আওয়ামী লীগের ৭৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে জাতীয় সংসদে বক্তব্য রাখলেন এমপি কমল

নীতিশ বড়ুয়া, রামু (কক্সবাজার) :
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে মহান জাতীয় সংসদে বক্তব্য রাখলেন আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি। ২৩ জুন, বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনে তিনি কক্সবাজারে শেখ হাসিনা সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন এবং কক্সবাজারবাসির প্রত্যাশার কথা বলেন।
একাদশ জাতীয় সংসদের ১৮তম অধিবেশনে ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের বাজেট সম্পর্কে ২৯৬, কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু-ঈদগাঁও) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল বলেছেন- প্রতিবছরের মতো এবারো বাজেট ২০২২-২৩কে স্বাগত জানিয়ে এবং সমর্থন জানিয়ে বলতে চাই-এ বাজেট গরীববান্ধব এবং এ বাজেট ব্যবসাবান্ধব। এখানে বিদ্যুৎ খাতে ভর্তুকি দেয়া হয়েছে গরীবদের জন্যে। এখানে জ্বালানি খাতে ভুর্তুকি গরীবরাই উপকৃত হবে। কৃষিক্ষেত্রে ভুর্তুকি গরীবদের জন্যে দেয়া হয়েছে। সকল ক্ষেত্রে সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করে দলিত এ বাজেট আবার বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের আগেই উন্নত দেশে রূপান্তর করবে, তাইতো সঙ্গত কারনে আমি এ বাজেটকে সমর্থন জানাই।
আমি কক্সবাজার-৩ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। আমার কক্সবাজার অনেক পিছিয়ে ছিল। কক্সবাজারে আজকে আধুনিক বিমানবন্দর, দেশের সবচেয়ে দীর্ঘ রানওয়ে সম্বলিত সেই বিমানবন্দর। কক্সবাজারে সেনানিবাস, কক্সবাজারে মেরিনড্রাইভ সড়ক, কক্সবাজারে শেখ কামাল ক্রীড়া স্টেডিয়াম, কক্সবাজারে টেলিভিশন কেন্দ্র, কক্সবাজারে মেডিকেল কলেজ, কক্সবাজারে বিকেএসপি, কক্সবাজারের রাস্তাগুলোর প্রশস্থকরন, কক্সবাজারে মাতারবাড়ি শিল্প এলাকার উন্নয়ন, কক্সবাজারের সাবরাং ট্যুরিজম পার্ক নির্মাণসহ সকল উন্নয়ন কক্সবাজারকে এখন শুধু বাংলাদেশে নয়, যেকোন আন্তর্জাতিক নগরীর সাথে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নিয়ে গেছেন।
আমাদের কক্সবাজারকে এক সময় তৃতীয় শ্রেণীর শহর মনে করতো। চট্টগ্রামের মানুষেরাও আমাদেরকে অনেক সময় তৃতীয় শ্রেণীর মানুষ হিসেবে গন্য করতো। কক্সবাজারের মানুষের সাথে চট্টগ্রাম অথবা অন্য এলাকার মানুষেরা আত্মীয়তা করার সময় তাঁরা চিন্তা-ভাবনা করতো। কক্সবাজারের ছেলে-মেয়েদের সাথে অন্য এলাকার মানুষেরা অনেকসময় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতেও আমরা খুব কম দেখেছি। এমনকি অন্য এলাকা থেকেও যখন কক্সবাজারের ছেলে-মেয়ের বিয়ের প্রস্তাব হতো সে সময়ে উপযুক্ততা থাকলেও শর্ত দেয়া হতো তাদেরকে চট্টগ্রাম অথবা ঢাকা শহরে থাকতে হবে।
সেই কক্সবাজার, এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজকে আমাদেরকে অনেক মর্যাদার আসনে নিয়ে গেছেন বলেই কক্সবাজার সবচেয়ে আলোকিত শহর হয়ে গেছে। ঢাকার যে কোন সুবিধার সাথে কক্সবাজারের তুলনা করা চলে। কক্সবাজার শহরকে আধুনিকি করনে প্রতিটি রাস্তার কাজ যেমন দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে, তেমনি রামু উপজেলাও এখন শহর হয়ে গেছে। ঈদগাঁও ইউনিয়ন থেকে এখন উপজেলায় রূপান্তর হয়েছে। তাইতো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি। শেখ হাসিনা আমাদেরকে অনেক কিছু দিয়েছেন। তারপরও আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় প্রয়োজন। কক্সবাজারে সিটি কর্পোরেশন প্রয়োজন, রামু এবং ঈদগাঁওতে পৌরসভার প্রয়োজন। লবন আমদানি নিষিদ্ধ করা প্রয়োজন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, লবন রপ্তানি করার জন্যে। তারজন্য উপযুক্ত পদক্ষেপ এবং লবনবোর্ড গঠন করা প্রয়োজন। এমপি কমল বলেন, আমাদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দরকার আছে। বাংলাদেশে শিক্ষা ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়া জেলা আমাদের কক্সবাজারে আমার নির্বাচনি এলাকায় আরো কমপক্ষে বিশটি প্রাথমিক বিদ্যালয় সৃষ্টি করার দাবী জানাচ্ছি এবং আমার গড়া একটি স্কুলও এমপিও ভুক্তির দাবী জানাচ্ছি।
তিনি বলেন, একলক্ষ আটার হাজার বর্গ কিলোমিটার সমুদ্রসীমার জন্য আমাদের কোন মন্ত্রণালয় নেই। সমুদ্রসম্পদ রক্ষণাবেক্ষণ, উন্নয়ন এবং আহরনের জন্য নতুন একটি সমুদ্র মন্ত্রনলায় করার জন্যে আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিনীত প্রস্তাব রাখছি।
বঙ্গবন্ধু কণ্যা, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের এই সময়ে কক্সবাজার অনেকদূর এগিয়ে গেছে। এই এগিয়ে যাওয়ার সাথে আমাদের আরো অনেক দাবি রয়েছে। সময়ের সংক্ষিপ্তততার কারনে আমি পরবর্তীতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে দাবি সমুহ লিখিত আকারে পেশ করবো।
আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বলেন, আজ ২৩ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঠিক এমনই একসময়ে খুদিরাম, সূর্যসেনের রক্তে রঞ্জিত এবং তাদের আদর্শে অনুপ্রানিত নেতাদের নেতৃত্বে সেই ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা হয়েছিল। ওই সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক।
মাত্র ৯ মিনিটের বক্তব্যে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন এবং আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার দিনে বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন ও সালাম জানান। #

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন