আপনি কি ফেসবুকে ফোন নাম্বার দিয়েছেন?

আপনি যদি আপনার ফোন নাম্বার ফেসবুকে দিয়ে রাখেন, তাহলে যে কেউ আপনার ঠিকানা ও আপনার সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য খুব সহজেই পেয়ে যাবে। আপনার বিভিন্ন প্রাইভেসি সেটিং থাকার পরও বিভিন্ন সাইবার অপরাধী আপনার দেয়া তথ্যের অপব্যবহার করতে পারে।

ডেইলি মেইলের প্রতিবেদন অনুযায়ী সল্ট এজেন্সির কারিগরি পরিচালক রেজা মইনুদ্দিন একটি কোড জেনারেট করেছেন, যা ব্রিটেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার প্রত্যেক সম্ভাব্য নাম্বার সমন্বয় করেন।তারপর তিনি বাল্কের মধ্যে ফেসবুক এর অ্যাপ্লিকেশন বিল্ডিং প্রোগ্রাম (এপিআই) এর কাছে লক্ষ লক্ষ নম্বর পাঠিয়েছেন। বিনিময়ে, তিনি লক্ষ লক্ষ ব্যক্তিগত প্রোফাইল অনিরুদ্ধ করেছেন।

মোবাইল নাম্বারের বিষয়ে ফেসবুকে খুব ভালভাবে নিরাপত্তা দেয়া নেই। ফলে সাইবার অপরাধীরা খুব সহজেই যে কোন একাউন্ট হ্যাক করতে পারে। তারা একাউন্ট হ্যাক করে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চুরি করে তা অন্যের নিকট বিক্রি করে। যাদের দ্বারা আপনার ক্ষতির আশংকা রয়েছে, তাদের কাছেই আপনার ব্যক্তিগত তথ্য বিক্রি করে দেয়।

ফেসবুকের কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়ে অবগত করা হলেও তারা এর যথার্থ ব্যবস্থা নেয়নি। এখনও ফোনের বিষয়ে তারা কোন নিরাপত্তা যুক্ত করেনি। এতে বিশ্বব্যাপী ১.৪৪ বিলিয়ন ফেসবুক ব্যবহারকারী তাদের একাউন্ট হ্যাক হবার আশঙ্কায় রয়েছেন।
এ এন ডি কর্পোরেশনের জাতীয় নিরাপত্তা বিভাগ দ্বারা গত বছরের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক একটি অলাভজনক গ্লোবাল নীতি মনে করেন, ছবি, নাম, ফোন নম্বর, শিক্ষা ইতিহাস এবং অবস্থানগুলি অবৈধ সাইট এবং ট্রেডিং নেটওয়ার্কে বিক্রি করা যাবে।

এ এন ডি এর রিপোর্ট অনুযায়ী, টুইটার ও ফেসবুক অ্যাকাউন্ট চুরি করা এখন ক্রেডিট কার্ডের চেয়ে বেশি লাভজনক।