‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

রংপুর ও ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুইজন নিহত হয়েছেন। নিহতরা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি করেছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করা হয়েছে।
রংপুর: রংপুরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আবু মুসা ওরফে বিষকালাই (২৬) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে নগরীর কুকরুল ফুল আমেরতল তিন রাস্তার মোড়ে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

নিহত আবু মুসা নগরীর হনুমানতলা বস্তি এলাকার আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় ১২টি মাদকের মামলা রয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশি পিস্তল, ১৭৭ পিস ইয়াবা ও ৫২ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে।
রংপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুর রহমান জানান, কুকরুল ফুল আমেরতল এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদ পেয়ে পুলিশ অভিযানে যায়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় মাদক ব্যবসায়ীরা। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে গুলি চালালে মাদক ব্যবসায়ী আবু মুসা ওরফে বিষকালাই নিহত হন। মরদেহ উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।
ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শামীম হোসেন (৪২) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।
বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শামীম হোসেন নেকমরদ এলাকার মৃত আব্দুল সাত্তারের ছেলে। শামীমের বিরুদ্ধে রাণীশংকৈল থানায় মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে।
পুলিশ জানায়, রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে উপজেলার নেকমরদ এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় শামীমসহ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী পুলিশের উপস্থিতি বুঝতে পেরে গুলি চালালে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। উভয়পক্ষের গুলিবর্ষণের ফলে ঘটনাস্থলেই নিহত হন শামীম হোসেন।
অন্যদিকে দিনাজপুর সদর উপজেলার খাড়িপাড়া এলাকা থেকে এক ‘মাদক ব্যবসায়ী’র গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। টাকা ভাগাভাগি নিয়ে মাদক কারবারিদের দুই পক্ষে গোলাগুলিতে ওই ব্যক্তি নিহত হয়েছে বলে দাবি করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

ad

ঘটনাস্থল থেকে ১০০ বোতল ফেন্সিডিল, একটি ওয়ান শুটার গান ও একটি ছোরা উদ্ধার করা হয়েছে।