নতুন নায়িকারা কি আশা জাগাতে পারবেন

ঢালিউডে নায়িকা সংকট কাটাতে গত ৫ বছরে অনেকেই এসেছেন। তাদের মধ্যে পায়ের নিচে মাটি পেয়েছেন এমন নায়িকার সংখ্যা উল্লেখ করার মতো নেই বললেই চলে। চলতি বছর ‘পোড়ামন টু’ ছবির নায়িকা হয়ে আসা পূজা চেরী এ ছবিতে সাবলীল অভিনয় করে দর্শক মন জয় করে নিয়েছেন। এর আগে অবশ্য তিনি ‘নূর জাহান’ শিরোনামের একটি ছবিতে অভিনয় করেও দর্শক প্রশংসা কুড়িয়েছেন। এবার ঢাকাই ছবির নতুন নায়িকা হয়ে এলেন রোদেলা জান্নাত। তিনি অভিনয় করবেন ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক শাকিব খানের সঙ্গে ‘শাহেনশাহ’ ছবিতে। ছবিটি মুক্তির পরই বোঝা যাবে ঢালিউডে নায়িকা হিসেবে রোদেলার অবস্থান কী হবে। দেশীয় চলচ্চিত্রে নায়িকা সংকট নিয়ে বিতর্ক আছে। অনেকে বলছেন নায়িকা সংকট চলছে। অনেক নির্মাতার মতে নায়িকা সংকট বলে কিছু নেই। নতুনদের যথাযথভাবে পর্দায় উপস্থাপন করা যাচ্ছে না বলেই শুরুতেই ঝরে যাচ্ছে তারা। মূল সংকট হচ্ছে ভালো গল্প আর দক্ষ নির্মাতার। এমনটি জানিয়ে প্রখ্যাত চলচ্চিত্রকার ছটকু আহমেদ বলেন, ষাট থেকে নব্বই দশক পর্যন্ত একাধিক নায়িকা দাপটের সঙ্গে অভিনয় করে গেছেন। খ্যাতিমান শিল্পী যেমন-সুচন্দা, শবনম, শাবানা, ববিতা, সুজাতা, সুচরিতা, অঞ্জু ঘোষের মতো শিল্পীরা থাকা অবস্থায় কাজ করতে এসে নতুনরা ঝরে পড়েননি। তখন নতুন যারা এসেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম কয়েকজন হলেন—চম্পা, দিতি, নিপা মোনালিসা, রানী, সুনেত্রা, অরুণা বিশ্বাস, শাহনাজ প্রমুখরা সিনিয়র অভিনেত্রীদের পাশে দক্ষতার সঙ্গে অভিনয় করে সুনাম কুড়িয়েছেন। খ্যাতিমান চলচ্চিত্র নির্মাতা আজিজুর রহমানের কথায়, আগে শিল্পীরা আসতেন সত্যিকার অর্থে কাজ করতে। তারা শিল্পটিকে ভালোবেসেই অভিনয় করতেন। এখন বেশির ভাগই সহজে অর্থ বিত্তের মালিক হতে আসে, শিল্পের প্রতি তাদের মায়ামমতা নেই। এজন্যই তারা প্রতিষ্ঠা পাচ্ছেন না। শাবনাজ, মৌসুমী, শাবনূর, পূর্ণিমা, পপি যুগের পর ২০০৬ সালে অপু বিশ্বাস, ২০১২ সালে মাহিয়া মাহি, ২০১৫ সালে পরীমণি, ২০১৭ সালে বুবলি আসার পর তারা যেভাবে দর্শক মাতিয়েছেন অন্যরা তেমনটি পারছেন না। গত কয়েকবছরে ঢালিউডে নায়িকা হয়ে এসেছেন— মিমো, শম্পা, সানাই, পিয়া বিপাশা, মুন, তানহা মৌমাছি, নীলাঞ্জনা নীলা, আইরিন, মিষ্টি জান্নাত, শিরিন শিলা, প্রিয়ন্তী পরী, অরিন, অধরা খান, জলি, অহনা, পুষ্পিতা পপি, মৌসুমী হামিদ, তানিয়া বৃষ্টি, মৌ খান, মৌমিতা, নিঝুম রুবিনা, মারিয়া চৌধুরী, দিপালী, অমৃতা খান, রথী, সারাহ জেরিন, রিক্তা, ফারজানা, সোনিয়া, রজনী, লাবণ্য, সানিত, মারিয়া, টিংকিসহ অনেকে। এরা এখন পর্যন্ত বড় পর্দায় স্থায়ী আসন গড়তে পারেননি। চলচ্চিত্র বোদ্ধাদের কথায় এরই মধ্যে অবশ্য বড় পর্দা মাতিয়েছেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান, তিশা ও ছোট পর্দার উপস্থাপিকা নুসরাত ফারিয়া। জয়া দেশি ছবির চেয়ে কলকাতা এবং যৌথ প্রযোজনার ছবি করছেন বেশি। আর নুসরাত ফারিয়া ফিল্ম ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই যৌথ প্রযোজনার ছবিতেই কলকাতার নায়ক জিতের বিপরীতে অভিনয় করেছেন। এই প্রথম সম্প্রতি শাকিব খানের সঙ্গে স্থানীয় ছবি শাহেন শাহতে কাজ করতে যাচ্ছেন। চলচ্চিত্রকারদের কথায় এখন দেখার বিষয় পরী, বুবলি, পূজা কিংবা পূর্বের সফল নায়িকাদের মতো চমক দেখিয়ে বড় পর্দায় জ্বলে উঠতে পারেন কিনা ব্যর্থ নায়িকারা।