ad

অবশেষে আধুনিক ইনডোর জিমনেশিয়ামের স্বপ্ন পূরণ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

অবশেষে পূরণ হতে যাচ্ছে ক্রীড়াঙ্গনসহ কক্সবাজার জেলাবাসীর দীর্ঘদিনে স্বপ্ন আধুনিক ইনডোর জিমনেশিয়াম। বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম সংলগ্ন পরিত্যক্ত টেনিস কোর্টে এই জিমনেশিয়াম নির্মিত হবে। এছাড়া জরাজীর্ণ গ্যালারি ভেঙ্গে অত্যাধুনিক গ্যালারি নির্মাণ ও স্টেডিয়ামের বর্তমান মাঠ আন্তর্জাতিক মানের সংস্কার করা হবে। প্রকল্পের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ২০ কোটি টাকা। গত বুধবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (একনেক) এর সভায় এই প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, বীরশ্রেষ্ঠ রুহুম আমিন স্টেডিয়ামে একটি আধুনিক জিমনেশিয়াম নির্মাণ দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল জেলাবাসীর। আর বিভিন্ন সময়ে জিমনেশিয়াম নির্মাণের দাবি জোরালো করে জেলা ক্রীড়া সংস্থা। যার আলোকে প্রায় আড়াই বছর আগে জেলা ক্রীড়া সংস্থা প্রকল্পটি তৈরী করে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদে পাঠায়। এরপর মন্ত্রণালয় প্রকল্পটি একনেকে প্রেরণ করে। মন্ত্রীপরিষদ সচিব মোঃ শফিউল আলম, নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ ও কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় প্রকল্পটি একনেকে চুড়ান্তভাবে অনুমোদন লাভ করেছে। বিষয়টি কক্সবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অনুপ বড়ুয়া অপু নিশ্চিত করেছেন।

এ ব্যাপারে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অনুপ বড়ুয়া অপু বলেন, কক্সবাজার ক্রীড়া ক্ষেত্রে একটি আন্তর্জাতিক ভেন্যু। কিন্তু একটি আধুনিক জিমনেশিয়াম না থাকায় কক্সবাজারকে সহজে আন্তর্জাতিকমানের ভেন্যু হিসাবে মনোনয়ন করা কঠিন হয়ে যেতো। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ইনডোর গেমস প্রতিযোগিতা সহজে কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত হতে পারবে। এছাড়া স্থানীয় খেলোয়াড়রা জিমনেশিয়ামে ক্রীড়া চর্চা করে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অংশ নিয়ে কক্সবাজারের সুনাম সমৃদ্ধি করতে পারবে। এটি নির্মিত হলে শহীদ বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম পরিপূর্ণতা পাবে। জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অনুপ বড়ুয়া অপু প্রকল্পটি অনুমোদনে আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করায় কক্সবাজার দুই কৃতিসন্তান মন্ত্রীপরিষদ সচিব মোঃ শফিউল আলম ও নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ ও কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেনের প্রত কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদে আগামী দেড় মাসের মধ্যে এই প্রকল্পটি টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

এদিকে এই প্রকল্প আলোর মূখ দেখায় জেলার ক্রীড়াঙ্গনে উৎসবের বর্ণিল আমেজ বিরাজ করছে।

ad