ফিফার বর্ষসেরার তিনে রোনালদো-মডরিচ-সালাহ

এই বছরটা কিছুতেই মনের মতো হয়নি লিওনেল মেসির। এ কারণে শুরুতে ছিটকে গিয়েছিলেন ফিফার বর্ষসেরার সংক্ষিপ্ত তিন থেকে। এবার ফিফার বর্ষসেরার তিনেও নেই বার্সেলোনার এই আর্জেন্টাইন প্লেমেকার। ১১ বছর পর সংক্ষিপ্ত তালিকায় নেই এই আর্জেন্টাইন ফুটবলার।

বিশ্বসেরা হওয়ার দৌড়ে তিন জনের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা পেলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, লুকা মডরিচ ও মোহাম্মদ সালাহ। সোমবার ঘোষিত এই তালিকায় ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ী দলের কোনো সদস্যও নেই। জুলাই ২০১৭ থেকে জুলাই ২০১৮ পর্যন্ত সময়ে দুর্দান্ত খেলাদের মধ্য থেকেই করা হয়েছে এই তালিকা।

বর্ষসেরা গোলরক্ষকদের সংক্ষিপ্ত তালিকায় আছেন ডেনমার্কের গোলরক্ষক ক্যাসপার স্মাইকেল, ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক, গোলরক্ষক হুগো লরিস এবং বেলজিয়ামের গোলরক্ষক থিবো কুর্তোয়া।

অার বর্ষসেরা কোচের তালিকায় আছেন- ফ্রান্সের বিশ্বকাপজয়ী দিদিয়ের দেশম, ক্রোয়েশিয়ার জলাতকো দালিচ এবং রিয়াল মাদ্রিদের জিনেদিন জিদান।

দিন কয়েক আগেই ইউরোপের বর্ষসেরা হয়েছিলেন মডরিচ। এবার বিশ্বসেরার দৌড়েও এগিয়ে থাকছেন রিয়াল মাদ্রিদের এই ক্রোয়েশিয়ান তারকা। একইভাবে রোনালদোও আছেন লড়াইয়ে। যিনি কিছুদিন আগেই রিয়াল ছেড়ে নাম লিখিয়েছেন জুভেন্টাসে। তারা দু’জনই চ্যাম্পিয়ন্স লিগসহ উয়েফা সুপার কাপ, স্প্যানিশ সুপার কাপ ও ক্লাব বিশ্বকাপ শিরোপা জিতেছে গত মৌসুমে।

তাদের দুজনের তুলনায় অবশ্য কিছুটা পিছিয়ে আছেন সালাহ। যদিও তার দাপটেই লিভারপুল উঠেছিল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে।

মডরিচ ইউরোপসেরা হলেও ফিফার বর্ষসেরার লড়াইয়ে রোনালদোকেই এগিয়ে রাখছেন বিশ্লেষকরা। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে টানা ১১ ম্যাচে গোলের রেকর্ড গড়েছেন তিনি। সব মিলিয়ে ক্লাব ফুবলে ২৭ ম্যাচে করেন ২৬ গোল। এরপর বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিকও পেয়েছেন পর্তুগালের এই মহাতারকা।

জাতীয় দলের নৈপুন্য বিচার করলে এগিয়ে যাবেন মডরিচ। রাশিয়া বিশ্বকাপে তার হাত ধরেই দল উঠেছে ফাইনালে। আর তিনি পেয়েছেন সেরা ফুটবলারের পুরস্কার ‘গোল্ডেন বল’।

২৪ সেপ্টেম্বর জমকালো এক আয়োজনে ঘোষণা করা হবে ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলারের নাম।