক্তারকুল গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে উখিয়া থানায় একটি ডায়েরি করেন। এর একদিন পরই রাসেলের বাবা তার ছেলেকে অপহরণ করা হয়েছে মর্মে একই থানায় এজাহার দায়ের করেন।

এ বিষয়ে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রণজিৎ কুমার বড়ুয়া বলেন, এজাহার পাওয়ার পর উখিয়া থানার ওসি টেকনাফ থানার সহযোগিতা চান। এরপর আমরা অপহৃতদের স্বজনদের সাথে কথা বলি। তাদের কাছে জানতে পারি অপহরণকারীরা মুঠোফোনে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছে। ওই টাকা বিকাশে দিতে বলা হয়েছে। কিন্তু বিকাশ নম্বরটি ফরিদপুরের নবাবকান্দা এলাকার।

ad

ওসি আরো বলেন, অপহরণকারীদের ব্যবহৃত মুঠোফোন ট্র্যাক করে পুলিশ জানতে পারে রঙ্গীখালির একটি গহীন পাহাড়ে তারা অবস্থান করছে। পরে আমরা সেখানে অভিযান চালিয়ে আহতাবস্থায় অপহৃতকে উদ্ধার করি। কিন্তু পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অপহরণকারী চক্র পালিয়ে যায়।

অটোরিকশা চালক মো. রাসেল বলেন, কক্সবাজার থেকে ভাড়া নিয়ে উখিয়ার কুতুপালং পৌঁছালে অপহরণকারীরা মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে জোর করে একটি মাইক্রোতে তুলে পাহাড়ে নিয়ে যায়। পরে পরিবারের কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। মুক্তিপণের টাকা না দিলে মেরে ফেলার হুমকিও দেওয়া হয়। টাকা না পেলে আজকালের মধ্যে ওরা আমাকে মেরে পাহাড়ে গুম করে দেওয়ার পরিকল্পনা করছিলো।