বাহারছড়া রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে যুবককে ডাকাতির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

টেকনাফ বাহারছড়ার কচ্চপিয়া এলাকায় এক যুবককে রাস্তায় ব্যারিকেট দিয়ে ডাকাতি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উক্ত যুবক বাহারছড়ার উত্তর শীলখালী গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে সাদ্দাম হোসাইন বলে জানা যায়।

ভুক্তভোগী যুবক সাদ্দাম জানান আমি গত ৭ জুলাই রাত আনুমানিক রাত ৮ঃ৩০ মিনিটের সময় আমার চালিত সিএনজি গাড়ি নিয়ে টেকনাফ থেকে কচ্চপিয়া এলাকায় আসলে স্থানীয় রিদোয়ান, নুর হোসেন, বদরুজ মিয়া, মোহাম্মদ রাসেল, মোহাম্মদ রফিক, সরওয়ার, সহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজন যুবক মিলে রাস্তায় গ্যাস সিলিন্ডার ব্যারিকেট দিয়ে আমাকে ও আমার গাড়িতে থাকা যাত্রীদের ডাকাতি করে সর্বস্ব ছিনিয়ে নেয়।

তার মধ্যে আমার কাছে থাকা নগদ ১৫০০০ হাজার টাকা,, দুইটি মোবাইল সহ মহিলা যাত্রীদের কাছে থাকা ব্যাগ গুলোও ছিনিয়ে নেয় স্থানীয় ডাকাতরা। পরে তারা এতে সন্তুষ্ট না হয়ে আমাকে গলায় ছুরি ধরে স্থানীয় পাহাড়ে অপহৃরণ করে নিয়ে যায়। এবং ৪০০০০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দিতে আমার পরিবারকে ফোন করতে বলে।

পরে আমার চিৎকার ও চেঁচামেচিঁতে স্থানীয় পাহাড়ি এলাকার লোকজন আমার পরিবারকে খবর দিলে তারা রাতে এলাকার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা টহলরত পুলিশ নিয়ে আমাকে পাহাড়ের ভেতর থেকে উদ্ধার করে। এবং ডাকাতরা পালিয়ে যায়। পরে আমার দেখা ও এলাকার মানুষদের কাছে অভিযুক্তদের পরিচয় জানতে পারি। পরবর্তীতে আমি যাতে কোনো মামলা বা অভিযোগ না করি তার জন্য ডাকাতরা আমাকে বিভিন্ন হুমকি দমকি দিয়ে যাচ্ছে।

যার জন্য আমি জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে অভিযুক্ত ডাকাতদের বিরুদ্ধে টেকনাফ মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করি। আর অভিযুক্তরা সবাই মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসায় জড়িত,, যা তদন্ত করলে সব জানা যাবে। তাই প্রশাসনের কাছে আমি উক্ত ঘটনার সুষ্ট বিচার দাবী করি।

এই ব্যাপারে টেকনাফ বাহারছড়ারদ পুলিশ ফাঁড়ির উপ-সহকারী পরিদর্শক জহিরুল ইসলাম বলেন সাদ্দাম নামে ছেলেটিকে ডাকাতির পর পাহাড়ে অপহৃরণ করে নিয়ে গেছে এই রকম একটি অভিযোগ পেয়ে আমার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে কচ্চপিয়া পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে তাকে উদ্ধার করি। পরে ডাকাতদের পরিচয় জেনে সে টেকনাফ মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন