কথা রাখলেন প্রধানমন্ত্রী, অবশেষে সরকারি করণ হল উখিয়া বঙ্গমাতা মহিলা কলেজ

শফিক আজাদ,উখিয়া নিউজ ডটকম::

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উখিয়া হাইস্কুল মাঠে এক জনসভায় ঘোষণা দিয়েছিলেন ‘উখিয়া বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজ সরকারি করণ করা হবে। গত ২০১৩ সালের ৩ সেপ্টেম্বর তিনি এই ঘোষণা দিলেও বিভিন্ন জটিলতার কারনে কলেজটি জাতীয়করণ থেকে পিছিয়ে পড়েছিল। অবশেষে মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক এক প্রজ্ঞাপনে সরকারি করণ হয় উখিয়ার একমাত্র নারী উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজ। এতে কলেজে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী ছাত্রীদের পাশাপাশি অভিভাবক, সুশীল সমাজ এবং শিক্ষককেরা সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

জানা গেছে, গত এক পূর্বে সরকারি করণে প্রধানমন্ত্রীর চূড়ান্ত অনুমোদন পেয়েছে দেশের ২৭১ টি বেসরকারি কলেজ। সেই তালিকায় কক্সবাজারের ছয়টি কলেজের নাম থাকলেও বিভিন্ন জটিলতার কারনে বাদ পড়ে যায় উখিয়া বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজটি। এতে শুরু হয় নানান জল্পনা-কল্পনা।

কলেজ কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণার পর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ২০১৪ সালের ৩ নভেম্বর দানপত্র দলিল (ডিড অব গিফ্ট) সম্পন্ন করে কলেজের সকল স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে হস্তান্তরের নির্দেশ দেয়া হয়। ওই নির্দেশনা অনুযায়ী ডিড অব গিফট সম্পন্ন করলেও কলেজটি জাতীয় করণের গেজেট হয়নি।

ad

২০১৬ সালে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ ছাড় না পাওয়ার অজুহাতে ১৫ টি কলেজের সাথে এই বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজটিও সরকারি করণ থেকে বাদ পড়েছিল।

সুত্রে জানা গেছে, এই কলেজটিতে পাঠদান রয়েছে সন্তোষ জনক অবস্থান। ফলাফলের ক্ষেত্রে উখিয়ার শীর্ষে স্থান। শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ১১ শ জন। অধ্যক্ষ সহ শিক্ষক রয়েছেন ১৬ জন। কর্মচারী রয়েছে ৭ জন। শিক্ষা ব্যবস্থায় অনেকটা শীর্ষে থাকা এই প্রতিষ্টানটি অবশেষে রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ রাশেদুল ইসলামের স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে সরকারী করণ হওয়ায় সকলের মাঝে নেমে এসেছে স্বত্তি।

প্রসংগত, ১৯৯৯ সালে উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের ওয়ালাপালং এলাকায় প্রতিষ্ঠিত হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মীনি ও প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার মায়ের নামে‘ বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজটি। যা প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার মাধ্যমে সরকারি করণ হল।