ওসি প্রদীপ কুমার এখন টেকনাফ সমাজের আলোকবর্তিকা

নাছির উদ্দীন রাজ(টেকনাফ):
সীমান্ত উপজেলা টেকনাফ মডেল থানার ওসি জনাব প্রদীপ কুমার দাশ টেকনাফ সমাজের আলোকবর্তিকা। আজ থেকে দশ বছর আগে টেকনাফের মানুষ যখন মাছ ধরা সুপারি ব্যবসা বনে গিয়ে কাঠ কাটা লবন চাষ পানের বরজ রুপন ইত্যাদি কাজে করে নিজের সংসার চালাইতেন ছেলে মেয়েদের পড়া লেখা ও প্রয়োজনীয় খরচ চালাতেন তখন ছিলেন টেকনাফের মানুষ সামাজিকতা ও নীতি নৈতিকতায় ভরপুর।পুরু কক্সবাজারের মানুষ বাধ্য হয়ে বলতেন যে জেলার মধ্যে টেকনাফের মানুষের মত ভদ্র নম্র ও ধার্মীক সহ আরো অনেক গুন আছে।কিন্তুু সেই অতীতের সব রেকট ভেঙে দিয়ে দিন দিন পরিবর্তন হতে শুরু নৌকার মাঝি কুলি রিকসা চালক চাঁদের গাড়ির ড্রাইবার কাঠুরে সহ নানা শ্রেনী পেশার মানুষ।কোন অলোকিক শক্তি?কোন খুটির জুর তাদের বার বার আকাশ চুম্বী করে তুলছে।আস্তে আস্তে দেখা গেল ব্যাঙেরছাতার মত ছড়াচ্ছে অবৈধ টাকা দিয়ে অর্জিত ধন সম্পদ ক্রয় সমাজের সর্দারের আসনে ধর্মিয় বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতির চেয়ার বাদ নাই।তখন সাধারন মানুষের মনে প্রশ্ন জাগে দিনের ব্যবধানে কাঠুরে মাঝি চাঁদের গাড়ির ড্রাইবার কি ভাবে বড় বড় দালানের মালিক শত শত কানি জমির মালিক বসুন্ধরায় ফ্যাটের মালিক কোটি কোটি টাকার মালিক সহ নাম নাজানা অনেক কিছু।যখন গণ হারে বৃদ্বি পাচ্ছিল তখন প্রসাশনের কাছে বিভিন্ন জায়গায় ধরা খেতে লাগল ইয়াবা নামক পন্যের প্রমান হতে চলেছে এই সেই মরন নেশা ইয়াবা।কিছুকাল কিছু মানুষ তা সেবন করে যখন মাতাল হয়ে সমাজের দেশের ক্ষতি হচ্ছিল তখন রাষ্ট্রিয় ভাবে নিষিদ্ধ ঘোষনা হল মাদক ব্যবসা।মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের তথ্য মতে যদি নিয়মিত মাদক সেবন চলতে থাকে আগামী ত্রিশ বছরে দেশ মেধা সূন্য হবে।ছাড় দিতে দিতে ক্রমস যখন বেড়ে যাচ্ছে এমতা অবস্হায় নড়ে চড়ে বসে সরকার। দেশ প্রধান নির্দেশ দিলেন যে কোন মূল্যে দেশকে মাদক মুক্ত করতে হবে আর তা বান্তবায়ন করবে প্রসাশন দেখতে চাই জিরুটলান্স।প্রসাশ ঘোষনা দিল চল যায় যুদ্বে মাদকের বিরুদ্ধে,সেই থেকে অনেকেই নিজ নিজ অবস্হানে থেকে অনেক চেষ্টা করেছে কিন্তুু তার সুফল বেশি পাওয়া যায়নি।শেষ অবধি মাদকের উৎপন্তি স্হল টেকনাফে চিন্নিত করে শক্তিশালি এক চৌকশ পুলিশ অফিসারের নিয়োগ হয় যার নাম প্রদীপ কুমার দাশ।যিনি টেকনাফে আসার আগে মহেশখালীতে অনেক জল দস্যু আত্নসমর্পন করিয়ে দেশ ও পুলিশ বাহীনিকে সারা দেশে সমাদৃত করেন।টেকনাফে যোগদানের পরে যখন অভিযান পরিচালনা করেন মাদক কারবারিরা দিক বেদিক ছুড়তে থাকে। টেকনাফে বিভিন্ন ইউনিয়ন শিক্ষা প্রতিষ্টানে সভা সেমিনারে ঘোষনা করেন ওসি প্রদীপ, হয়ত আমি থাকব না হয় অপরাধী থাকবে,শক্তি শালি অভিযানে যখন ইয়াবা করবারিরা বার বার প্রদীপের অভিজানের জালে আটকা পড়ছে রেহায় না পেয়ে ১০২আত্নসমর্পন করে। বাকীরা বহাল তবিয়তে থাকলেও অনেকেই মাদক ব্যবসায়ী মাদক ব্যবসায়ীর সাথে বা প্রসাশনের সাথে বন্দুক যুদ্বে মারাগেছেন। সাংবাদিক ও লেখক আমানুল কবির টেকনাফ সাংবাদিক ফোরামের আহব্বায় মৌঃ জুবাইর জাদিমুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক মাষ্টার শাকের রংগীখালী সঃ প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক নুরুল আলম আজাদ কক্সবাজার কোটের সিঃআইনজীবি এডঃ সেলিমুল মোন্তফা রিকশাচালক জহির উদ্দীন সহ অনেকে বলেন ওসি প্রদীপের সফল অপারেশনে টেকনাফের মানুষ মাদক ব্যবসা থেকে অনেক সরে এসেছে।তারা বলেন এবারের ঈদে দোকান পাটে তেমন কোন মাদক ব্যবসায়ীদের চাপ ছিলনা।তাই জামা কাপড় কিনতেও বাড়তি কোন টাকা নিতে হয়নায়।কিন্তুু আগে মাদক ব্যবসায়ীদের জন্য মাছ মাংশ ভাল মানের তরি তরকি সহ অনেক কিছুই মন চাইলেও নিতে পারিনি।কারণ অবৈদ টাকার গরম, ভুক্তভোগীরা বলেন টেকনাফের ওসিকে আমরা সাধারন টেকনাফ বাসী আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।উনার দক্ষ্য অভিযান পরিচালনা করে আগামীতে হারিয়ে যাওয়া টেকনাফের সুনাম ফিরিয়ে আনবেন। তাই টেকনাফের মানুষ এখন কিছুটা হলেও শান্তিতে আছেন বলে জনসাধারণ নিশ্বিত করেন।তাদের আশা আগামীতে বাকী অপরাধীদের ধরে আইনের আওতায় নিয়ে এসে টেকনাফকে মাদক মুক্ত করবেন।

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন