ad

বিয়ের অনুষ্ঠান সামলাবেন কীভাবে: কার কী করণীয়

দিনভর খাওয়া দাওয়া, নাচ গান আর হৈ হুল্লোরে মুখরিত থাকে বিয়ে বাড়ি। ভাই-বোন, বন্ধু-বান্ধব এবং আত্মীয়স্বজনদের আনাগোনা লেগেই থাকে এই সময়। আর এই বিয়ের যাবতীয় কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকে বর বা কনের পরিবারের। পরিবারের সকল সদস্যের সহযোগিতা এবং অংশগ্রহণই পারে তাদের প্রিয় সদস্যটির বিয়ের অনুষ্ঠানটিকে জাঁকজমকপূর্ণ এবং স্মরণীয় করে তুলতে।
বিয়ের আয়োজনে কেনাকাটা থেকে শুরু করে বৌভাত পর্যন্ত প্রতিটা সময় লেগে থাকে অফুরান কাজের চাপ। পরিবারের সদস্যদের সহযোগিতায়ই কেবল সামলে নেয়া যায় সব কাজ। কাজগুলো সবাই মিলে ভাগ করে নিলে দ্বিগুণ হয়ে যায় আনন্দ। তাই এবার আমরা নিয়ে এলাম বিয়েতে পরিবারের সদস্যদের মধ্যে কাকে কোন কাজ ভাগ করে দেয়া যায় সে সম্পর্কে
বাবা:
বাবার নেতৃত্বেই সব কাজ হয়ে থাকে বলা যায়। সেজন্য তার পরিকল্পনাকে বাস্তবায়ন করতে পরিবারের প্রতিটি সদস্যকে কাজ করতে হবে। বড় পরিসরের কাজ এবং আর্থিক দিকগুলো দেখতে হয় বাবাকে। যেমন: কমিউনিটি সেন্টার বুকিং দেয়া, গেস্ট লিস্ট করা, সেই অনুযায়ী বাজেট তৈরির কাজ বাবা করতে পারেন।
মা:
কনে বা বরের মায়ের সবচেয়ে বেশি দায়িত্বপূর্ণ কাজগুলো করতে হয়। হবু বর বা কনের পছন্দকে প্রাধান্য দেন তিনি। শত চিন্তা ও ব্যস্ততার মাঝেও তাকে মেহমানদের আপ্যায়ন করা, খাবারের মেনু তৈরি করা, কি ধরনের খাবার দেয়া হবে তা মা নির্ধারণ করতে পারেন। এছাড়াও বিয়ের কেনাকাটায় অলংকার নির্ধারণের ক্ষেত্রে মা অলঙ্কার নির্বাচন এবং বাজেট প্রণয়ন করতে পারেন।
ভাই:
বিয়ে বাড়ির সব ছোটাছুটির কাজগুলো বাড়ির বড় বা ছোট ভাইরা করতে পারেন। বিয়ের কার্ড অর্ডার দেওয়া, গেস্ট লিস্ট অনুসারে কার্ড বিলি করা, ডেকোরেটরের সাথে যোগাযোগ, ডিজে, ফটোগ্রাফার এবং ভিডিও ক্যামেরাম্যান-এর সাথে যোগাযোগ এবং বুকিং দেওয়া, বিয়ের বাজার এসব কাজ বাড়ির ভাইরা মিলে করতে পারেন।
বোন:
বিয়ের কেনাকাটার ক্ষেত্রে বাড়ির বোনটি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারেন। সেক্ষেত্রে তিনি বর ও কনের পছন্দ অনুযায়ী প্রতিটি জিনিস সূক্ষ্মভাবে নির্বাচন করতে পারেন। পাশাপাশি কাকে কি দেওয়া হবে তা নির্ধারণ করতে পারেন তিনি। কনের সাজের ক্ষেত্রে কনের বোন বিউটি পার্লার নির্ধারণ এবং বিউটিশিয়ানের কাছে বুকিং দেয়ার কাজটি করতে পারেন।

কাজিন এবং বন্ধুরা:
খালাতো-মামাতো কিংবা চাচাতো-ফুপাতো ভাইবোন এবং বন্ধুরাও পরিবারের সদস্যদের চেয়ে কোনো অংশে কম নন। বিয়ে বাড়ির জাঁকজমকপূর্ণ অবস্থা এবং বিয়ে ধুমধাম করে হবার কাজটি অনেকাংশেই তারা করে থাকেন। বিয়ের প্রতিটি কাজে হাত লাগানোর পাশাপাশি পুরো বিয়ে বাড়ি হাসি, ঠাট্টা, আনন্দ করে জমিয়ে রাখাই যেন তাদের কাজ। গায়ে হলুদের স্টেজ, পুরো বাড়ি আলপনা করা, কনের হাতে মেহেদি পরানো, ডালা সাজানো, বিয়ের ডালাগুলো অপরপক্ষের বাড়িতে দিয়ে আসা, নাচ ও গানের আয়োজনের কাজ তারা করে থাকতে পারেন।
নিকট আত্মীয়:
বিয়ের বাজার, বাবুর্চি ঠিক করা এবং ঘরোয়া অনুষ্ঠানগুলো গুছিয়ে নিতে সাহায্য করতে পারেন বর বা কনের চাচা-চাচি, মামা-মামি, খালা-খালু কিংবা ফুপা- ফুপু। ২ পক্ষের মুরব্বীদের সঙ্গে নিয়ে আলোচনার মাধ্যমেই সুষ্ঠুভাবে সব অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে পারেন তারা।
এছাড়া বিয়ের কেনাকাটা করার ক্ষেত্রে বর ও কনে এবং তার ভাই বোনরা চাইলে একসাথে শপিংয়ে যেতে পারেন। এতে সবার মধ্যে একটি বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠার পাশাপাশি দুপক্ষের পছন্দ অনুযায়ী সব নির্বাচন করার সুযোগ থাকে।