ad

নাইক্ষ্যংছড়িতে পুলিশের অভিযানে অপহরণ সিন্ডিকেটের সদস্য আটক

শামীম ইকবাল চৌধুরী,নাইক্ষ্যংছড়ি::


বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারীতে পুলিশের বিশেষ অভিযান চালিয়ে ৩ দিনের ব্যবধানে আবারও অপহরণকারী সেন্ডিকেটের আরেক সদস্যকে আটক করা হয়েছে। আটককৃত অপহরণকারী চক্রের সদস্য উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের উমুচিং পাহাড়ের বাসিন্দা সৈয়দ হোসেনের পুত্র আব্দুচ সালাম (২৭)।
আটকের বিষয়ে সত্যতা স্বীকার করে বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আবু মুসা জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার (১২ মার্চ) ভোর রাতে উমুচিং পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করতে সক্ষম হয়। আটককৃত আব্দুচ সালাম আনোয়ার বাহিনীর সক্রিয় সদস্য। ঈদগড়-ঈদগাঁও-বাইশারী সড়কে অপহরণ, ডাকাতিসহ রাবার বাগানের শ্রমিক অপহরণের সাথে জড়িত থাকার কথা পুলিশের নিকট স্বীকার করেছে। এসব স্বীকার উক্তিতে সর্বশেষ গত ৬ ফেব্রুয়ারী কক্সবাজারের ঈদগাঁও গজালিয়া এলাকা থেকে ৭০ বছরের বৃদ্ধ সৈয়দুল হককে অপহরণের করে নিয়ে যাওয়ার সাথেও জড়িত রয়েছে বলে স্বীকার করেছে। তাছাড়া তার স্বীকারোক্তিতে অনেক গোপন তথ্য জানা যায় বলে পুলিশ কর্মকর্তা জানান। যাহা তদন্তে স্বার্থে প্রকাশ করা যাচ্ছে না। তবে পাওয়া তথ্য অনুযায়ি অভিযান অব্যাহত থাকিবে।
আর এদিকে স্থানীয়রা জানান, গত ৮ মার্চ আটককৃত বাইশারী ইউনিয়নের লম্বাবিল এলাকার মোঃ সেলিম ওরফে ছল্ল্যা ডাকাত। ২৩ ফেব্রুয়ারি একি ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের মুই অং পাড়া এলাকায় গুলিবিদ্ধে মরে যাওয়া লাশটি চিহ্ণিত শীর্ষ সন্ত্রাসী আব্দু রশিদ ওরফে রইশ্যা ডাকাত আর ইউনিয়নের উমুচিং পাহাড়ে আটককৃত আব্দচ সালাম এরা সবাই শীর্ষ সন্ত্রাসী আনোয়ার বাহিনীর সেন্ডিকেটে সক্রিয় অপহরণকারী সদস্য ছিল বলে এলাকাবাসীরা জানান। ওই আটককৃত দুই সন্ত্রাসীকে রিমান্ড করে আরও অনেক তথ্য পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে এলাকাবাসীরা ধারনা করছেন। তবে শীর্ষ সন্ত্রাসী আনোয়ার বাহিনীর আনোয়ারকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এখনো আটকাতে না পারায় এলাকাবাসীর আতঙ্ক বেড়ে গেছে।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার (৮ মার্চ) দিবাগত রাত ২টা ৩০ মিনিটের সময় বাইশারী ইউনিয়নের লম্বাবিল এলাকার সন্ত্রাসী ও অপহরণ সেন্ডিকেটের সদস্য মোঃ সেলিম ওরফে ছল্ল্যা ডাকাতকে আটক করা হয়। এর আগে ২৩ ফেব্রুয়ারি গুলিতে মরে যাওয়া আব্দু রশিদ ওরফে রইশ্যা ডাকাত এরা অপহরণ এবং ডাকাতির একি সূত্রে গাঁথা। এরা ঈদগড়-ঈদগাঁও সড়কে বিভিন্ন সময় যাত্রীবাহী গাড়ি থামিয়ে ডাকাতি ও অপহরণ বানিজ্য চালিয়ে আসছিল।