কক্সবাজারে একদিনে করোনায় আরও ৩ জনের মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কক্সবাজার জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় এখন পর্যন্ত মোট ১৬৫ জনের মৃত্যু হলো। আর গত এক দিনে ২০৬টি নমুনায় করোনা আক্রান্ত হিসেবে কক্সবাজারে শনাক্ত হয়েছেন ৬৯ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ২০৬ জন।নতুন করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আরও ৮ জন।

ঈদের পরের দিন বৃহস্পতিবার কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাব ও সদর হাসপাতালের র‌্যাপিড এন্টিজেন টেস্টে তাদের করোনা শনাক্ত হয়।

বিকালে কক্সবাংলাকে নিশ্চিত করে কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিস জানায় গত এক দিনে করোনায় তিন জন মৃত্যূবরন করেন। তারা হলেন, চকরিয়া উপজেলার চিরিংগার সফুরা খাতুন(৬০),কক্সবাজার সদর পোকখালীর আমান উল্লাহ(৬৫) ও কক্সবাজার পৌরসভার বৈল্যাপাড়ার কক্য আরা((৫৮)। তারা গত ১৭ ও ১৮ জুলাই করোনা পজিটিভ হয়ে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি হন এবং ২১ জুলাই মৃত্যূবরণ করেন।

জেলা সিভিল সার্জন অফিস আরও জানায়, জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২০৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৯ জন। তন্মধ্যে সদর উপজেলা ও পৌরসভার ১০ জন,উখিয়া উপজেলায় ২০ জন,টেকনাফ উপজেলায় ২৬ জন,রামু উপজেলায় ৪ জন,পেকুয়া উপজেলায় ৩ জন,মহেশখালি উপজেলায় ১ জন,চকরিয়া উপজেলায় ৫ জন,কুতুবদিয়া উপজেলায় ০ জন।

এছাড়া জেলায় ২৪ ঘন্টায় ৫০টি র‌্যাপিড এন্টিজেন টেস্টে ২০ জন পজিটিভ হয়েছেন।এর মধ্যে সদরে ১৪ জন,উখিয়ায় ০ জন,টেকনাফে ৫ জন,চকরিয়ায় ০ জন,রামুতে ০ জন,পেকুয়ায় ০ জন,মহেশখালিতে ০ জন,কুতুবদিয়ায় ০ জন এবং উখিয়া শরনার্থী শিবিরে ১ জন ও টেকনাফ শরনার্থী শিবিরে ০ জন । এ পর্যন্ত জেলায় ৪৮১১টি র‌্যাপিড এন্টিজেন টেস্টে করোনা পজিটভ হয়েছেন ১১৮০ জন।এর মধ্যে স্থানীয় ১১০৯ জন এবং রোহিঙ্গা ৭১ জন।

২২ জুলাই ২০৬ জনসহ জেলায় এ পর্যন্ত করোনার পরীক্ষা করা হয়েছে ১ লাখ ৬৫ হাজার ১৭৮ জনের।এর মধ্যে আক্রান্ত হয়েছে ১৫ হাজার ৯৩৩ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১২ হাজার ৮৫৫ জন। প্রতিষ্ঠানিক আইশোলেসনে রয়েছেন ৬৪৩ জন। মৃত্যূবরণ করেছেন ২৬ রোহিঙ্গাসহ ১৬৫ জন। তার মধ্যে সদর ও পৌরসভার ৭৭ জন,উখিয়ায় ৩৫ জন,টেকনাফে ১৭ জন,চকরিয়ায় ১৮ জন,রামুতে ৭ জন,পেকুয়ায় ৫ জন,মহেশখালিতে ৩ জন এবং কুতুবদিয়ায় ৩ জন ।

২৪ ঘন্টায় কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের শরনার্থী শিবিরের ২৪ টি টেস্টে পজিটিভ হয়েছে ৩ জন। শরনার্থী শিবিরে এ পর্যন্ত ৫২ হাজার ৪৫০ রোহিঙ্গার নমুনা পরীক্ষায় করোনাক্রান্ত‘র সংখ্যা ২ হাজার ৩৭৮ জন।এর মধ্যে উখিয়া শরনার্থী শিবিরে ২ হাজার ১ জন এবং টেকনাফ শরনার্থী শিবিরে ৪১২ জন। সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৯৬৩ জন। আইসোলেশনে রয়েছেন ৩৪৯ জন।মৃত্যূবরণ করেছেন ২৬ জন।

এদিকে জেলা প্রশাসন কক্সবাজার শহরসহ বি‌ভিন্ন উপজেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় বিশেষ তৎপরতা চলালেও সংক্রমন কমার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। ১ থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নের পাশাপাশি করোনা রোগীরা যাতে সাধারণ মানুষের স্পর্শে আসতে না পারে ও মানুষ যা‌তে স্বাস্থ্য‌বি‌ধি মে‌নে চ‌লে সে বিষয়ে নজরদারি বাড়ানো হয়েছিল। তা সত্তেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছেনা।

তবে করোনার পরিস্থিতির উন্নতি ঘটাতে রোগীর সংখ্যা কমানো তথা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের উপর জোর দিয়ে আরো বেশি করে গণসচেতনতা তৈরির উপর গুরুত্ব এবং লকডাউন অর্থবহ করতে জনপ্রশাসন ও পুলিশ প্রশসানকে আরো কঠোর ভূমিকা রাখার আহবান জানিয়েছে সচেতন মহল।

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন